আজ ধলেশ্বরীতে নৌকা বাইচ

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর)অনুষ্ঠিত হবে ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা-২০২১’। ধলেশ্বরী নদীর পূর্ব পাড় (এল.টি.টি জোন ডকইয়ার্ড ধর্মগঞ্জ হতে ডিক্রিরচর গুদারাঘাট পর্যন্ত) দুপুর ২টার সময় ওই অনুষ্ঠানে থাকার কথা রয়েছে- প্রধান অতিথি হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান, বিশেষ অতিথি জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম।

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়। প্রাথমিকভাবে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের সাতটি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা থেকে একটি দল নিয়ে মোট ৮টি দল নিয়ে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা হবে। প্রায় আড়াই জার মিটার দূরত্বের এ প্রতিযোগিতার প্রতিটি ছিপ নৌকায় ৬০/৭০ জন মাঝি মাল্লা থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতার বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক ফাতেমা তুল জান্নাত। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মো: রিফাত ফেরদৌস এর সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। আরো উপস্থিত ছিলেন টুর্নামেন্ট কমিটির সদস্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) কোহিনুর আক্তার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুবাইয়া খানম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: আবুবকর সরকার, সহকারী কমিশনার (ভূমি)মো. মজিবুর রহমান এবং নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ এর চেয়ারম্যানবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, নৌকা বাইচ নারায়ণগঞ্জ জেলার জনগনের মধ্যে উৎসাহ এবং বিনোদনের খোরাক যোগাবে।
স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক ফাতেমা তুল জান্নাত বলেন, এ বছর আয়োজন করতে যাচ্ছি “স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ” নৌকা বাইচ। এর মত বড় একটি প্রতিযোগিতা যা নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য আমাদের সেরা একটি আয়োজন।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মো: রিফাত ফেরদৌস বলেন, আমাদের চিন্তা-ভাবনা ছিলো নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য উৎসব মূখর কিছু করার। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা-২০২১ এই বড় আয়োজনের উদ্যোগ তারই একটি অংশ। যারা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভবিষ্যতেও খেলাধুলায় তাদের পাশে থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি। ভেন্যূসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করায় সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে প্রতিযোগিতার জার্সি উন্মোচন করেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন দল ট্রফি ছাড়াও নগদ ৩,০০,০০০/- (তিন লক্ষ) টাকা, রানার্স আপ দল ট্রফি ও নগদ ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকা এবং তৃতীয় স্থান অধিকারী দল ট্রফি ও নগদ ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা অর্থ পুরস্কার লাভ করবে। এছাড়াও অংশগ্রহণকারী দলগুলোর জন্য থাকছে সৌজন্য স্বারক।

অংশগ্রহণকারী প্রতিযোগী দলের সংখ্যা – ০৮টি। দলগুলো হলো- ০১. কাশীপুর ইউনিয়ন ০২. বক্তাবলী ইউনিয়ন ০৩. ফতুল্লা ইউনিয়ন ০৪. এনায়েত নগর ইউনিয়ন ০৫. কুতুবপুর ইউনিয়ন ০৬. গোগনগর ইউনিয়ন ০৭. আলীরটেক ইউনিয়ন, নারায়ণগঞ্জ সদর, নারায়ণগঞ্জ এবং ৮ নম্বর দলটি নারায়ণগঞ্জ জেলাকে প্রতিনিধিত্ব করবে। প্রতিযোগিতার দূরত্ব- ২,৫০০ মিটার। এবং জার্সির কালার- লাল, কমলা, আকাশী, বেগুনী, সবৃজ, হলুদ, নীল ও গোলাপী।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ