কেন্দ্রে পাল্টা অভিযোগ


নিউস ডেস্ক

এবার নবগঠিত কমিটির বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া প্রতিপক্ষকে ‘অপপ্রচারকারী’ আখ্যা দিয়ে পাল্টা অভিযোগ দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর মহিলা দলের নবকমিটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বরাবর বুধবার (১৮ নভেম্বর) অভিযোগটি দেওয়া হয়। অভিযোগ পত্রের ভাষ্য মতে, ‘নতুন কমিটি নিয়ে সাবেক মহিলা দলের নেতৃবৃন্দ যা বলছেন, তা সম্পূর্ণ মিথ্যাচার ও ভিত্তিহীন’।
অভিযোগপত্রটিতে স্বাক্ষর করেছেন জেলা মহিলা দলের সভাপতি রহিমা শরিফ মায়া, সাধারণ সম্পাদক রুমা আক্তার, মহানগর মহিলা দলের সভাপতি দিলার মাসুদ ময়না ও সাধারণ সম্পাদক আয়েশা আক্তার দিনা।

তাঁর অনুলিপি দেওয়া হয়েছে স্থায়ী কমিটি, সিনিয়র যুগ্ন মহাসচিব, দপ্তর সম্পাদক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে।

সেই অভিযোগের একটি কপি এসেছে গণমাধ্যম কর্মীদের হাতেও।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, বর্তমান নবগঠিত কমিটির বিরুদ্ধে সমস্ত বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী এবং ইন্দনদাতা (বিভাগীয় সাংঠনিক) পারভীন আক্তার। সে সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়ে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন মহিলা দলের নেতৃদের কাছ থেকে পদ দেওয়ার লোভ দেখিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এখন সে আড়াইহাজারের এমপি বাবুর সাথে আতাত করে বিএনপির ত্যাগী অনেক নেতাকর্মীদের নামে মামলা করে হয়রানির স্বীকার করেন এবং ভয়ভিতি প্রদর্শন করেন। ১/১১ এর সময় পারভীন আক্তারের স্বামী আনোয়ার হোসেন আনু বাসায় র‌্যাবের ক্যাম্প বসিয়ে নিরিহ বিএনপি নেতাকর্মীদের ভয়ভিতি দেখয়ে টাকা ও জমিজমা আত্মসাৎ করেছেন। বর্তমানে সে নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা দলের সাবেক সভানেত্রী নুরুন নাহার ও মহানগর মহিলা দলের ৭নং যুগ্ম আহ্বায়ক সাজেদা খাতুন মিতাকে উস্কানি দিয়ে আমাদের নবগঠিত কমিটির বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ করেছে। এছাড়াও তারা নির্বাহী কমিটিসহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ করে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় বিব্রিতি দিয়েছে। যাে এখন দলের ভাবমুর্তি খুন্ন হয়েছে।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, নারায়ণগঞ্জ মহিলা দলের সভানেত্রী নুরুন নাহার বেগম দীর্ঘ ১৩ বৎসর যাবৎ সভাপতির পদ দখল করে রেখেছে। বর্তমানে তাঁর অশালীন ও উগ্র আচরণে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা অতিষ্ঠ। নুরুন নাহার নিজের বিরুদ্ধে ৭-৮টি রাজনৈতিক মামলার কথা জানালেও একটি মামলা ছাড়া সব ভূয়া। জেল খেটেছে তাঁর ব্যক্তিগত বাড়ির বিদ্যুতের বকেয়া বিলের মামলার কারণে। সে রহিমা শরিফ মায়াকে নারায়ণগঞ্জের ভাড়াটিয়া বলেছে, অথচ নুরুন নাহারের নিজের বাড়ি কুমিল্লা আর রাজনীতিতে আগমন জাতীয়পার্টি থেকে।

অভিযোগের এক অংশে উল্লেখ করা হয়েছে, সাবেক সভানেত্রী রশিদা জামাল দীর্ঘ ১৩ বছর মহানগর মহিলা দলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে মহানগর মহিলা দলের সভাপতি দিলার মাসুদ ময়না তাঁর সাথেই সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। অথচ, তার বিরুদ্ধে আওয়ামীঘেসা বলা হয়েছে, যা মিথ্যা ও বানোয়াট।

এছাড়া মহানগর মহিলা দলের ৭নং যুগ্ম আহ্বায়ক সাজেদা খাতুন নিতা উর্গ আচরণ ও অশালিন পোশাক পরিধান করে বেড়ান। সে নিজে ৫ম শ্রেণি পাশ না করেই অন্যের শিক্ষাগত যোগত্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের ৩ বারের এমপি আবুল কালামের বিরুদ্ধে অশালিন ভাষায় বিভিন্ন মন্তব্য করে। তাঁর চারিত্রিক বৈশিষ্ট নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সর্বমহলে নোংড়া আলাচনা হয় সবসময়। যা আমাদের দলের জন্য অত্যান্ত লজ্জাকর।

তাঁরা অপপ্রচার চালাচ্ছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মৃত. বিনু আক্তারকে বর্তমান মহানগর মহিলা দলের কমিটিতে সহ দপ্তর সম্পাদক করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে এই যে, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মৃত. বিনু আক্তার আর বর্তমান কমিটির বিনু আক্তার এক ব্যক্তি নয়। বর্তমান কমিটির বিনু আক্তার বন্দর থানার মহিলা দলের নেত্রী।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

পূর্ববর্তী সংবাদপ্রথম বিভাগে বাবুল একাডেমী
পরবর্তী সংবাদ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ৩

সর্বশেষ