সিদ্ধিরগঞ্জে কাউন্সিলর প্রার্থীর

পক্ষে কাজ না করায় সহিংসতার অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে দুই নম্বর ওয়ার্ডের এক কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করায় বাড়িতে গিয়ে হামলা মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার রাত সাড়ে দশটায় সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি দক্ষিণপাড়া এলাকায় আব্দুর রহিমের বাড়ীতে এহামলার ঘটনা ঘটে।

এঘটনায় তেরো জনের নাম উল্লেখ করে রাতেই থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন আব্দুর রহিম। আব্দুর রহিম জানান, আমি সপরিবারে নৌকার প্রার্থী ডা.সেলিনা হায়াৎ আইভীর প্রচরণার জন্য লিফলেট বিতরণ করে রাতে বাসায় ফিরি। তখন দুই নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলামের (ঝুড়ি) ভাই, বোন ও সমর্থকসহ অর্ধশতাকি লোক বাসায় গিয়ে হামলা করে।

নৌকার পাশাপাশি কেন শফিকুল ইসলামের ঝুড়ি প্রতীকের লিফলেট বিতরণ করিনি এই কারণে আব্দুর রিহমের স্ত্রী, জুলেকা বেগম (৫০), বোন খোরশেদা (৫০), ছেলে আল আমিন হোসাইন জীবন (৩৩) ও আত্নীয় ফাতেমাকে (৩০) মারধর ও অবরুদ্ধ করে রাখে। তখন ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করলে থানা পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে সবাইকে উদ্ধার করে।

অভিযুক্ত কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম বলেন, আমার প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী ইকবাল হোসেনের লাটিম প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য আব্দুর রহিম পরিবার ভোটারদের পাঁচশত করে টাকা দিচ্ছে জানতে পেরে আমার সমর্থকরা ফাতেমাকে আটক করে। পরে পুলিশ আসলে আমার সমর্থকরা তাকে ছেড়ে দেয়। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজি ইয়াছিন মিয়া বলেন, আব্দুর রহিমের পরিবার নৌকার পক্ষে কাজ করছে। কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলামের পক্ষে কাজ না করায় তার লোকজন হামলা চালিয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক সাফায়েদুর রহমান বলেন, ৯৯৯ নাম্বারে ফোন পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যাই। ভোটারদের কাছে টাকা বিতরণের অভিযোগে কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলামের লোকজন তাকে আটক করে রেখেছিল। খোঁজ নিয়ে জানতে পারি ওই নারী এলাকার ভোটার নয়। পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।আব্দুর রহিম বাদী হয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলামের লোকজনের বিরুদ্ধে হামলা মারধর অভিযোগ করেছেন। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ