মেঘনায় ডাকাতের কবলেবর যাত্রীর ট্রলার, অস্ত্রের মুখে সর্বস্ব লুট

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ এলাকায় মেঘনা নদীতে ডাকাতের কবলে পরে সর্বস্ব হারিয়েছে একটি বরযাত্রীবাহী ট্রলার। ডাকাত দল নববধু ও বরের গলায় চাপাতি ঠেকিয়ে সবকছিু লুটে নেয়। এতে অন্তত ত্রিশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ভুক্তভোগী মালেশিয়া প্রবাসী বর নুর আলমের।সোমবার (২৭ জুন) বিকেলে মেঘনা নদীতে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাতরা ট্রলারের থাকা যাত্রীদের পিটিয়ে ও কুপিয়ে তাদের সাথে থাকা নগদ, টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণলাংকাসহ ৩০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এসময় সেই ট্রলারে থাকা ১০ যাত্রী আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

বরের পরিবারের সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৪ জুন) মেঘনা থানার আবুল কাসেমের মেয়ে শারমিনকে বিয়ে করেন সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের চরগোয়ালদী গ্রামের মোতালেবের ছেলে নুরে আলম। তিনি একজন মালেশিয়া প্রবাসী। বিয়ের পর সোমবার নুর আলম সহ ৩০-৩৫ জন তার শ^শুর বাড়িতে তার বউকে আনতে যায়। ওই দিন ফেরার পথে মেঘনা র্শিপাঞ্চলের প্রতাবেরচর এলাকা পাড়ি দেওয়ার সময় বরযাত্রীবাহী ট্রলারে ডাকাতদল হানা দেয়। এসময় ১০/১৫ পিস্তল, চাপাতি ও লোহার রড নিয়ে হামলা করে ট্রলারে থাকা সকলের ওপর। একপর্যায়ে নববধু ও বরের গলায় চাপাতি ধরে জিম্মি করে ফেলেন তারা। এসময় ট্রলারে থাকা সকলকে মারধর করে ও ভয়ভীতি দেখিয়ে স্বর্ণালংকার, নগদ ১লাখ টাকা, মোবাইলসহ প্রায় ৩০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে ওই ডাকাতরা। ডাকাতদের মারধরে নুরে আলম, আব্দুল বাতেন, জুবায়ের, হাফেজ আহাম্মদ, আবু ছালেহ, শাহপরাণ, সেলিম, বিল্লাল, নাছরিন, নুরজাহান, খোদেজাসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

আহতদের উদ্ধার করে সোনারগাঁয়ের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে বলে জানায় ভুক্তভোগী নুর আলমের পরিবারের একাধিক সদস্য। নারায়ণগঞ্জ নৌ পুলিশের পুলিশ সুপার মীনা মাহমুদা জানান, মেঘনায় ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি, তবে এই ব্যাপারে কেউ অভিযোগ না করায় নিশ্চিত করে কিছুই বলতে পারছি না। খোঁজ খবর নিচ্ছি, অভিযোগ পেলে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ