বাস-ট্রেন সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি

দ্বায়িত্বে অবহেলায় ঝরে গেল ৪ প্রাণ

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ শহরের ১নং রেইল ক্রসিং এ ট্রেন ও বাসের সংঘর্ষের ঘটনায় এক শিশুসহ ৩জন নিহত হয়েছেন ও চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরোও একজন মারা গেছেন। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা ৪। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৯জন। এ ঘটনায় ৫ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রসাশন নারায়নগঞ্জ।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকাল ৫টায় শহরের ১নং রেল গেইট এলাকায় দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক রহিমা আক্তারের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের তদন্ত দল। দুর্ঘটনার কারন সনাক্তের জন্য সড়েজমিনে এসে কার্যক্রম শুরু করেন তদন্ত দল।

এদিকে দুর্ঘটনায় নিহত ৪ জনের মধ্যে ৩ জনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। হতাহতের ঘটনায় পৃথক দু’টি অপমৃত্যুর মামলাও দায়ের করা হয়েছে। ঢাকা রেলওয়ে থানায় রোববার (২৬ ডিসেম্বর) রাতে ১৭৪ ধারায় অপমৃত্যুর মামলা দু’টি রুজ করা হয়। (মামলা নম্বার দু’টি-২৩২-২৩৩)। অপরদিকে দুঘর্টনায় নিহত ৪জনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

তারা হলেন গাইবান্ধার সাঘাটা থানার ঝাড়াবর্ষা এলাকার ভূট্টারাম দাশ (৫২), বন্দর উপজেলার আবুল কালাম (৭৩), সদর উপজেলার ২নং বাবুরাইল ব্যাপারী পাড়ার রিফাত হোসেন (৯) ও বন্দর থানার ঘাড় মোড়া মদনগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা মিসবাহ উদ্দিন (৬৫)। এদের মধ্যে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছে ভূট্টারাম দাশ ও আবুল কালামের। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল নেওয়া হলে ট্রেনে কাটা পড়ে এক পা বিচ্ছিন্ন ৯ বছরের শিশু রিফাত হোসেন মারা যান। আর সোমবার সকাল সাতটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মিসবাহ উদ্দিন।

দ্বায়িত্বে অবহেলায় ঝরে গেল ৪ প্রাণ
গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে আসা একটি দ্রুতগামী ট্রেন যানজটের কারণে রেললাইনের উপর আটকে যাওয়া আনন্দ পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসকে ধাক্কা দিলে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি আজ বিকেলে সড়েজমিনে পরিদর্শনে এসে একাধিক প্রত্যক্ষদর্শীদের স্বাক্ষগ্রহন করেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে উঠে আসে ১নং রেইল ক্রসিংয়ে দায়িত্বে থাকা লাইনম্যান মোহাম্মদ হানিফের দ্বায়িত্বে গাফলতির কথা। অনুসন্ধানে জানা গেছে, হানিফ বাংলাদেশ রেলওয়ের ১৮তম গ্রেডের স্থায়ী কর্মচারী। বছর খানিক হয় তিনি নারায়ণগঞ্জে যোগদান করেছেন। এর আগে তিনি নরসিংদিতে কর্মরত ছিলেন। সড়েজমিনে ঘুরে আরোও দেখা যায়, শহরের ২নং রেইল ক্রসিং থেকে ১নং রেইল ক্রসিংয়ের মধ্যকার স্থানে রেললাইনের গাঁ ঘেষে দুইপাশে প্রায় শতাধিক দোকানপাট রয়েছে। রেলগাড়ি আসলে এই পথের পথচারীদের ডেকে ডেকে সড়িয়ে দেন স্থানীয় হকাররা।

গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে আসা একটি দ্রুতগামী ট্রেন যানজটের কারণে রেললাইনের উপর আটকে যাওয়া আনন্দ পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসকে ধাক্কা দিলে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি আজ বিকেলে সড়েজমিনে পরিদর্শনে এসে একাধিক প্রত্যক্ষদর্শীদের স্বাক্ষগ্রহন করেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ানে উঠে আসে ১নং রেইল ক্রসিংয়ে দায়িত্বে থাকা লাইনম্যান মোহাম্মদ হানিফের দ্বায়িত্বে গাফলতির কথা। অনুসন্ধানে জানা গেছে, হানিফ বাংলাদেশ রেলওয়ের ১৮তম গ্রেডের স্থায়ী কর্মচারী। বছর খানিক হয় তিনি নারায়ণগঞ্জে যোগদান করেছেন। এর আগে তিনি নরসিংদিতে কর্মরত ছিলেন। সড়েজমিনে ঘুরে আরোও দেখা যায়, শহরের ২নং রেইল ক্রসিং থেকে ১নং রেইল ক্রসিংয়ের মধ্যকার স্থানে রেললাইনের গাঁ ঘেষে দুইপাশে প্রায় শতাধিক দোকানপাট রয়েছে। রেলগাড়ি আসলে এই পথের পথচারীদের ডেকে ডেকে সড়িয়ে দেন স্থানীয় হকাররা।

স্থানীয় হকার রহমান মিয়া বলেন, অনেক পথচারী বেখেয়াঁলী ভাবে রেলরাইনের উপর দিয়ে হাটেন। যখন গাড়ি আসে তখন আমরা সবাইকে ডাক খোঁজ নিয়ে সড়িয়ে দেই। অন্য আরেক হকার নাম প্রকাশ না করার শর্তে নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, জীবিকার তাগিদে জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলে তার রেলরাইনের গাঁ ঘেষে নানা পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। ১নং থেকে ২নং রেল ঘেইট পর্যন্ত এই অংশে প্রায় শতাধিক দোকান রয়েছে। এই দোকানগুলো থেকে প্রতিদিন হাজার দশেক টাকা সংগহ করেন স্থানীয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

তদন্ত কমিটিতে স্বাক্ষপ্রদান শেষে স্থানীয় শাড়ি-কাপর ব্যবসায়ী শাহজাহান মিয়া গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, আজকে দুর্ঘটনার কারণে এখানে ট্রাফিক পুলিশ দেয়া হল, আগে যদি এখানে পুলিশ থাকতো তবে এই দুর্ঘটনা ঘটতো না। এছাড়াও এখানে যিনি লাইনম্যানের দ্বায়িত্বে রয়েছেন তিনি প্রায়ই এখানে থাকেন না। তার রেলওয়ের যায়গায় গড়ে তোলা ৭-৮টি দোকান রয়েছে। সে প্রতিদিন তার দোকান থেকে টাকা উঠাতে ব্যস্ত থাকে। যখন তিনি দেখলেন যানজটের কারণে বাসটি কোন দিকে যেতে পারছে না, তখন সে লাল নিশান ধরলেও হয়তো দুর্ঘটনাটি ঘটতো না।

এদিকে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অতিরিক্ত জেলা ম্যজিস্ট্রেট রহিমা আক্তার জানান, বিজ্ঞ জেলা ম্যজিস্ট্রেট মোস্তাইন বিল্লাহ্র নির্দেশে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ ঘটনা স্থলে পরিদর্শনে এসেছি এবং প্রত্যক্ষ দর্শীদের বক্তব্য শুনলাম। তদন্ত চলমান রয়েছে, তদন্ত শেষে দুর্ঘটনার কারন ও দুর্ঘটনা রোধে কী করণীয় তার সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিব।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ জানিয়েছেন, এই ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোসাম্মৎ রহিমা আক্তারকে প্রধান করে ৫সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির বাকি সদস্যরা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, বিআরটিএ ও রেলওয়ে থেকে নেওয়া হয়েছে। ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য কমিটিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page