ঢাকাশনিবার , ১ অক্টোবর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ষড়যন্ত্র হচ্ছে: মির্জা আজম

আবু বকর সিদ্দিক
অক্টোবর ১, ২০২২ ৪:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম (এমপি) বলেছেন, আমাদের বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করছে তারা প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। শেখ হাসিনা বলেছেন তার এবং তার সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। আজকে শেখ হাসিনাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র ও ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে করছে স্বাধীনতা বিরোধী আপশক্তিরা।শনিবার (১ অক্টোবর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। শহরের দুই নং রেলগেইট এলাকার জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এই বর্ধিত সভার সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই। বর্ধিত সভায় আগামী ২২অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনের দিন এক দিন পিছিয়ে ২৩অক্টোবর নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। অপরদিকে বর্ধিত সভায় মির্জা আজম বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি ও মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। আজকে সকল খুনিরা ঐক্যবদ্ধ। আমরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে ষড়যন্ত্রের ঘ্রাণ পাচ্ছি। সেই ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করার জন্য শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমরা যারা আওয়ামী লীগ করি আমাদের চেতনা আসছে না। আমাদের চেতনা জাগ্রত করতে হবে। বাংলাদেশে আগামী যে নির্বাচন হবে সেই নির্বাচনকে ঘিরে অনেক ষড়যন্ত্র প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। আমাদের জাগ্রত হতে হবে। মানুষের কাছে ভোট চাইতে হবে। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে মির্জা আজম বলেন, এই বাংলাদেশে জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় আসার পর জয় বাংলা শ্লোগান নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। গোলাম আজমকে নাগরিকত্ব দিয়ে জামায়াতে ইসলামীর মতো একটি দলকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিল। হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সেনা অফিসারকে হত্যা করেছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো সম্মান ছিল না। শেখ হাসিনা যদি দেশে প্রত্যাবর্তন না করতেন এতদিনে এই বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানিয়ে ছাড়তেন তারা। শেখ হাসিনা এসেছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিনিয়ত সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।বর্ধিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু , জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী প্রমুখ। প্রসংঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের স্থান নির্ধারণ নিয়ে উপস্থিত নেতাদের মধ্যে ‘তুমুল বাহাস’ হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সেখানে উপস্থিত বেশ কয়েকজন নেতা। তারা জানান, সম্মেলনের জন্য জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক নগরীর দক্ষিণপ্রান্তে অবস্থিত জিমখানা শেখ রাসেল পার্কের প্রস্তাব করলে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আবু হাসনাত মো.শহিদ বাদলসহ অধিকাংশ নেতাই তাতে বিরোধীতা করেন। তারা সম্মেলনের জন্য নগরীর ওসমানী স্টেডিয়াম অথবা একেএম সামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামের নাম প্রস্তাব করেন। তারা বলেন জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে পুরো জেলা থেকে কমপক্ষে ৩০ থেকে ৪০হাজার নেতাকর্মীর সমাগম করার পরিকল্পনা রয়েছে। সেখানে শেষ রাসেল পার্কের ধারন ক্ষমতা মাত্র ৪/৫হাজার মানুষের ও সেখানে প্রবেশের রাস্তাটি অত্যন্ত সরু। তারা বলেন, জিমখানা এলাকাটি বিএনপি-জামাত অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত। সেখানে এত সংখ্যক নেতাকর্মীর আগমনে তারা সুযোগ নিতে পারে। নেতাদের এই বিতর্কের পর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মীর্জা আযম জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে পুলিশ সুপারের সাথে আলোচনা স্বাপেক্ষে সম্মেলনের স্থান নির্ধারণ করার দ্বায়িত্ব দেন।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।