ক্ষমতা আঁকড়ে ধরতে বেসামাল

কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে আইভীর অহং!

গুনে গুনে ভোটের বাকি মাত্র ৬ দিন। দিন দিন সিটি নির্বাচনকে ঘিরে তৈরী হচ্ছে নানা উত্তেজনাকর পরিস্থিতি। বিগত দিনে প্রার্থীরা সৌহার্দ্যপূর্ণ প্রচার প্রচারণা চালালেও ক্রমেই তা দৃশ্যপট পাল্টে ভিন্ন দিকে রূপ নিচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে যদিও মেয়র পদে ভোটের লড়াইয়ে রয়েছে ৬ প্রার্থী, তবে ভোটারদের আলোচনায় উত্তেজনার তাপ বাড়াচ্ছে ২ মেয়র প্রার্থী। নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাড়িয়েছে, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতা, নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান।

এর আগে ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর নির্বাচনে শামীম-আইভী নিয়ে বিরোধের রেশ নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে এমন শংসয়ে খোদ মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ২জনকে নিয়ে বসে বিরোধ নিস্পত্তি করেদেন। পরে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান তাকে নৌকা খোচিত দু’টি শাড়ি উপহার পাঠান ছোট বোন আইভীনর জন্য। আইভীর হয়ে ভোট চাইতে সতঃফূর্তভাবে মাঠে নামেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের (শামীম ওসমান অনুসারী) বৃহৎ অংশ। বিগত নির্বাচনে যা ছিল চোখে পড়ার মত। সেই শামীম ওসমানের অনুগামীরা তার দিকে চেয়ে ও প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মাঠে নেমে ব্যপক ভোটের ব্যবধানে ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে নৌকার জয় ছিনিয়ে আনেন।

তবে জয়ী হয়ে মেয়র আইভী তার বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে, বিরোধ নিস্পোত্তি না করে দলীয় বিভাজনের দেয়ালের ভীত গড়েছেন আরোও পোক্ত আর শক্ত করে। দল ও নেতাকর্মীদের প্রশ্নবিদ্ধ করে নানান সময়ে নানান ইস্যুতে বেফাঁস মন্তব্য আর বিষোদাগার করেছেন। সাচ্ছন্দের সাথেই হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছেন, তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের। নির্বাচনের আগে তার রূপ শান্ত ও সাবলীল থাকলেও নির্বাচন পরবর্তীতে তা পাল্টে ভয়বহ রূপ নিয়েছে, শুধু নিজ দল ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কটাক্ষ করতে। দলের নেতাকর্মীদের মনে দাগা দিয়েছে সরকার ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্যকারী বাম নেতাদের সঙ্গে আতাত করা ও তাদের মঞ্চে উপস্থিত হয়ে বিষোদাগার কর্মে প্রশ্রয় দেয়ার বিষয়টিও। ব্যক্তি অহং জিইয়ে রেখেছে স্ব-ইচ্ছায়। আর এখন সেই অহংই তার নির্বাচনের মাঠে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এবারও সেই চিরচেনা রূপে ফিরেছেন আইভী, গত শনিবার (০৮ জানুয়ারী) নবর্িাচনী প্রচারণা কালে গণমাধ্যম কর্মীদের তিনি বলেন, ‘তৈমূর আলম খন্দকার বিএনপির প্রার্থী নন, জনতার প্রার্থীও নন। তিনি গড ফাদার শামীম ওসমানের প্রার্থী।’ গত শুক্রবার (০৭ জানুয়ারী) পর্যন্ত শামীম ওসমান ব্রাদার (ভাই) থকলেও স্বার্থে আঘাত লাগায় ক্ষনেই তিনি হয়েছেন হয়ে গেছেন ফাদার (গড ফাদার)।

এর আগে গণমাধ্যমকর্মীরা নানা ভাবে শামীম ওসমান প্রসংগে প্রশ্ন করলে আইভী বলেন, ‘তিনিও নৌকার রাজনীতি করেন, আমিও নৌকার রাজনীতি করি। আমাদের মধ্যে রাজনীতিতে প্রতিযোগীতা আছে, তবে কোন বিরোধ নেই। যেহেতু উনিও নৌকার লোক আমিও নৌকার লোক, আমাদের শেষ ঠিকানাও এক যায়গায়। উনি সংসদ সদস্য হওয়ায় স্ব-শরীরে আমার প্রচারণায় অংশ নিতে পারেন না, এটা আচরণ বিধির লঙ্ঘন।’

সব শেষ গত শনিবার (০৮ জানুয়ারী) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভায় শামীম ওসমান প্রসংগে আইভীর বিরোধীতার বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের সুস্পষ্ট প্রশ্নের জবাবে কন্দ্রেীয় ভাবে গঠিত নাসিক নবর্িাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক একই সুরে বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীরীগে নেই কোন বিভাজন নেই কোন বিরোধীতা। আমার পাশেই জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অন্নান্যনেতা কর্মীরা বসে আছেন। সুতরাং নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগেকোন বিভাজন নেই।’

দলের কর্মীদের কাছে তিনি কখনোই নিজেকে কর্মীবান্ধব নেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পারেননি। ফলে ফলাফল যা হবার তাই হল। সিটি নির্বাচনের তফসীল ঘোষনার পর গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর নগরীর শেখ রাসেল পার্কে বিজয় সমাবেসের আয়োজন করা হলে ঢাকা থেকে ছুঁটে আসেন এক ঝাক কেন্দ্রীয় নেতারা। তার সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগরের নেতারাও নৌকা প্রতীকের জয়ের লক্ষ্যে একাত্মতা প্রকাশ করে দলীয় বিভাজন ভুলে সেই সভায় যোগদেন। সেই জনসভায় আশানুরূপ জনসমাগম ঘটাতে পারেননি আইভী অনুগামীরা। পরে রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজর থেকে বড় ২টি মিছিল এসে সেই জনসভার ফাঁকা ময়দানের একাংশ পূর্ণ করে কেন্দ্রীয় নেতাদের মান রক্ষা করে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন পরিচালনায় কেন্দ্র থেকে গঠিত হয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্থায়ী কমিটির সদস্য এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানককে প্রধান সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক মির্যা আযমকে সদস্য সচিব করে গঠিত এই কমিটি। দলীয় প্রতীকে ডা. সেলিনা হায়াত আইভী চুড়ান্ত হওয়ার পর থেকেই নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্যরা একঝাক কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে দফায় দফায় আওয়ামী লীগের পার্টি অফিসে জেলা ও মহানগরসহ তৃণমূলের নেতাদের নিয়ে সভায় বসেন। বেশ ঘাম ঝড়িয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা নৌকা ইস্যুতে আওয়ামী লীগের উত্তরমেরূ ও দক্ষিনমেরূকে একাট্টা করেন। পরবর্তীতে গত ৪ জানুয়রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, বাহাউদ্দীন নসিম ও মির্জা আজমসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে ডা. সেলিনা হায়াত আইভির পক্ষে আব্দুল হাইকে আহ্বায়ক ও এ্যাড. আবু হাসনাত শহিদ মো. বাদলকে সদস্য সচিব করে ২৯সদস্য বিশিষ্ট জেলা নির্বাচন পরিচালনা কমিটিগঠন করা হয়।

এরপর থেকেই আইভীর হয়ে মাঠে নামেন জেলা ও মহানগর অওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ সহ সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা। তবে এতেও সন্তুষ্টি আনতে পরেননি মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। সন্তুষ্টি এনেছেন কেবল শামীম ওসমানকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে। তার এমন রাজনৈতিক প্রজ্ঞাহীন মন্তব্য নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের বড় একটি অংশের মনে আঘাত করেছে। অপর দিকে শহর জুড়ে কড়া সমালোচনায় ভাসছেন, ধলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি ঘরে পুলিশি হানার প্রসংগে। তবে কি এবার ক্ষমতা আঁকড়ে ধরতে এতোটাই বেপোরোয় হয়ে উঠেছে আইভী যে, জন সম্পৃক্ততা ঘটাতে নাপেরে প্রচার-প্রচারণায় নামাতে, নিজ দলের নেতা কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে প্রশাসনিক হয়রানী করছেন, এমন প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছেন নগরবাসীর মনে।

তবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যদি, মেয়র-এমপি এই আলাল-দুলালের খেলায় মত্ত থাকেন তবে এর ফায়দা লুফে নিবে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার এ কথা নিশ্চিত করেই বলা যায়। সাবেক মেয়র আইভী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান নিয়ে নানা বিরূপ মন্তব্য করলেও তিনি তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা আর শিষ্ঠাচার ধরে রেখে এখন পর্যন্ত কোন প্রতিক্রীয়া জনাননি। যদিও বেশ কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টাল তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, শীগ্রই তিনি এ বিষয়ে কথা বলবেন সাংবাদিকদের সঙ্গে।

এদিকে রাজনৈতিক বিশ্লেষকর মনে করছেন, শামীম ওসমান এই নির্বাচনের প্রার্থী না হলেও ভোটের মাঠে তিনি বড় নিয়ামক। নৌকার জয়ে বড় ভুমিকা রাখবে তার ভুমিকা। তবে মেয়র আইভী যে বেঁফাস মন্তব্য এর আগেও করেছেন এবং এখন আবার করছেন তা সম্পূর্ণই রাজনৈতিক শিষ্টাচার বিরোধী। এবং তার এই বেফাস মন্তব্য তাকে এবার তার পদে আবারও বহাল রাখতে অন্তরায় ভুমিকা রাখবে। যেহেতু তারা একই রাজনৈতিক মতাদর্শে বিশ্বাসী তাই, নিজেদের মধ্যে ব্যক্তি অহং জিইয়ে না রেখে তাদের একাট্টা হওয়া উচিৎ। এতে করে একদিকে যেমন তারা সমালোচনা থেকে দূরে থাকবেন, সেই সাথে নারায়ণগঞ্জবাসীর উন্নয়নের গতি ত্বরান্বীত হবে। আর যদি তা না করে, তবে এর ফায়দা লুফে নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম যে নাসিকের ক্ষমতায় আসবেন সেটা অনেকাংশেই নিশ্চিত। আর তিনি যদি ক্ষমতায় আসেন তবে শামীম-আইভী দুজনেই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ