পদত্যাগের ২৩ দিন পরেও

মেয়র পদে বহাল আইভী!

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচনে অংশ নিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করবেন ডা. সেলিনা হায়াত আইভী এটাই স্বাভাবিক। সেই মতে গত ১৪ ডিসেম্বরে মঙ্গলবার মেয়র হিসেবে তার শেষ কার্যদিবস পালন করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে তার পদত্যাগ পত্রটি পাঠিয়েছিলেন। পদত্যাগ পত্র জমা দেয়ায় তিনি আর মেয়র পদে বহাল থকছেন না। তবে মঙ্গলবার সড়েজমিনে নগর ভবন ঘুরে দেখাযায় মেয়রের নিজস্ব কামরায় তার যে নাম ফলক রয়েছে সেখানে এখনো নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ময়ের পদে বহাল রয়েছেন ডা. সেলিনা হায়াত আইভী ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে তিনি মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করার যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে তা আমলে নিয়ে খোদ মেয়র আইভী ২৩ দিন আগে তার পদ থেকে পদত্যাগ করে মেয়র পদ ত্যাগ করেন। তবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন প্রশাসন তার এই পদত্যাগ মোটেও মেনে নিতে পারেনি বিভিন্ন দিক থেকেই তা স্পষ্ট। কারণ নিয়ম অনুযায়ী পদত্যাগের পর, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে তার কোন পদে বহাল থাকার কথা নয়। তবে নগর প্রশাসন এখনো তার সেই নাম ফলক আপসারণ করেনি।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন হয়। এরপর ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি সিটি কর্পোরেশনের প্রথস সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। সেক্ষেত্রে ২০২২ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি মেয়াদ শেষ হতো বিগত আমলের জনপ্রতিনিধিদের। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে, চলতি বছরের ১১ অগাস্ট থেকে আগামী বছরের ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নারায়ণগঞ্জ সিটির নির্বাচন করার আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এরই মধ্যে, নির্বাচন কমিশন আগামী ১৬ জানুয়ারি নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষনা দেয়।

উল্লেখ্য, এর আগে মনোনয়ন সংগ্রহের সময় দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নগর ভবনের মেয়রের পিএ আবুল হোসেন ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে, মনোনয়ন সংগ্্রহের দিন মিছিলে অংশগ্রহন করতে দেখা গেছে, যা নির্বাচনী আচরণ বিধির লঙ্ঘন। এছাড়াও ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে গোটা নারায়ণগঞ্জে বর্ণিল আলোকসজ্জায় সাজানো হয় গুরুত¦পূর্ণ স্থাপনাগুলোকে। সেখানে নগর ভবনের নিজস্ব খরচে নৌকার আদলে আলোকসজ্জা স্থাপন করেছিলেন নগরীর আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার, শেখ রাসেল পার্ক, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক সহ নগর ভবন দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায়। এখানে উল্লেখ্য যে, সেই আলোকসজ্জায় শহরময় নৌকার আদলে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়। সদ্য বিদায়ী মেয়র আইভী তখন যদিও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের চুড়ান্ত প্রার্থী, তবে তখনো তিনি নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রতীক বরাদ্দ পায়নি। প্রতীক বরাদ্দের আগে জনতার ট্যাক্সের টাকায় নগর প্রশাসন দ্বার এমন নৌকার প্রচারণা চালানো সম্পূর্ণ নির্বাচন আচরণ বিধির লঙ্ঘন। নির্বাচনের তফসীল ঘোষনার পরে নগর ভবন কর্তৃক এমন হটকারী কর্মকান্ডের ধিক জানিয়েছেন বিভিন্ন রাজিৈতক বিশ্লেষক ও নেতাকর্মীরা।

পদত্যাগের পরেও নগর ভবনের মেয়রের কামরায় যে নাম ফলক রয়েছে তাতে এখনো লিখা রয়েছে; ‘মেয়র, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন, ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী’ তার মানে উনি কি এখনো মেয়র পদে বহাল রয়েছেন? টেলিফোনে এমন প্রশ্নের জবাবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিন জানান, ‘নাম ফলক সাড়োনো হয়নি, এইটা হয়তো মিস হয়ে গেছে। কেউ হয়তো খেয়াল করেনি, এইটা সড়িয়ে ফেলা যাবে। এইটা আর এমন কী! হয়তো অনেকের চোখেপড়ে নাই এমনও হতে পারে। তাহলে সড়িয়ে ফেলে দেব’।

মেয়র পদে বহাল প্রসংগে মহানগর বিএনপিএটিএম কামাল বলেন, আসলে কি জানেন, এগুলা হল ক্ষমতার অপব্যবহার। যারা সিটি কর্পোরেশনের স্টাফ, তারা জনগণের ট্যাক্সের টাকায় বেতন নেয়। তারা সিটি নির্বাচনে কোন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে পারেনা। এইটা অনৈতিক, সম্পূর্ণভাবে অনৈতিক। তবে দুক্ষজনক এই, এমন অনেক অনৈতিক কর্মকান্ড আমাদের চোখের সামনেই হচ্ছে, এগুলো আমরা দেখছি। দেখবেন কিছু লোক আছে যারা কিন্তু অন্যের দোষ খুজে বেরায়, মেয়র প্রার্থীর যে ভুলত্রæটি তার ব্যপারে তারা মুখ খুলেন না। তারা আবার নিজেদেরকে সুশীল সমাজের অংশ হিসাবে মনে করে। কিন্তু অবশ্যই একজন বিবেকবান মানুষ এমনটা ভাবতে পারেনা বা ভাবা উচিত না। যা অনৈতিক তা সবারই বলা উচিৎ, সব ক্ষেত্রেই বলা উচিৎ। কারো বেলায় বরবো, আর কারো বেলায় মুখে কুলুপ এটে ধিব তা হতে পারে না।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ