সরকারী কর্তাদের ম্যানেজ করে কোটি টাকা হাতিয়েছে একটি চক্র

সিদ্ধিরগঞ্জে নার্সারীর পরিবর্তে হোটেল নির্মাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিদ্ধিরগঞ্জ:

সিদ্ধিরগঞ্জে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে নার্সারী নামে লিজ নিয়ে ৮ হোটেল নির্মাণ করেছে সাদেকুর রহমান। প্রতিদিন প্রতিটি হোটেল থেকে ৫ হাজার টাকা ভাড়া নিচ্ছে সাদেকুর রহমান ও তাঁর লোকজন। জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাংরোড মিনার মসজিদ সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে নার্সারীর জন্য লিজ আনেন সাদেকুর রহমান। লিজ নেওয়ার জায়গায় নার্সারী না করে গড়ে তুলেছেন খাবারের হোটেল।

দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের নাকে ডোগায় এসব হোটেল গড়ে তোলা হয়েছে। অথচ রহস্যজনক কারনে তারা কোন ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করেননি। তাদের ম্যানেজ করেই চলছে এই অবৈধ হোটেল বানিজ্য। প্রতিটি হোটেল থেকে ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ৫ হাজার টাকা করে। ৮টি হোটেল থেকে প্রতিদিন ৪০ হাজার টাকা ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। সে হিসাবে প্রতি মাসে ১২ লক্ষ টাকা আদায় করা হচ্ছে। বছরে মোট ভাড়ার পরিমাণ দাড়াচ্ছে ১ কোটি ৪৪ লক্ষ টাকা।

অনুসন্ধানে আরোও জানা যায়, নার্সারীর নামে লিজ সাদেকুর রহমান আনলেও হোটেল গুলো থেকে প্রতিদিন ভাড়া আদায় করছে হাজী আহসান উল্লাহ সুপার মার্কেটের পরিচালক হাবিবুল্লাহ হবুলের লোকজন। এত ভাড়া দিতে গিয়ে অনেক হোটেল মালিক পথের ফকির হয়েছে। অনেক হোটেল মালিক পালিয়েও গিয়েছে। শুধু তাই নয় ফুটপাত থেকে সুদা নামের এক চাঁদাবাজকে দিয়েও চাঁদাবাজি করাচ্ছে এসব বিতর্কিত লোকেরা। সাদেকুর রহমানের কাঁধে বন্দুক রেখে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে তারা।

আরও জানা যায়, এসব ভাড়ার একটি অংশ পানি উন্নয়ন বোর্ডে কর্মকর্তারা পাচ্ছেন। নার্সারীর নামে লিজটির মেয়াদও নাকি শেষ হয়ে গেছে। লিজ শেষ হওয়ার পরও পানি উন্নয়ন বোর্ড কোন ধরনের আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেননি। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে কয়েকজন দোকানী বলেন, এসব হোটেল ভাড়া নিয়ে আজ পথের ফকির হয়ে গিয়েছি। প্রতিদিন সন্ধ্যার সময় ৫ হাজার টাকা ভাড়া দেওয়া হচ্ছে হাবিবুল্লাহ হবুলের লোকজনের কাছে।

এনজিও সমিতি, চাউলের দোকান, মাছের দোকান, সবজি দোকান সহ বিভিন্ন মোকামে লক্ষ লক্ষ টাকা দেনা হয়েছি। মোটা অংকের ভাড়ার কারনে লোকসানে পড়তে হয়েছে আমাদের। এরই মধ্যে অনেকে হোটেল মালিক পালিয়েছে। তারা আরও বলেন, কিছু অসাধু পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে ইতিমধ্যে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়েছে তারা এবং জানতে পারলাম এই জায়গার নাকি লিজও শেষ হয়েছে বহু দিন আগে।

আইনকে বিৃদ্ধা আঙ্গুলি দেখিয়ে নার্সারীর নামে লিজ এনে হোটেল নির্মাণ করা আইন ভঙ্গের সামিল। তাই প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ করবো উক্ত বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থার নেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ