চাঁদা না দেওয়ায় আটকে দেয়া হলো শিপমেন্ট

ফতুল্লায় বিসিক শিল্পনগরীতে এফ কে নিটেক্স নামে একটি প্রতিষ্ঠানের শিপমেন্ট আটকে তা নিজের হেফাজতে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে নিট ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেমের বিরুদ্ধে। ঘটনার প্রতিবাদ করায় এফ কে নিটেক্সের মালিক ফারুক খান ও তার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। গত রোববার (৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় ফতুল্লার পঞ্চবটির বিসিক শিল্পনগরীর ১ নম্বর গেটে এ ঘটনা ঘটে।অস্ট্রিয়ায় রপ্তানির জন্য এফ কে নিটেক্সের প্রায় ৩ হাজার পিস তৈরি পোশাক বিসিকের ১ নম্বর গেট দিয়ে বের করার সময় হাতেমের নিরাপত্তাকর্মীরা বাধা দেন। বিসিক থেকে মালপত্র বের করতে হাতেমের অনুমতি লাগবে বলে জানান তারা। ফারুক খান বিষয়টি ফতুল্লা থানা ও জেলা সমবায় কর্মকর্তাদের জানান। তিনি ও তার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গেলে গার্ডরা বিষয়টি হাতেমকে জানান। এরপর ১ নম্বর গেটে হাতেম ও তার লোকজনের হাতে মারধরের শিকার হন ফারুক খান ও তার প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা।বিসিক শিল্প সমবায় মালিক সমিতির সদস্য পদ না নেওয়ায় পণ্য আটকে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ ফারুক খানের। এক বছর আগেও তার প্রতিষ্ঠানের একটি শিপমেন্ট আটকে দেওয়া হয়েছিল। ওই সময় পুলিশের সহযোগিতায় মালপত্র উদ্ধার করতে পেরেছিলেন ফারুক।অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি ও বিসিক শিল্প মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, গত রোববার এফ কে নিটেক্সের মালপত্র গেটে আটকে দেওয়ার ঘটনা সত্যি। সমিতির নিবন্ধিত নয়, এমন প্রতিষ্ঠানের মালপত্র আনা-নেওয়া করা যাবে না বলে দাবি করে হাতেম বলেন, ২০১৯-২০ সালে সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে বিসিক শিল্প মালিক সমবায় সমিতির রেজিস্ট্রেশন নেওয়া হয়। প্রতি গার্মেন্ট থেকে মাসে ২ হাজার এবং নিট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে সাতশ টাকা করে চাঁদা নেওয়া হয়, যা দিয়ে নিরাপত্তা প্রহরী ও ক্লিনারদের বেতন ও রাস্তাঘাট মেরামত করা হয়।মোহাম্মদ হাতেম আরও বলেন, ফারুক খান সংগঠনের সদস্য নন। তাকে গত বছর বিসিক শিল্প মালিক সমবায় সমিতির সদস্য পদের ফরম পাঠিয়ে ৫ হাজার টাকা এককালীন পরিশোধ করতে বললে তিনি তা না করে আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ করেন। এজন্য সভা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, ফারুক খানকে সংগঠনের সদস্য করা হবে না। তাকে বিসিকে ব্যবসাও করতে দেওয়া হবে না। যে আমাদের সংগঠনভুক্ত নয়, তাকে আমরা বিসিক থেকে চলে যেতে বলেছি। ভবন মালিককেও বলেছি যেন তাকে উচ্ছেদ করা হয়। মালিক সমিতির নিবন্ধিত না হওয়ায় তার মালপত্র আটকে আমাদের হেফাজতে রাখা হয়েছে।বিকেএমইএর একটি সূত্র বলেন, কেউ কোনো সংগঠনের সদস্য পদ না নিলে যে তিনি ব্যবসা করতে পারবেন না, এমন আইন নেই। বিসিকে কে ব্যবসা করবেন আর কে করবেন না, সেটি ঠিক করবে বিসিক কর্তৃপক্ষ। এই এখতিয়ার কোনো ব্যক্তি বা সংগঠনের নেই।ফারুক খান বলেন, তিনি নারায়ণগঞ্জ চেম্বারের সদস্য। বিজিএমইএর সদস্য পদের জন্য আবেদন করেছেন। বিসিকে ব্যবসা করার সঙ্গে কোনো সংগঠনের সদস্য পদ থাকা-না থাকার সম্পর্ক নেই বলেও জানান তিনি।ফারুক খান জানান, অস্ট্রিয়ায় রপ্তানির জন্য মোট ২১ লাখ টাকার পণ্য প্রস্তুত করেছিলেন তিনি। আটকে দেওয়া মালপত্র তিন দিনেও ফেরত না পাওয়ায় এখন অনিশ্চয়তায় পড়েছে শিপমেন্টটি।বিসিকের ১ নম্বর গলিতে থাকা এফ কে নিটেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফারুক খান অভিযোগ করেন, মোহাম্মদ হাতেম বেশ কয়েক বছর আগে ‘বিসিক শিল্প সমবায় মালিক সমিতি’ নামে একটি সংগঠন গড়ে তোলেন। ওই সমিতির মাধ্যমে গার্মেন্ট মালিকদের কাছ থেকে চাঁদাবাজি করে আসছেন। গত বছর এই সংগঠনের সদস্য পদের জন্য ৫ হাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করে একটি ফরম পাঠান। ফারুক খান চাঁদা দিতে না চাইলে ওই বছরের ১৪ ডিসেম্বর এফ কে নিটেক্সের দুবাইগামী ৩০ লাখ টাকার শিপমেন্ট হাতেমের লোকজন আটকে দেয়।ফারুক খান বলেন, বিসিকের প্রত্যেক গার্মেন্ট মালিকের নিজস্ব নিরাপত্তা প্রহরী রয়েছে। প্রধান গেটের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্বও বিসিক কর্তৃপক্ষের। মূলত গার্মেন্ট মালিকদের কাছ থেকে চাঁদাবাজির জন্যই এ সমিতি করা হয়েছে।জেলা সমবায় কর্মকর্তা রাশেদ ভূঁইয়া বলেন, এফ কে নিটেক্সের মালপত্র আটকে রাখার প্রমাণ পেয়েছি। মালগুলো ছেড়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। ফারুক খানকে বলেছি লিখিত অভিযোগ দিতে। অতীতেও তার শিপমেন্ট আটকে রাখার ঘটনা ঘটেছিল।ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) কাজী মাসুদ রানা বলেন, পণ্য আটকে রাখার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি, ফারুক খান সমিতির চাঁদা না দেওয়ায় তার মাল আটকে রাখা হয়। বিষয়টি মীমাংসা করতে বলা হয়েছে।ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু বলেন, শিপমেন্টটি ছেড়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে জানতে বিকেএমইএর সভাপতি সেলিম ওসমানকে ফোন করা হলে তিনি অসুস্থ রয়েছেন বলে ফোন কেটে দেন।বিসিক শিল্পনগরের শিল্পনগরী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিসিকের অভ্যন্তরে রাস্তাঘাট, কালভার্ট শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে সরকারি অর্থায়নে হয়ে থাকে। তবে বিসিক শিল্পনগরীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে যে পরিমাণ অর্থ প্রয়োজন, সেটি তাদের নেই।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ