যে কারণে বর্জন

- Advertisement -

শামীম ওসমান। নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে তিনি হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হিসেবে খ্যাত। যার একটি ঘোষনায় অল্প সময়ের মধ্যে লাখো নেতা-কর্মী রাজপথে জড়ো হয়। স্থানীয় আওয়ামী লীগের তৃনমূল নেতা-কর্মীদের প্রাণ এই গণমানুষের নেতা। যে কিনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা প্রশ্নে কখনো কোন আপোষ করেন না। এটা সর্বমহলে স্বীকিৃত, একটি প্রবাদ বাক্যই বলা চলে। শামীম ওসমান মানেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অবিচল এক যোদ্ধা। স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির কাছে এক আতংকের নাম। শামীম ওসমানকে ঘিরে রাজনৈতিক মহলে যেমন ব্যাপক আলোচনা রয়েছে, তেমনি দলের ভেতরেও একটি অংশ সর্বদা শামীম ওসমানের এই জনপ্রিয়তায় প্রতিহিংসার বশবর্তি হয়ে নানা অপতৎপরতায় লিপ্ত থাকেন বিভিন্ন সময়।

এদিকে আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে তৈরী হয়েছে নানা আলোচনা। বিশেষকরে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সভায় সেলিনা হায়াৎ আইভীকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার পর থেকে এক প্রকার নিশ্চুপ হয়ে আছেন প্রভাবশালী নেতা শামীম ওসমান। তফসিল ঘোষনার পর ২০ ডিসেম্বর ঢাকায় জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের মতবিনিময় সভায় যাননি তিনি। এরপর থেকে আলোচনার ঢালপালা বিস্তার হতে থাকে।

সর্বশেষ ২৪ ডিসেম্বর নগরীর শেখ রাসেল পার্কে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীকে নিয়ে আয়োজিত বিজয় সমাবেশেও দেখা যায়নি জনপ্রিয় এমপি শামীম ওসমানকে। কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতার অনুরোধ স্বত্তেও শেষ পর্যন্ত সমাবেশে উপস্থিত হওয়ার অনুরোধ সবিনয়ে নাকচ করে দেন তিনি। ফলে এনিয়ে রাজনৈতিক মহলে দেখা দিয়েছে নানা আলোচনা। শামীম ওসমান বিহিন বিজয় সমাবেশের সফলতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। শেষ পর্যন্ত তাই হয়েছে।

বিজয় সমাবেশে সিটি কর্পোরেশন এলাকার নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি যা ছিলো তা হতাশাব্যঞ্জক। নগরীর বাইরে রুপগঞ্জ, আড়াইহাজার, ফতুল্লা থেকে নেতা-কর্মী আসার পরও কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে বিজয় সমাবেশে লোকসমাগম যা হয়েছে তাতে খোদ কেন্দ্রীয় নেতারাই হতাশা প্রকাশ করেছেন। আশানুরুপ লোক সমাগম না হওয়ায় প্রত্যেকেই তাদের বক্তব্য সংক্ষিপ্ত করেছেন। এতে বোঝা যায় এতো ঢাক ঢোল পিটিয়েও আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে বিজয় সমাবেশ এক প্রকার ফ্লপই হয়েছে।
এদিকে নেত্রীর প্রশ্নে আপোষহীন শামীম ওসমানের এহেন আচরণে কেউ কেউ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও ব্যক্ত করেছেন। যেখানে খোদ প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেলিনা হায়াৎ আইভীকে প্রার্থী ঘোষনা করেছেন, সেখানে শামীম ওসমান না আসায় নানা প্রশ্নের উদ্রেক হচ্ছে রাজনৈতিক মহলে।

তবে, শামীম ওসমান ঘনিষ্ট একাধিক নেতৃবৃন্দের কাছে জানতে চাইলে তারা পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, কেন আসবে শামীম ওসমান? আপনার মা-বাবাকে কেউ অপমান করলে আপনি কি করতেন? যার চেতনায় মহান মুক্তিযুদ্ধ সেই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কবর অবমাননা চোখের সামনে দেখে বুকচাপা কান্না ছাড়া আর কিছুই করতে পারেনি একজন সন্তান। এরচেয়ে বড় কষ্ট আর কি থাকতে পারে একজন সন্তানের কাছে।

সারা বিশ্বে বাঙ্গালী জাতির গর্ব বঙ্গবন্ধু। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ঘনিষ্ঠ সহচর যারা ছিলেন, তাদের নিয়ে গর্ব করেন সহচরদের পরিবার ও নিজ জেলার বাসিন্দারা। ভাষা আন্দোলন ও বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রামের ইতিহাসের পাতায় পাতায় যাদের নাম জ্বলজ্বল করছে, বঙ্গবন্ধু নিজ জীবনীতে যাদের নাম উল্লেখ করেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম নারায়ণগঞ্জের ওসমান পরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্য। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম থেকে শুরু করে, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জের ওসমান পরিবার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছেন।

দেশের বীর সূর্য সন্তানদের সরকার ও জাতি নানা ভাবে স্মরণীয় করেন। নানা পদকে ভূষিত করেন। আওয়ামী সরকার দেশ ও জাতির জন্য স্মরণীয় অবদান রাখায় আরও বেশি সম্মানীত করেন। প্রয়াত এ কে এম শামসুজ্জোহা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে সংগঠক ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ সরকার তাকে মরণোত্তর স্বাধীনতা পদক দিয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও দলটি সাবেক সংসদ সদস্য ছিলেন। মা নাগিনা জোহাও ছিলেন ভাষা সৈনিক। আর বড় ভাই নাসিম ওসমান ছিলেন ৩ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য, মুক্তিযুদ্ধা, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রতিশোধের জন্য গঠিত তৎকালীন কাদের বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড। এই পরিবারের অপর দুই সদস্য একেএম শামীম ওসমান ৩বারের ও একেএম সেলিম ওসমান দুইবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য।

গত ৯ আগষ্ট আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের বাবা প্রয়াত একেএম শামসুজ্জোহা, মা নাগিনা জোহা ও ভাই নাসিম ওসমাবসহ তার স্বজনদের কবরে শ্মশানের মাটি দিয়ে ঢেকে ফেলা হয়েছে। একই সাথে আরও কিছু মুক্তিযুদ্ধার কবরও শ্মশানের মাটি দিয়ে ঢেকে ফেলা হয়। সে সময় শামীম ওসমান কান্না জড়িত কন্ঠে একটি পক্ষকে ইঙ্গিত করে গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘শ্মশানের মাটি দিয়ে কবর ঢেকে দেওয়া কোন মানুষের কাজ না, ইবলিশ শয়তানের কাজ হতে পারে’।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বলেন, ২০০৩ সালে নিউজিল্যান্ড থেকে এসে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হন সেলিনা হায়াৎ আইভী। এরআগে আলী আহাম্মদ চুনকার প্রতি গভীর শ্রদ্ধাবোধ থেকেই শামীম ওসমান এমপি থাকাকালে সর্বপ্রথম শহরের দেওভোগ এলাকার গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়কের নামকরণ করেন চুনকা চাচার নামে। ওই সড়কের কাজ দেখভালের সময় চুনকা চাচার স্ত্রী তাকে নিজহাতে রান্না করে খাইয়েছেন।

সেই চুনকা চাচার মেয়ের প্রথম নির্বাচনে প্রবাসে থাকা শামীম ওসমানের নির্দেশে তার বিশাল কর্মী বাহিনী মনেপ্রাণে কাজ করে তার জন্য। ওই সময়ে শামীম ওসমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের দাবিতে ঢাকায় সমাবেশে ফ্যাষ্টুন বহন করতে দেখা গিয়েছিলো চেয়ারম্যান আইভীকে। ২০১১ সালে শেখ হাসিনা সরকার নারায়ণগঞ্জ পৌরসভাকে সিটি কর্পোরেশন ঘোষনা করেন। প্রথম নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হন শামীম ওসমান। ওই নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হন আইভী। শামীম ওসমানকে পরাজিত করতে খোদ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনের মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে তাদের প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকারকে বসিয়ে দেন।

সেই নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর থেকেই শামীম ওসমানের প্রকাশ্য বিরোধীতায় নামেন আইভী। দলের একটি অংশের প্ররোচনায় বিভিন্ন সময়ে শামীম ওসমানকে নিয়ে বেঁফাস মন্তব্য করার পাশাপাশি সরকার ও প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়েও মন্তব্য করতে পিছপা হয়নি সে। এনিয়ে নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও দলের স্বার্থে সবাইকে চুপ থাকার নির্দেশ দিয়ে আসছেন শামীম ওসমান। তবে শামীম-আইভীর দ্ব›দ্ব শুধু নারায়ণগঞ্জই নয়, সারাদেশেই আলোচিত। ২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুপক্ষকে ডেকে নিয়ে বিরোধ মিমাংসা করে দিলে শামীম ওসমান নৌকার পক্ষে মাঠে নামেন। ঐ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হন আইভী।

নির্বাচনে জয়ের পরও নানাভাবে শামীম ওসমানকে টপকে যাওয়ার বাসনায় নানা বে-ফাঁস মন্তব্য ও অপপ্রচার চালাতে থাকেন। এসব নিয়ে কখনো মাথা ঘামাননি শামীম ওসমান। তবে সব ক্ষেত্রেই শামীম ওসমানকে টার্গেট করে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টায় লিপ্ত থাকেন আইভী। শামীম ওসমানের দাদার নামে ষ্টেডিয়াম আছে তাকেও তার বাবার নামে ষ্টেডিয়াম করতে হবে। সেখানে অন্য মানুষের জায়গা দখল করে করতে গেলে বাঁধা আসে। এখানেও শামীম ওসমানের দোষ। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দেবোত্তর সম্পত্তি তার পরিবারের লোকজন দখল করে। এনিয়ে হিন্দুরা প্রতিবাদ করলে সেটাও শামীম ওসমানের দোষ। শামীম ওসমানের সাথে বিরোধ করে করে ফেমাস হওয়ার লোভ পেয়ে বসেছে তার। একারণে সব কিছুতেই তাকে টানতে হবে এটা আইভীর অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে।

তারা আরও জানায়, আইভীর শ্রদ্বেয় মা মমতাজ বেগমের মৃত্যুতে শোক জানাতে তার বাসায় যান শামীম ওসমান। মাথায় হাত বুলিয়ে শান্তনা দেন। সেই সংবাদ সর্বমহলে ব্যাপক আলোচিত ও প্রশংসা কুড়ায়। এর কিছুদিন পরই মাসদাইর কবরস্থানে মা-বাবার কবর জিয়ারত করতে গিয়ে সবচে বড় হৃদয়ভাঙ্গার ঘটনা ঘটে যায় প্রভাবশালী এই নেতার জীবনে। রাজনীতি করতে গিয়ে নানা ঝড়-ঝাপ্টা, উথ¥ান-পতনের মধ্যদিয়ে তৃতীয় বারের মতো সংসদ সদস্য হওয়া শামীম ওসমান শিশুর মতো ঢুকরে ঢুকরে কেঁদেছেন সেইদিন।

যখন তিনি দেখেন তার পিতা স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক একেএম সামছুজ্জোহা এবং মা ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহার কবরে পাশ^বর্তি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শ্মশান থেকে মাটি এনে কবরের উপর ঢেকে দেয়া হয়েছে। শুধু পিতা-মাতা নয়, আশপাশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কবরেরও একই হাল। কার কবর কোনটা চেনা যায়না। সেদিন শামীম ওসমান সাংবাদিকদের ডেকে সরেজমিনে কবরগুলো দেখিয়ে এর প্রতিকার চেয়েছিলেন।

তিনি কাউকে দোষারোপ না করে বলেছিলেন এটা কোন মানুষের কাজ হতে পারেনা। ইবলিশের কাজ এগুলা। তিনি এও বলেন, মেয়র আইভীর মা কিছুদিন আগে মারা গেছেন। সে শোকে আছে, হয়তো কিছুই জানেনা। পরদিন মেয়র আইভী নিজে পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে শামীম ওসমানের ভাই প্রয়াত এমপি নাসিম ওসমান পরিবার এ মাটি দিয়েছে বলে দাবি করেন, একপর্যায়ে এগুলো শ্মশানের মাটি না বলেও দাবি করেন। আশপাশের লোকজন এবং সিটি কর্পোরেশনের যে ঠিকাদার মাটি এনেছে সেও নিজে বলেছেন এগুলো শ্মশানের পুকুরের মাটি। সেটিকে অস্বীকার করে আরও একটি আঘাত দিয়েছে। কোন ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো এ ধরনের কর্মকান্ড কোন সুস্থ্য মানুষ মেনে নিতে পারে?

তারপরও সামান্য সহানুভুতি পাননি কোন মহল থেকে। শান্তনার বানী না শুনিয়ে তার আবেগ নিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটার চেষ্টা করে ঐমহলটি। বিভিন্ন সময়ে শামীম ওসমান সম্পর্কে নানা বেÑফাস মন্তব্য, দলীয় নেতা-কর্মীদের নামে একের পর এক মামলাতেও এতোটা কষ্ট পাননি, এ ঘটনায় যতোটা কষ্ট পেয়েছেন। তারপরও কিভাবে তিনি সেই মহিলার পক্ষে নির্বাচনে আসেন? যেহেতু তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচনে আসা আইনী বাঁধা রয়েছে। একারণে তিনি দূরে থাকতেই পারেন। তবে জীবনের সবচে বড় কষ্ট বুকে চাপা দিয়ে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন তিনি। এর বাইরে কিছুই নয়। দলের প্রতি নেত্রীর প্রতি অবিচল এক যোদ্ধা যার নিজের দল স্বাধীনতার স্বপক্ষের দল ক্ষমতায়। তবুও তিনি নিশ্চুপ।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page