‘ভাবি নাই বাইচা ফিরুম’

- Advertisement -

‘জাহজটা অনেক হরেণ বাজাইতাসে, কিন্তু কুয়াশায় কিছুই দেখা যাইতাসেনা। যহন ট্রলারে ধাক্কা লাগলো, হগলে হমানে চিল্লা-পাল্লা করতাসে। আমি অস্তে অস্তে জাহাজের তলে ঢুইক্কা যাইতাসিলাম। চোখে মুখে অন্ধকার দেখতাছিলাম, নিশ^াস নিতে পারতেছিলাম না। ওইসুমকা ট্রলারের থাইক্কা ভাইসা উঠা কাঠ আর জাহাজের থাইক্কা ফেলা বয়া ধইরা ভাইসা ছিলাম পরায় ২০মিনিট। পরে হেনকার ট্রলারের মাঝীগো সহযোগিতায় ট্রলারে উঠছি। ভাবি নাই বাইচা ফিরুম।’ কথাগুলো বলছিলেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বক্তাবলীর ধর্মগঞ্জ এলাকায় ট্রলার ডুবির ঘটনায় বেঁচে ফেরা কওমি মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ফাহিম আহমেদ (১৭)।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বক্তাবলীর ধর্মগঞ্জ এলাকায় সিপাহীপাড়া ঘাট থেকে ধর্মগঞ্জ গুদারাঘাটে যাওয়ার পথে প্রায় ৭০ জন যাত্রী নিয়ে ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এখন পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছে ৯ জন।

বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল সোয়া ৮ টার দিকে বক্তাবলীর সিপাহীপাড়া থেকে অফিসগামী ও শিক্ষার্থীদের সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার যাত্রীদের নিয়ে এ ট্রলারডুবির ঘটনায় নিখোঁজদের উদ্ধার করতে উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিটসহ সরকারি বেসরকারি আরোও ৬ সংস্থা। নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ট্রলার ডুবির দুর্ঘটনার কবলে পড়া শীক্ষার্থী ফাহিম জানান, ‘সকালে যখন ট্রলার ছাড়ে, তখন গুদারায় আনেক যাত্রী ছিল। ৬০ থেকে ৭০ জন ট্রলারে উঠসে। অনেকে উঠতে পারে নাই, ঘাটেই রয়ে গেসে। আজকে সকালে অনেক কুয়াশা ছিল ৪-৫ফুট দুরে কি আছে তাও দেখা যাচ্ছিল না। অনেকে বলছে পড়ে ছাড়েন, আবার অনেকে গার্মেন্টে কাজ করেন। তাগোতো টাইম মতন অফিসে না গেলে সমস্যা, লেট দিয়া দিব হাজিরায়। শীতের দিন কুয়াশাতো পরবো স্বাভাবিক, কুয়াশাতো আটকান যাইবোনা। ট্রলারে যদি ১০টা বয়া থাকতো, তয়লে এতগুলা মানুষ গাঙ্গে ডুবতোনা।’

প্রত্যক্ষদর্শী ও ঘাট ব্যবহারকারীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরী নদীর মোহনার কাছাকাছি ধলেশ^রী নদীর বক্তাবলীর সিপাইপাড়া ঘাট থেকে ধর্মগঞ্জ গুদারাঘাটে যাওয়ার পথে নদীর মধ্যবর্তী স্থানে ঘন কুয়াশায় আটকে যায় দুর্ঘটনার কবলে পড়া ট্রলারটি। দুর্ঘটনার কবলে পড়া একাধিক যাত্রী জানান নদীর মধ্যবর্তী স্থানে কুয়াশায় পথ চিনতে না পেরে এদিক সেদিক ঘুরাঘুরি করতে থাকে প্রায় ৩০মিনিট। এদিকে, বরিশাল থেকে ঢাকাগামী একটি লঞ্চ ও যাত্রীবাহী ট্রলার ঘন কুয়াশার কারণে দেখতে না পেয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। ফলে এ ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই প্রায় ৫০ জন যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। যাত্রীদের মধ্যে বেশিরভাগই রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্প কারখানায় কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে। নিখোঁজদের মধ্যে একই পরিবারের মা সহ তিন শিশু অর্থাৎ ৪জন নিখোঁজ রয়েছে। এছাড়াও একজন মসজিদের মোতায়াল্লী মাদ্রাসার শিক্ষার্থী নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ট্রলার ডুবির ঘটনায় স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি তাদের অভিযোগ ব্যক্ত করে বলেন, যিনি ট্রলারটি চালাচ্ছিলেন অর্থাৎ ট্রলারের মাঝি শওকত মিয়া চোখে দেখতে পান না। তিনি এর আগেও বহু ছোট-বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়েছেন। এই ঘাটে ট্রলার পরিচালনা নিয়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে একাধিক স্থানীয় ব্যক্তি এর আগে অভিযোগ করেছিলেন। তবে ঘাট পরিচালনা করেন যারা তারা তাদের অভিযোগ আমলে নেননি বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। সকালে যে যাত্রীদের চাপ থাকে সে অনুপাতে ট্রলারের সংখ্যা খুব কম। মাত্র দুটি ট্রলার দিয়ে যাত্রীদের ঘাট পারাপার করা হয়। এছাড়াও ট্রলারে নেই কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থাও। যদি ট্রলারে লাইফ বয়া থাকতো, তবে এতগুলো মানুষ নিখোঁজ হতেন না।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর উপ-পরিচালক আব্দুল্লাহ্ আল আরেফিন বলেন, কুয়াশার কারণে দীর্ঘক্ষন অপেক্ষার পর সকাল ৯টার দিকে সিপাহীপাড়া থেকে ধর্মগঞ্জ গুদারাঘাটের পথে আনুমানিক ৬০ থেকে ৭০ জন যাত্রী নিয়ে রওয়ানা হয় ট্রলারটি। ট্রলারটি মাঝনদীতে আসলে ঘন কুয়াশার কারণে দেখতে না পাওয়ায় বরিশাল থেকে ঢাকাগামী একটি লঞ্চ এর সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে ট্রলারটি ডুবে যায়। ট্রলারে থাকা অনেকেই কুয়াশায় আটকে যাওয়া অন্য ট্রলারে ও সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও, নিখোঁজ রয়েছে ৯ জন। উদ্ধার কার্যক্রম চলমান রয়েছে, তবে ডুবে যাওয়া ট্রলারটি এখনো শনাক্ত করা যায়নি।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page