অসহায়দের খাবার দিলেন মামুন

নগর প্রতিবেদক

থাকতেন প্রবাসে, সেখান থেকেই স্বপ্ন বুনেন মানুষের সেবা করার। দেশে ফিরে ঠিক সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে নিজ এলাকায় বিভিন্ন মানুষের পাশে দাড়াতে শুরু করেন এমএইচ মামুন। এলাকার সবার কাছে যিনি ‘মামুন ভাই’ হিসেবেই বেশি পরিচিত।

করোনাকালে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার পৌছেঁ দেয়া, রান্না করা খাবার রাস্তার পাশে থাকা মানুষের হাতে হাতে বিতরণ করাসহ বিভিন্ন সামাজিক কাজে ব্যস্ত রেখেছেন এই মানবিক পুরুষ। তার এই মানবিক আচরণে এলাকায়র সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে মুরুব্বিদের কাছেও প্রশংসায় পঞ্চমুখ। তাই এলাকাবাসী ও মুরুব্বিদের সম্মতিতে আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে অংশগ্রহন করবেন মো. হান্নান মামুন ওরফে এমএইচ মামুন।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সকাল ৯টা থেকে কয়েকটি ধাপে নিতাইগঞ্জ এলাকায় নিজ বাসভবনে মামুনের উদ্যেগে, বিভিন্ন এলাকার অসহায় দুস্থ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ সময় প্রায় দেড় হাজার পরিবারের মাঝে ২ দিনের খাবার যোগ্য চাউল, ডিম, আলু বিতরণ করা হয়।

কাউন্সিলর প্রার্থী এমএইচ মামুন বলেন, করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে আমার যতটুকু সাধ্য ছিলো আমি মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমি চেষ্টা করেছি মানুষের দুঃখকে ভাগ করে নেয়ার জন্য। যারা আসতে পারে নাই তাদের বাসায় গিয়ে খাবার দিয়েছি। আমি কেবল আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য এই সমাজ সেবামূলক কাজ করি। আমি প্রতিজ্ঞা করেছি আমি আর কখনো প্রবাসে যাবো না। আমি দেশে থেকে মানুষের সেবা করবো। আজ আসলে আমি এই এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের কাছ থেকে অনুপ্রনিত হয়েছি। আমি তাদের দ্বারা বার বার সাহস পেয়েছি এই ধরণের কাজ করার। আমার স্বপ্ন আমি অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাড়িয়ে তাদের সেবা করতে চাই।

তিনি বলেন, আমি এই ১৮নং ওয়ার্ডে বেশ কয়েকটি সমস্য লক্ষ্য করেছি। এই এলাকার মানুষের স্বাস্থ্য নিয়ে ব্যাপক সমস্যায় পড়তে হয়। ভালো চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকায় ছুটে যেতে হয়। অনেকে ক্ষেত্রে পথেই রোগীর মৃত্যু ঘটে। এই এলাকায় উচ্চ মানের শিক্ষার অনেক ঘাটতি আছে, এখানকার হাইস্কুলের শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করার জন্য অনেক দূরে যেতে হয়। এখানে কোন হাইস্কুল নাই। আমি চাই নির্বাচনে জয়ী হয়ে একটি পরিকল্পিত উন্নয়ন করতে এবং এই এলাকায় মানুষের এই সমস্যগুলো দূর করতে।

তিনি আরও বলেন, ১৮নং ওয়ার্ডে শহীদ নগরের মানুষের স্থায়ী বন্দোবস্ত নাই। আমি এই এলাকার মানুষের জন্য চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করতে চাই। সবচেয়ে বড় কথা এখানে বৃদ্ধদের জন্য কোন বসার স্থান নাই, তারা শেষ বয়সে ঘরে বসে থেকে অসহায়ত্ব দিন পার করে। আমি চাই তাদের জন্য একটি ক্লাবের ব্যবস্থা বা তাদের একত্রিত একটি মিলনমেলার ব্যবস্থা করে দিতে। আমি যদি নির্বাচনে জয়ী নাও হই তাহলে নির্বাচিতদের কাছে অনুরোধ করছি তারা যাতে এর একটা বন্দোবস্ত করে দেয়।

এ সময় তার এই সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে সহমত পোষন করেছেন স্থানীয় মুরব্বি মো. তাহের মিয়া, মো. ইসমাইল মিয়া, ফারুক মিয়া, সানোয়ার হোসেন ভুট্টুসহ অনেকে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

পূর্ববর্তী সংবাদচুনকা নগরী করতে চান আইভী ?
পরবর্তী সংবাদ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ৩

সর্বশেষ