কেন্দ্রীয় নেতাদের ‘তুচ্ছ’ করলো সেই রাব্বি

প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান সরকারকে নিয়ে চরম বিষেদাগার ও ঔদ্ধত্বপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে আসা জালিয়াতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বাম নেতা রফিউর রাব্বি এবার তুচ্ছ করলেন কেন্দ্রীয় নেতাদের। আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় জাদরেল নেতারা যেখানে দিনরাত আইভীর পক্ষে নৌকার পক্ষে পরিশ্রম করছেন , সেখানে তাদেরকেই রীতিমত অপমানজনক ভাষায় তাচ্ছিল্য দেখালেন আইভীর অন্যতম সুহৃদ রাব্বি।

একটি বেসরকারী টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাতকারে রাব্বি বলেছেন, প্রতীক ও দল মূখ্য বিষয় নয়। এখানে ভোটাররা দল ও প্রতীকের চেয়ে ব্যক্তি আইভীকেই বেছে নিবে। কে কাকে সমর্থন দিল কি দিল না, তাতে আইভীর ভোটে তেমন কোন প্রভাব পরবে না। তার পক্ষে কোন কেন্দ্রীয় নেতা আসলো কি আসলো না, নারায়ণগঞ্জের ভোটাররা এগুলো কোন বিষয় বিবেচনায় নিবে না। তবে বরাবরের মত রফিউর রাব্বির এমন বক্তব্যে কোন রেশ নেই আওয়ামীলীগের আইভীপন্থী নেতাদের।

এর আগেও বহুবার রাব্বি সরকার ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সমালোচনা করলেও সেগুলো রহস্যজনক কারণে ‘ শোনেনি, জানেন না, শুনে বলতে হবে’ টাইপ মন্তব্য করেন তারা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিরূপ মন্তব্যকারী ও সরকার ও সরকার দলের স্থানীয় নেতাকর্মীসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে কট্টর সমালোনা করে শহরে আলোচনায় আসেন রফিউর রাব্বি। সম্প্রতি তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর দলীয় প্রতীক প্রসঙ্গে বলেন, ‘নৌকা প্রতীক না পেলেই বরং আইভী বিপুল ভোটে পাশ করতেন।

অর্থাৎ আইভীর মার্কাটা যদি নৌকা না হতো, তবে আইভী ভোটটা আরোও বেশী পেত বলে আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি। তবে এখন নির্বাচনের চেহারা-চরিত্র যেমন দেখছি, আইভী যদি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না পেত তবে নৌকা প্রতীক অন্যকাউকে দেয়া হতো। আর সেক্ষেত্রে আইভীকে নিশ্চিত ভাবেই ফেল করানো হতো, এবং নৌকাকে যেকোন ভাবেই পাশ করানো হতো।

’রাব্বি বলেন, ‘আজকের বাস্তবতায় তাকে যদি নৌকা প্রতীক ছাড়া নির্বাচন করতে হতো, তবে তার লড়াইটা হতো সরকার দল ও প্রসাশনের সাথে। শুধু মাত্র জনতার ভোটে পাশ হওয়া, আজকে সাড়া দেশের বিদ্যমান নির্বাচনী চেহারা এটা বলে না।’ রাব্বির এই বক্তব্যে ক্ষমতাষীন সরকার, নির্বাচন কমিশন ও প্রসাশনকে সুস্পষ্ট ভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।যদিও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও সদ্য বিদায়ী মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সাথে রয়েছে রাব্বির বেশ সখ্যতা। সময়ে সময়ে আইভীর সাথে দেখা গেছে তার বেশ ঘনিষ্টতা।

এর আগে গত ২০১৬ সালের সিটি নির্বাচনে আইভীর সাথে তাকে নমিনেশন সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। সেবারও তিনি দলীয় প্রতীক নৌকায় নির্বাচন করে এবং বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানকে প্রায় ৮৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছিলেন। এবং এর পিছনে দলের সমর্থন ও প্রতীক বেশ জোড়ালো ভুমিকা রেখেছিল। কেন্দ্রীয় নেতাদের এমন তাচ্ছিল্য করে কথা বলায় খোদ আইভী সহ তার শিবিরের কাউকেই কোন প্রতিক্রীয়া জানাতে দেখা যায়নি।

তবে দলের না হয়েও দলের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতাদের ঘিরে তার এমন বেফাঁস মন্তব্যে দলের তৃণমূলের একাধিক নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিক্রীয়া জানিয়ে বলেন, শহরে দলের নেতাকর্মীরা দিন রাত এক করে নির্বাচনের গণসংযোগ ও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে। সেখানে শহরের কিছু লিপিষ্টিক মার্কা শুশীলরা আমাদের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে বাজে কথা বলে। সব জবাবই দেয়া হবে, তবে সময় মত। তবে দল ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে মন্তব্যকারীদের যখন দেখি জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ পদে থাকা ব্যক্তিদের সাথে একই মঞ্চের অতিথি হতে তখন আমাদেরও হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটে। জবাব দেয়া হবে, দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ