আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে

ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধি চায় ফতুল্লাবাসী


নিজস্ব প্রতিবেদক, ফতুল্লা

দীর্ঘ প্রায় ৩০ বছর পর আগামী ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফতুল্লা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। ফতুল্লার পাড়ার চায়ের দোকান থেকে শুরু হাট-বাজারে বয়োজ্যেষ্ঠ থেকে শুরু করে তরুণদের আলোচনায় এখন শুধু ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। তবে নির্বাচন নিয়ে আনন্দের পাশাপাশি চেয়ারম্যান পদে ভোট না হওয়ার শঙ্কাও রয়েছে ফতুল্লাবাসীর মধ্যে। ইউনিয়নবাসীর অভিমত, ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির দায়বদ্ধতা থাকে জনগণের প্রতি। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নয়, ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি চান তারা।

গত ১১ নভেম্বর জেলার সদর, রূপগঞ্জ ও বন্দর উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের ৫টি ইউনিয়ন এবং আগামী ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য সোনারগাঁ উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন প্রার্থীরা। ২৪টি ইউনিয়নে ৯ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হওয়ায় ফতুল্লাবাসীর মধ্যে ভোট না হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে সেসব শঙ্কাকে দূরে সরিয়ে নিজেদের ভোটে নিজেদের জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করতে চায় ফতুল্লাবাসী।

পশ্চিম তল্লা বাসিন্দা হাশমত মিয়া ফতুল্লা ইউনিয়নের ভোটার। তিনি বলেন, ‘বহুত বছর পর আমগো এইহানে চেয়ারম্যান-মেম্বরি নির্বাচন হইবো। তা হুইন্নাই আমরা খুশি। আমরা এইডার অনেক অপেক্ষা করতাছিলাম। তয় পেপার-পত্রিকার দিকে তাকাইলেই দেহি যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় পাশ। এহন যদি আমগো এদিকেও একই অবস্থা হয় তাইলে তো এই ভোটের কোনো মানে হয় না। ভোট যেহেতু আইছে আমরা চাই আমগো ভোটে আমগো পছন্দের মানুষের জিতামু।’

কায়েমপুর এলাকার বাসিন্দা বৃদ্ধ আনু মিয়া বলেন, ‘ভোট আইছে, ভোটের মত যেন ভোট হয়। সিলেকশনে যাতে কেউ পাশ না করে এইডাই আমাগো চাওয়া। বয়স হইছে, বেশিদিন নাও বাঁচতে পারি। এইডাই হয়ত শেষ ভোট হইবো। তাই জীবনের শেষ ভোটটা দিয়া সবার পছন্দের চেয়ারম্যান বানাইতে চাই।’

তরুণ ভোটার লালখাঁর মামুন বলেন, ‘অনেকটা রূপকথার মত ফতুল্লা ইউনিয়নের নির্বাচনের কথা দাদা-নানাদের কাছ থেকে শুনেছি। যখন ভোটার হয়েছি তখন থেকে কী একটা কারণে যেন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন বন্ধ। সব গ্রাম-গঞ্জে ভোট হলেও আমাদের এখানে ভোট হয় না। আমাদের কাছে নির্বাচনের আমেজ মানে ছিল জাতীয় নির্বাচন। তাই সবার কাছে আমাদের মত তরুণ প্রজন্মের প্রত্যাশা থাকবে সুষ্ঠু, সুন্দর ও একটি প্রতিদ্বন্দ্বীতামূলক নির্বাচনের। আমরা ভোট প্রদানের মাধ্যমে ৩০ বছরের পুরোনো ইতিহাসকে মুছে ফেলতে চাই।’

উল্লেখ্য যে, তফসিল অনুযায়ী ফতুল্লা ইউপি নির্বাচনের আগামী ২৫ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিল, ২৯ নম্বর মনোনয়পত্র যাচাই-বাছাই, ৩-৫ ডিসেম্বর আপিল নিষ্পত্তি, প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৬ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ করা হবে ৭ ডিসেম্বর। ভোটগ্রহণ করা হবে ২৩ ডিসেম্বর।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ