একরাতে ৮ বাড়িতে ডাকাতি, গ্রেফতার ৯

- Advertisement -

ডাকাতদের অভয়াশ্রম হয়ে উঠেছে নারায়গঞ্জ।চলতি মাসেই জেলার আড়াইহাজার থানা এলাকায় বেশ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাতে ১২ সদস্যের একটি সশস্ত্র ডাকাত দল হাইজাদী ইউনিয়নে দুই গ্রামের আট বাড়িতে ডাকাতি করে। ওই ঘটনায় জড়িত ৮ সদস্যকে গেস্খফতার করেছে র‌্যাপিড এ্যাকমন ব্যাটালিয়ন-১১। মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে অভিযান পরিচালনা করে নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজারের হাইজাদী ইউনিয়নের সরাবদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডাকাতির প্রস্তুতি গ্রহনের সময় ধারালো অস্ত্র ও ককটেলসহ সংঘবদ্ধ আন্তঃ জেলা ডাকাত চক্র কাশেম বাহিনীর ৯ জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এর আগে ডাকাতির ঘটনায় তাদের মারপিটে ৫ জন আহত হয়। ওই সময় ডাকাতদল স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা এবং অন্যান্য মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়। ডাকাতি সংক্রান্ত ঘটনাগুলোর প্রেক্ষিতে ওই এলাকাসহ পুরো আড়াইহাজারের সাধারণ জনগণের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি করে। গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলেন- আরাইহাজারের গোপালদীর মৃত আবু তালেবের ছেলে ডাকাত সর্দার মোঃ আবুল কাশেম (৩৩), ব্রাহ্মনবাড়িয়ার বাঞ্চারামপুরের মৃত রীল মিয়ার ছেলে মোঃ বাবু (২৬), আড়াইহাজারের কাজীপাড়ার মো. আ. হামিদের ছেলে মোঃ ওমর ফারুক (২৭), আরাইহাজারের গোপালদীর মৃত মোস্তফার ছেলে মোঃ লিটন (২৪), আড়াইহাজারের মরুয়াদীর নূর মোহাম্মদের ছেলে মোঃ সবুজ (২৮), নরসিংদির মাধবদির চশড়িয়া এলাকার মৃত রশিদ মিয়ার ছেলে মোঃ দেলোয়ার হোসেন (২৮), আড়াইহাজারের জাকুরদিয়ার মো. আলমের ছেলে রুমন ভূইয়া (২৫), আরাইহাজারের গোপালদীর মো. আলমের ছেলে মোঃ আশরাফুল (১৯) ও আরাইহাজারের কলাগাছিয়ার আ. করিমের ছেলে মোঃ জুয়েল রানা (২২)।অভিযানে গ্রেফতারকৃত আসামীদের হেফাজতে ৭টি ককটেল, ৩টি ছোড়া, ১টি কাটার, ২টি কোরাবারি, ৫টি টেটা, ১৩টি টর্চ লাইট, ১টি রূপার চেইন, নগদ ২৪ হাজার ৯শত টাকা, ৯টি মোবাইল উদ্ধার করা হয়। এর আগে তারা গত ১৯ সেপ্টেম্বর হাইজাদী ইউনিয়নের সরাবদী আতাদী চকের বাড়ি ও উদয়দী গ্রামের মোট ৮টি বাড়িতে ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত ছিল বলে স্বীকারক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ঘটনার পর থেকেই র‌্যাব-১১ এর গোয়েন্দা দল ও র‌্যাব সদর দপ্তর ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের সহায়তায় ছায়া তদন্ত করে। তথ্য উপাত্ত নিশ্চিত হওয়ার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ২০ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার বরতে সক্ষম হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।র‌্যাব জানায়, গ্রেফতারকৃত আসামীরা সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছেন। এই সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রটি এর আগেও পরষ্পর যোগসাজশে পূর্ব-পরিকল্পনামাফিক দীর্ঘদিন ধরে আড়াইহাজার থানা এলাকায় বিভিন্ন বাড়িতে এবং আর্থিকভাবে সচ্ছল পরিবারগুলোকে টার্গেট করে পরিকল্পিতভাবে ডাকাতি কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। গভীর রাতে আড়াইহাজারের বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে অতর্কিতভাবে হাজির হয়ে ধারালো অস্ত্র প্রদর্শন করে এবং ককটেল বিস্ফোরণের মাধ্যমে জনমনে ভয়ভীতি ও আতঙ্ক সৃষ্টি করে সাধারণ লোকজনদের জিম্মি করে ডাকাতি করে সিএনজি ও মোটরসাইকেল যোগে ঘটনাস্থল হতে পালিয়ে যায়। এই ডাকাত দলের সদস্যরা ডাকাতি সময় জনসাধারণকে মারধর ও ছুরিকাঘাতসহ গুরুত্বর জখম করে থাকে। দীর্ঘদিন ধরে তারা নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানা এলাকায় বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে তাদের অন্যান্য সহযোগীদের নিয়ে ডাকাতি করে আসছিল। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ