মানুষের দুয়ারে তৈমুর

- Advertisement -

প্রতিদিনকার মতই পথে ঘাটে ঘুরে ঘুরে ভোটারদের কাছে দোয়া ও ভালোবাসা চাইছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। শনিবার বিকালে শহরের বালুরমাঠ এলাকায় গণমাধ্যমের সামনে তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, আমি শুধু বিএনপির প্রার্থী না, ব্যক্তি তৈমুরের উপর সব দলের মতের লোকজনের সমর্থন রয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি।

সম্মিলিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, আলোচনা চলছে। অচীরেই সবকিছু পরিস্কার হয়ে যাবে। আপনারা দেখতে পাবেন। তিনি বলেন, ২০১১ সালে আমি একটি দলের হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। এজন্য দলের সিদ্ধান্ত মেনে আমাকে সরে আসতে হয়েছিলো। কিন্তু এবার আমার নিয়ন্ত্রণ আমার কাছে, নারায়ণগঞ্জের জনগনের কাছে। দলমত নির্বিশেষে সবাই আমার সাথে আছে। তাই নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার কোন সম্ভাবনাই নেই।

অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার এসময় নৌকার মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, সরকারীদলের প্রার্থী আচরন বিধি মানছেনা। এব্যাপারে আমি জেলা নির্বাচন অফিসার মতিয়ুর রহমানকে মৌখিকভাবে জানিয়েছি। তিনি বলেছেন বিষয়টি দেখছেন। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ দেখতে পাইনি। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির উদ্যোগে বিজয় র‌্যালী হয়েছে।

সেখানে ২০ হাজার নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলো। র‌্যালী শুরুর আগে আমাকে নির্বাচন অফিস থেকে ফোন করে বিজয় র‌্যালীতে যেতে বাধা দেয়া হয়েছে। আমি বলেছি, মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মধ্যদিয়ে আমাদের স্বাধীণতা অর্জন। সেই বিজয় র‌্যালীতে আমি যেতে পারবোনা কেন? তখন আমাকে বলা হয়, গেলে আচরন বিধি লংঘন হবে। শেষ পর্যন্ত আমি যাইনি। আইন মেনেছি। কিন্তু সরকারদলীয় প্রার্থী মার্কা দেয়ার আগেই ব্যানারে নৌকা লাগিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছে।

আমি নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচনে সংশ্লিষ্ঠ সকলকে বলতে চাই কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব করার চেষ্টা করবেন না। তাহলে নারায়ণগঞ্জের জনগনকে নিয়ে সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে। তৈমূর আলম খন্দকার আরও বলেন, বিগত সময়ে নাগরিক অধিকার বঞ্চিত হয়েছে নগরবাসী । আমি নির্বাচিত হলে সেই অধিকার ফিরিয়ে দেবো। নারায়ণগঞ্জে মশা থাকবে না, যানজট থাকবে না, ৫মিনিটের বৃষ্টিতে শহর তলিয়ে যাবে না, নগর জুড়ে ময়লার ভাগাড় থাকবে না। সকল নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করা হবে।

আমি দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জবাসীর সুখে-দুখে পাশে আছি। এই সিটি কর্পোরেশন ২০০২ সালে সর্বপ্রথম আমি প্রস্তাবনা দিয়েছিলাম। আমি যখন বিআরটিসির চেয়ারম্যান ছিলাম তখন সরকারী গাড়ী বলতে ভাঙ্গাচুড়া ছেড়া সিটে বসে মানুষ চলাচল করতো। আমি সুইডেন থেকে ভলভো বাস এনেছি। বিলাসবহুল গাড়ী সরকারীভাবে আমিই আমদানীর ব্যাবস্থা করেছিলাম।

রাজধানীবাসী সেই বাসে চড়ে বিআরটিসির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনকেও আধুনিক করতে যা যা প্রয়োজন করবো। তিনি বলেন, শুধু দোকান আর বিল্ডিং করে বিক্রি সিটি কর্পোরেশনের কাজ না। নগরবাসীর ভোটে মেয়র নির্বাচিত হলে প্রতিটি ওয়ার্ডে খেলার মাঠ, পাঠাগার, বয়স্কদের জন্য চিত্তবিনোদনের ব্যবস্থা করবো। যুব সমাজকে মাদক, সন্ত্রাস থেকে খেলার মাঠে, পড়ালেখায় ফিরিয়ে আনবো। আমি নারায়ণগঞ্জের রিক্সা চালক থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রমিক ও পেশাজীবীদের নিয়ে সংগঠন করেছি নেতৃত্ব দিয়েছি।

নগরবাসী আমাকে চিনে। এবার আমি কোন দলের প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছি না, জনগনের প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছি। নারায়ণগঞ্জবাসী আমার সাথে আছে। কোন অপশক্তি নির্বাচন বানচাল বা কারচুপির চেষ্টা করলে সবাইকে নিয়ে প্রতিহত করবো। আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবো। সুষ্ঠু নির্বাচন আদায় করেই ছাড়বো।

এসময় তৈমুরকে কাছে পেয়ে উচ্ছ্বসিত ভোটাররাও তুলে ধরছেন তাদের নানা আশা আকাঙ্ক্ষার কথা। শনিবার ভোর থেকেই শহরের ঈদগাহ ময়দান থেকে দলীয় কয়েকজন নেতাকর্মী নিয়ে ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় শুরু করেন তিনি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page