মুখোশের অন্তরালে বিভৎস চেহারা

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, ‘এত মুখোশ পড়া মানুষ, এত মেকআপ করা মানুষ। কিন্তু মুখোশের অন্তরালে লুকিয়ে থাকে বিভৎস চেহারা। বিভৎস চেহারা গুলো থেকে যখন মুখোশ খুলে, তখন দেখি আর আতঙ্কিত হই। মুখোশই একটা চেহারা।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) বিকালে নারায়ণগঞ্জ টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের অভিষেক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শহরের গণগ্রন্থাগার মিলনায়তনে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়।

এসময় শামীম ওসমান আরও বলেন, ‘আমি রাজনীতিটা করি দেশের মানুষকে ভালোবাসার জন্য, রাজনীতিটা করি এবাদত হিসেবে। রাজনীতিটা করি মানুষের জন্য। অনেক কিছু দেখছি, অনেক কিছু শুনছি, অনেক কিছুই বলার আছে। সময় হলে সব কথাই বলা হবে।’

নারায়ণগঞ্জ টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আনিছুর রহমান জুয়েলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন।

শামীম ওসমান বলেন, আমি খান সাহেব ওসমান আলীর নাতী, যে ১৯২২ সালে রোলস রয়েলস গাড়ী কিনেছেন। আমি একেএম সামসুজ্জোহার ছেলে, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার একদিন পর যাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। জেলখানায় যখন জাতীয় ৪ নেতাকে হত্যা করা হয়, পাশের কক্ষে আমার বাবাও ছিল। আমার বড় ভাই নাসিম ওসমানের বিয়ের রাতেই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের প্রতিশোধ নিতে বের হয়েছিলেন। ৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পরে আমরা এক বেলা ভাত খেয়েছি, দু’বেলা খাইনি। পরীক্ষার ফর্ম ফিলাপ করতে পাড়িনি ৯০০ টাকার জন্য। আমরা এটাও দেখেছি, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশে ১০ জানুয়ারি যখন প্রত্যাবর্তন করেন, তখন সবচেয়ে সুন্দর কান্না কেঁদে ছিল খন্দকার মোস্তাক আহম্মেদ। এইটাও ছিল নাটকিয়তা।

শামীম ওসমান বলেন, আমি সেই রাজনীতি করি, ২০০১ সালে যখন ১৬ জুনে বোমা বিস্ফোরণ হয়ে ছিল, আমার ২০ জন মানুষ টুকরা টুকরা হয়ে গেছে, আমার চন্দনশীল-রতনের দু’টো করে পা আজকে নাই। সেই খানে অনেকেই বলছিলেন, কিছু বলবেন? কিছু বলবেন? যারা এখনও আমার পরীক্ষা নিতে চান, তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, সেদিন আমি কানেও শুনছিলাম না, চোখেও দেখছিলাম না। আমি তখন চোখ খুলে একটাই কথা বলে ছিলাম, শেখ হাসিনাকে বাঁচান। কারণ, আমি সেই কথা বলে ছিলাম অন্তর থেকে। আমরা ওই রাজনীতি করি, বাঁচবো কি মরবো, জানি না। তখনও বলি শেখ হাসিনাকে বাঁচান।

ছোট বাচ্চাদের উদ্দেশ্যে শামীম ওসমান বলেন, যদি ভালো কিছু করতে চাও, সবার আগে, সবকিছুর আগে মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব পালন করো। যে সন্তান তার মা বাবাকে ভালোবাসে, মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব পালন করে, আমি বিশ্বাস করি, তাকে কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারে না। আর তোমার কারণে তোমার মা-বাবা, ভাই বোনদের কেউ অপমান করে, সেখানে প্রতিবাদ করতে না পারো, আপস করো না। সেটাতে নিজেকে নিজে ক্ষমা করতে পারবে না।

শামীম ওসমান বলেন, সত্য বললে আঘাত আসবেই। আর যদি সত্য না বলতে পারেন, তাহলে অন্তত মিথ্যা বইলেন না। আমার মনে হয়, এটিই হওয়া উচিৎ একটা মানুষের।

স্কাউটদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, অনেক ধাক্কা আসবে, অনেক বড় বড় ঝড় আসবে। তোমাদেরকে সেই ঝড় হয়তো তোমার কানের সামনে এসে বলবে, এই ঝড়ের সামনে তুমি দাঁড়াতে পাড়বে না। তোমাদের উচিৎ হবে ঝড়কে বলা, শেখ হাসিনার মতো আমি নিজেই ঝড়। আমাকে আটকানোর ক্ষমতা কারো নাই।

আফজাল হোসেন পন্টির সঞ্চালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্টের সদস্য কাশেম হুমায়ন, বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব শেখ মামুনুর রশিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাজ্জাদ আলম তপু, বিকেএমইএ’র প্রাক্তন সহ-সভাপতি মাসুদুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আরিফ আলম দীপু, রুমন রেজা, জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুস সালাম প্রমুখ।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page