প্রতিশোধ নিতে চান কাজিম উদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

বন্দরের কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ থেকে সরব ওঠা গণপদত্যাগের জরুরী সভায় ক্ষোভ ঝেড়েছেন ইউনিয়ন কমিটির নেতাকর্মীরা। প্রতিপক্ষ তথা দেলোয়ার প্রধানের অনুগামীদের হাতে হামলা ও লুটতরাজের কথা তুলে ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন তারা। একই সাথে এর সুরাহা না করা হলে মান সম্মান বাঁচাতে আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিকেল থেকে শুরু হওয়া জরুরী সভায় এমন মন্তব্য করতে থাকেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্যরা। ক্ষমতাসীন দলের সদস্য হয়েও কেন এমন অপদস্থ হতে হবে তাদের তা জানতে চেয়েছেন উপজেলা সাধারণ সম্পাদকের কাছে। প্রয়োজনে ট্রাক ভাড়া করে ঢাকায় গিয়ে অভিযোগ দেয়ার কথাও উঠে এই সভায়।

সভার শুরুতেই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম কাশেম গণমাধ্যমকর্মীদের অনুরোধ করেন বক্তব্য রেকর্ড, ভিডিও ধারন ও সরাসরি সম্প্রচার না করতে। এরপরেই একে একে বক্তব্য দেয়ার সুযোগ প্রদান করেন তিনি। ফ্লোর পেয়ে অন্তত ১৫ জন নেতা ও সদস্য তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। বিকেল থেকে শুরু হওয়া এই সভা চলে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত।

জরুরী সভায় সদস্যরা বলেন, গত ১২ বছর ধরে কলাগাছিয়ায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নির্যাতিত হচ্ছে। এখন মনে হচ্ছে আমরা আওয়ামী লীগের কেউ না। আমাদের বাড়িঘরে হামলা চালানো থেকে শুরু করে রাস্তাঘাটে টিটকারী করছে সকলে। দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগ করার পর এমন অপমান সহ্য করা সম্ভব না। জয় বাংলা শ্লোগান দেয়া আর আওয়ামী লীগ করা কি আমাদের অন্যায় হয়ে গেলো? যদি আওয়ামী লীগ করতে হয় তাহলে আপনারা আজ বলে যাবেন কেমন আওয়ামী লীগ করবো আমরা? নারায়ণগঞ্জে যেমন উত্তর দক্ষিন আছে, তেমন বন্দরেও সিদ্ধান্ত নিতে হবে। নাহলে আমরা মূল্যায়ন পাবো না। আওয়ামী লীগ করবো নাকি ওসমান লীগ করবো তা আমাদের জানিয়ে দিবেন। যদি আওয়ামী লীগ করতে হয় তাহলে আইভীর মত আওয়ামী লীগ করবো। আর যদি ওসমান লীগ করতে হয় তাহলে আমাদের আর দরকার নেই। নব্য যেসব আওয়ামী লীগ আছে ওদের নিয়েই থাকুক। যেই ছেলেরা আমাদের দেখে ১০ হাত দূরে থেকে সালাম দিতো তারা এই পরিবারের কারনে আমাদের বাড়ী ঘেরাও দেয়ার সাহস পায়।

নেতাকর্মীরা আরও বলেন, আমাদের নিজেদের ভেতরেই কিছু বেঈমান আছে। তারা দুই নৌকায় পা দিয়ে চলে। তারা নির্বাচনের সময় দিনের বেলা কাজিম ভাই, রাতের বেলা দেলোয়ার ভাই করেছে। তাদের কে চিহ্নিত করে দল থেকে বিতারিত করতে হবে। এদের কারনে আমরা জয় পাইনি। তা না হলে এক ঘরে বড় ভাই নৌকার এজেন্ট, ছোট ভাই লাঙ্গলের এজেন্ট হয় কিভাবে? এই নেতারা যদি নেক্সট টাইম পদ চায় তাহলে তাদের অপমান করে তাড়িয়ে দেয়ার দাবী রাখছি। এছাড়া আগামীতে আওয়ামী লীগের কাধে ভর করে কোন লাঙ্গল সহযোগিতা পাবেনা। ভবিষ্যতে এই বন্দরে কোন লাঙ্গলের এমপি, চেয়ারম্যানের পক্ষে অন্তত কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা কাজ করবে না এমন শপথ গ্রহনের দাবী জানাই।

নেতাকর্মীদের বক্তব্য বিকেল ও সন্ধ্যা দুই দফায় শোনার পর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম কাশেম বলেন, আমরা যাদের বিচার করতে চাই তাদের বিচারের জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। বিচারকই যদি সরে যায় তাহলে বিচার হবে কিভাবে? আমরা কি করবো তা উপজেলা সাধারণ সম্পাদক কাজিম ভাই বলে দিবেন। তিনি যা বলবেন সেই মোতাবেক আমরা কাজ করবো। তার উপর আমাদের আর কোন কথা নেই।

নেতাকর্মীদের দীর্ঘ অভিযোগ আর ক্ষুব্ধ অবস্থা শুনে কাজিম উদ্দিন বলেন, পদত্যাগ কোন সমাধান না। এখন পদত্যাগ করলে সবাই বলবে কাজিম হেরেছে তাই পদত্যাগ করেছে। এটা ভুল মেসেজ যাবে। তার চাইতে বরং আমরা সংগঠিত করবো। আমাদের সবাইকে একত্রিত হতে হবে। আগামী নাসিক নির্বাচনের পরে আমরা পুরো উপজেলা ঢেলে সাজাবো। আর তা শুরু হবে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন থেকেই। আর তাই আগামীতে দলকে সুসংগঠিত করার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থেকে এই জুলুম শক্তিকে মোকাবেলা করতে হবে। আপনাদের সকল দায়িত্ব আজ থেকে আমি নিলাম।

সদ্য সমাপ্ত নির্বাচন ইস্যুতে কাজিমউদ্দিন বলেন, সবাই জানতে পেরেছে বুঝতে পেরেছে কি হয়েছে নির্বাচনে। যেহেতু আমাদের পরাজিত ঘোষণা করা হয়েছে আমরা সেটিই মেনে নিয়েছি। কিন্তু তাই বলে আমার কর্মীকে আঘাত করা হবে আর আমি বসে থাকবো বা অন্যত্র চলে যাবো এটা কখনও আমি বলিনি। আমি প্রথম থেকেই আপনাদের বলেছি, আমার কর্মীর গায়ে আঘাত বা আঁচড় দেয়া হয় তার প্রতিশোধ আমরা নিবো। আমার দুঃখ লাগে, আপনারা আওয়ামী লীগ করেন আর আপনাদের আঘাত করা হয়েছে, বাড়ি ছাড়া করা হয়েছে। এত বড় বড় কথা আজ বললেন কিন্তু আপনারা আসেন না একটা মামলা করতে। আমি অনেককে বলেছি আসেন মামলা করবো কোথায় কি হয়েছে। আমি ২ দিন পর সব দেখেছি এবং বলেছি, কিন্তু আপনারা কেউ রাজি হননি। কেন রাজি হবেন না? আমরা কি কারও তাবেদারী করি? আমাদের আওয়ামী লীগের ভেতর দুর্বলতা আছে বলেই আমাদের মার খেতে হয়েছে। নিজেদের দোষারোপ করে লাভ নাই। আপনারা একটু শক্ত হয়ে দাঁড়াতেন, দেখতাম কাকে মেরে ফেলতো। কিন্তু আপনারা সেটা পারেন নাই, বঙ্গবন্ধুর সৈনিকেরা এভাবে পিছিয়ে যাবে সেটা আমি আশা করিনাই। যা হওয়ার হয়েছে, সামনে এগিয়ে যাবার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। আগামীতে আমাদের কোন নেতাকর্মী আমাদের পারমিশন ছাড়া অন্যকোন মিটিং এ যেতে পারবে না। এটা হবে আমার প্রথম পদক্ষেপ।

উল্লেখ্য, অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বন্দরের কলাগাছিয়ায় নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পেয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধান। নির্বাচনে মাত্র ৪৫৯ ভোটে হেরে যাবার পরপরেই তার হয়ে কাজ করা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর নেমে আসে অত্যাচার এমন অভিযোগ তুলেন কাজিম। তারই প্রতিবাদে ১৩ নভেম্বর ইব্রাহিম কাশেম গণপদত্যাগের ঘোষণা দেন। ১৯ নভেম্বর ছিলো সেই ঘোষণার উপরে জরুরী সভা। আর এই সভায় নেতাকর্মীদের সকল ক্ষোভ ঝেড়ে পরে ওসমান পরিবার ও আওয়ামী লীগের ভেতরে থাকা সুবিধাভোগীদের উপরে।

নির্বাচনের শুরু থেকেই কলাগাছিয়ায় কাজিম উদ্দিনের বিরোধীতা করে আসছিলেন সেলিম ওসমান। দেলোয়ার প্রধানকে সমর্থন দিয়ে প্রকাশ্যে ভোটও চেয়েছিলেন তিনি। এনিয়ে গত ২৮ অক্টোবর সাংসদ সেলিম ওসমান বলেন, আমার সাথে ৩ জন মানুষ কাজ করেছেন। একজন মুকুল, আরেকজন আমার বন্ধু প্রয়াত আবু জাহের সাহেব, আরেকজন বিশিষ্ট নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান (এম এ রশিদ)। উনি আজ এখানে নেই, উনি কলাগাইচ্ছায় (কলাগাছিয়া ইউনিয়ন) গাঞ্জার নৌকা তালগাছে উঠাইতে গেছেন। উনার বুঝা উচিৎ এইটারে (নৌকার প্রার্থী কাজিম উদ্দিন) আজকে চেয়ারম্যান বানালে কয়েকদিন পরেই থাকবে না। কোন লুটেরাকে চেয়ারম্যান বানায়া আপনার কোন লাভ হবে না। গাঞ্জার নৌকা কখনও তালগাছ দিয়ে উঠবে না। আমি বহু আগেই আমার মানুষ আমি চেয়েছি, জনগন ও আল্লাহর কাছে চেয়েছি। কলাগাছিয়ায় আমার মানুষ লাঙ্গল নিয়ে দাঁড়িয়েছে দেলোয়ার হোসেন। আমি আপনাদের কাছে তাদের জন্য দোয়া চাই। একজন সংসদ নির্বাচনের কথা বলতে পারে না। কিন্তু কলাগাছিয়ায় যদি উন্নয়ন চান তাহলে দেলোয়ারকে নিয়ে যেই উন্নয়ন অসমাপ্ত আছে সেগুলো দ্রুত সমাপ্ত করা হবে। তাই আল্লাহর কাছে প্রার্থনা আমি দেলোয়ারকে চাই।

তার এই কথা মতই শেষ পর্যন্ত জয় পেয়েছে দেলোয়ার প্রধান। কিন্তু হেরে যাবার পরপরেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা ও লুটপাট মেনে নিতে পারেননি তারা। কারন সাংসদ সেলিম ওসমানকে বন্দরে সমর্থন দিয়েছিলেন তারাই। অথচ সেই সেলিম ওসমানের আশকারা পেয়ে যখন দেলোয়ার প্রধানের অনুসারীরা তাদের উপর হামলা চালায় তা কোনভাবেই মেনে নিতে পারেননি কর্মীরা। আর তাই শুক্রবারের জরুরী সভায় সকল ক্ষোভ উঠেছে ওসমান পরিবারের উপরেই।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ