ঢাকাসোমবার , ৪ ডিসেম্বর ২০২৩
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

মনোনয়ন দৌড়ে ছিটকে পড়লেন সাত জন

আবির শিকদার
ডিসেম্বর ৪, ২০২৩ ৭:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নিবার্চনে নারায়নগঞ্জের পাঁচটি আসনে মনোনয়নের দৌড়ে অংশ নেয় ৪৫ জন প্রার্থী। এর মধ্যে যাচাই-বাছাই পর্বে ছিটকে পড়েছেন মোট ৭ জন প্রার্থী। মনোনয়ন বাতিল হওয়া প্রার্থীদের মধ্যে খেলাপি ঋণ, ভূল তথ্য উপস্থাপন, মোট ভোটারের ১% ভোটার হালনাগাদ করতে ব্যর্থতা এবং সঠিক ভাবে মনোনয়নপত্র পূরণ না করাই কারণ হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

সোমবার (৪ ডিসেম্বর) সকাল থেকে জেলা রিটার্নিং কর্মকতার্র কার্যালয়ে শুরু হয় আসন ভিত্তিক মনোনয়ন যাচাই বাছাই কার্যক্রম। চলে দুপুর সারে বারটা অবদি। যাচাই বাছাই শেষে নারায়ণগঞ্জ জেরা রিটানিংর্ কর্মকতার্ মাহমুদুল হক সাত জনের মনোনয়ন বাতিলের বিষয়টি আনুষ্ঠানিক ভাবে গণমাধ্যমকমীর্দের জানান।

জেরা রিটার্নিং কর্মকতার্ ও জেলা রিবার্চন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি সংসদীয় আসনে মোট ৫১ জন প্রার্থী নিবার্চনে অংশগ্রহনের লক্ষ্যে মনোনয়নপত্র তুলেন। তবে মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ দিন পর্যন্ত ১৩ টি রাজনৈতিক দলের ও স্বতন্ত্র মিলে মোট ৪৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এরপর নিবার্চন কমিশন স্থানীয় থানা, আদালত, বাংলাদেশ ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে মনোনয়ন যাচাই বাছাই কার্যক্রমের শুরু করেন। আজ সোমবার সকালে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ শেষে মোট ৩৮ জনকে নিবার্চনে অংশগ্রহনের জন্য বৈধ প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করা হয়। এদিকে নানান কারণে মোট ৭ জন প্রার্থীর মোননয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন নিবার্চন কমিশন।

আসান ভিত্তিক প্রার্থীদের তালিকা পযার্লোচনা করে দেখা গেছে, নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনে মোট ১০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এই আসনে ৯ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ও ১ প্রার্থীর মনোনয়ন বা‌তিল করা হ‌য়ে‌ছে। প্রার্থী হিসেবে বৈধ হ‌য়ে‌ছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বর্তমান সাংসদ এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতিক), তৃণমূল বিএনপির মহাসচিব অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী রূপগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহাজাহান ভুইয়া, রূপগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ড্যামি প্রার্থী (স্বতন্ত্র) গাজী গোলাম মর্তুজা পাপ্পা, রূপগঞ্জ আওয়ামী লীগে নেতা ও মন্ত্রী গাজীর অনুসারী ড্যামি (স্বতন্ত্র) প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান, মো. জোবায়ের আলম (স্বতন্ত্র), মো. সাইফুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), মো. জয়নাল আবেদীন চৌধুরী (স্বতন্ত্র) ও ইসলামি ফ্রন্ট বাংলাদেশ মনোনিত প্রার্থী একেএম শহিদুল ইসলাম। এদিকে এই আসনে জামানত জমা না দেয়ার জন্য আফাজউদ্দিন মোল্লার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেছে নিবার্চন কমিশন।

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে ৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে নিবার্চনে অংশগ্রহনের জন্য ৪ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ও ২ জ‌নের মনোনয়নপত্র বা‌তিল ঘোষণা করা হ‌য়ে‌ছে। প্রাতীর্ হিসাবে বৈধ হ‌য়ে‌ছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনিত এই আসনের বর্তমান সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু, তৃণমূল বিএনপি থেকে মো. আবু হানিফ হৃদয়, জাকের পার্টির মো. শাহজাহান এবং জাতীয় পার্টির কেন্দীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর সিকদার লোটন। এদিকে ঋণ খেলাপি হওয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শরিফুল ইসলামের ও সঠিকভাবে মনোনয়নপত্র পূরণ না করায় স্বতন্ত্র প্রার্থী জিকে মামুন দিদারের মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে নিবার্চন কমিশন।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনে ১৩ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে নিবার্চনে অংশগ্রহনের জন্য ১১ জন প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা ও ২ জ‌ন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা হ‌য়ে‌ছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনিত সাবেক সংসদ সদস্য কায়সার হাসনাত, জাতীয় পার্টির যুগ্ম মহাসচিব ও বর্তমান সংসদ সদস্য ও লিয়াকত হোসেন খোকা, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন মনোনিত মো. মজিবুর রহমান মানিক, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির মোহাম্মদ আসলাম হোসেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন (বিএনএম) মনোনিত প্রার্থী এবিএম ওয়ালিউর রহমান খান, বিকল্প ধারা বাংলাদেশ মনোনিত প্রার্থী নারায়ণ দাস, স্বতন্ত্র প্রার্থী এরফান হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মারুফ ইসলাম ঝলক, মুক্তিজোট মনোনিত প্রার্থী মো. আরিফ, স্বতন্ত্র প্রার্থী রুবিয়া সুলতানা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী এএইচএম মাসুদের। এদিকে এই আসনে ঋণ খেলাপি হওয়ায় মনোনয়ন বা‌তিল ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির সিরাজুল হক ও জাকের পার্টির মো. জামিল মিজির।

নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে মোট ১১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে ২ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে এবং ৯ জণ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধতা ঘোষণা করা হয়েছে। প্রার্থী হিসাবে বৈধ হ‌য়ে‌ছেন বর্তমান সাংসদ একেএম শামীম ওসমান, সমাজতান্ত্রিক দল মনোনিত মো. সৈয়দ হোসেন, তৃণমূল বিএনপির মো. আলী হোসেন, জাকের পার্টির মো. মূরাদ হোসেন জামাল, জাতীয় পার্টির মো. ছালাউদ্দিন খোকা, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির মো. সেলিম আহমেদ, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ মনোনিত প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. শহীদ উন নবী এবং বাংলাদেশ কংগ্রেস মনোনিত প্রার্থী গোলাম মোর্শেদ রনি। এদিকে এই আসনে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এর মধ্যে মোট ভোটার থেকে ১% ভোটারের স্বাক্ষর যথাযত ভা‌বে প্রদান ক‌রতে না পাড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রাশেদুল ইসলাম ও মনোনয়ন সঠিকভাবে পূরণ না করায় এবং মোট ভোটার থেকে ১% ভোটারের স্বাক্ষর যথাযত ভা‌বে প্রদান করতে না পাড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী কাজী দেলোয়ার হোসেনের মনোনয়নপ্রত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসনে মোট ৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তবে এই আসনে কোন প্রার্থীরই মনোনয়ন বাতিল করা হয়নি। এ আস‌নের সকল প্রার্থী‌র মনোনয়ন বৈধ ‌ঘোষণা করা হয়েছে। এই আসনের বৈধ প্রার্থীরা হলেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বর্তমান সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান, ইসলামি ফ্রন্ট বাংলাদেশ মনোনিত প্রার্থী এএমএম একরামুল হক, জাকের পার্টি মনোনিত প্রার্থী মোর্শেদ হাসান, তৃণমূল বিএনপি’র মো. আব্দুল হামিদ ভাষানী ভূইয়া এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি’র ছামসুল ইসলাম।

মনোনয়ন যাচাই-বাছাই শেষে জেলা রিটার্নিং কর্মকতার্ মাহমুদুল হক জানান, আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪৫ জন প্রার্থী। মনোনয়ন যাচাইআন্তে মোট ৭ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ, তৃনমুল বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ মোট ১৩ দলের প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৩৮ জনের প্রার্থীতা বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের মোট ভোটার সংখ্যা ২২ লাখ ৫৫ হাজার ৬০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১১ লাখ ৪৭ হাজার ৯৭৭ জন এবং নারী ভোটার ১১ লাখ ৭ হাজার ৬৬জন। এছাড়া তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছেন আরোও ১৭ জন।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।