পুলিশের যোগসাজশে মহাসড়ক দখলে

ফাঁড়ি পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের যোগসাজশে ঢাকা সিলেট মহাসড়কের ভুলতা গাউছিয়া এলাকায় দুই পাশের তিনটি করে লেন দখল করে বসানো হয়েছে হকার। রাস্তার দিকে তাকালে মন হবে এটা মহাসড়ক না, ভুলতার কাঁচাবাজার।সড়কের উপর সহস্রাধিক কাঁচাবাজার বসিয়ে গাড়ি চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে রেখেছে ফুটপাত ব্যবসায়ীরা। একদিকে সড়কের উপর বসানো হয় হাজার খানেক ভ্যানগাড়ি। আবার অন্যদিকে রাস্তার উপর বসানো হচ্ছে কাঁচাবাজারের পসরা। হকাররা ফুটপাতের উপর ছাতা টাংগিয়ে রাখায় সারাদিনই লেগে থাকে দীর্ঘ যানজট। যানজটে ভুগান্তির স্বিকার হচ্ছে পথচারীসহ যানজটে আটকে পড়া পরিবহন যাত্রীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় কবির, আক্তার, সুজন মিলে মহাসড়কের একাংশ দখল করে বসিয়েছে বেশ কয়েকটি দোকানতারা না কি নিয়মিত ভুলতা ফাঁড়ির পুলিশ রুবেলকে টাকা দিয়ে যাচ্ছে। ভুলতা ফাঁড়ির লোক দেখানো হকার উচ্ছেদ নিয়ে জনমনে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা। এলাকাবাসী বলেন মহাসড়কের ফুটপাত নিয়ে প্রতিদিন চলে চোর পুলিশের খেলা। ঢাকা সিলেট মহাসড়কের ভুলতা এলাকায় ফাড়িঁ পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ থাকার পরও ফুটপাত দখলমুক্ত করতে পারেনি কেন, এমনই অভিযোগ উঠছে জনমনে। সাধারণ মানুষের প্রশ্ন প্রশাসনের পক্ষ থেকে কি মহাসড়কে কাঁচাবাজার ও ফুটপাত বসাতে হকারদের অলিখিত কোন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে?

ফুটপাত নিয়ে হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ফুটপাত দখলমুক্ত করার জন্য সকাল বিকাল চেষ্টা করে যাচ্ছি কিন্তু ফাঁড়িতে পুলিশ পর্যাপ্ত না থাকায় মহাসড়কের ফুটপাত দখলমুক্ত করা সম্ভব হচ্ছেনা। ভুলতা ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান বলেন মহাসড়ক ফুটপাতমুক্ত করতে হাইওয়ে পুলিশের দায়িত্ব। আমরা সব সময় মহাসড়ক ফুটপাতমুক্ত করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের ভিআইপি নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। তার পরও ৯৯৯ নাম্বারে কল আসলে সেখানে যেতে হয়। পরিস্কারের কিছু সময়ের মধ্যেই হকাররা আবার দখল করে ফেলে। ব্যাপারটা আসলেই চোর পুলিশের খেলার মতো হয়েছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ হাইওয়ের পুলিশ দিনে দুই একবার দেখা যায়, পুলিশ যাওয়ার সাথে সাথে হকাররা মহাসড়ক দখল করে নেয়।সচেতনমহল বলেন কাঁচাবাজার বসিয়ে লাভবান হচ্ছে ফাঁড়ির কতিপয় পুলিশ আর সরকার দলীয় কিছু কথিত নেতারা। সূত্র জানায় হকারদের কাছ থেকে প্রতিদিন প্রায় লাখ টাকা চাঁদা আদায় করে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। ১৮ মে বুধবার ফাঁড়ির ঠিক সামনে মহাসড়কের কাঁচাবাজারে ছাতি টানিয়ে ব্যবসায়ীদের বেচাকেনা করতে দেখা যায়।সব মিলে আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি হয়েছে বলে মনে করেন সচেতনমহল। নানা সমস্যায় জর্জরিত এলাকাটি যেন দেখার কেউ নেই, ফাঁড়ি পুলিশের নিস্কৃয়তায় পুলিশ বাহিনীর সুনাম ও অর্জন নষ্ট হচ্ছে বলে মনে করেন অভিজ্ঞমহল। উর্ধতন কতৃপক্ষের দৃষ্টি একান্তভাবে কামনা করেন এলাকার সচেতনমহল।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ