কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের জন্যে নয়!

ব্যক্তি ইমেজে জয়ী আইভী?

বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাবেক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী তৃতীয় বারের মত জয়ী হয়ে হ্যাট্রিক করেছেন। এদিকে আইভীর এই জয়েক অনেকেই মনে করছেন এটি তার ব্যক্তি ইমেজের জয়। তবে তাকে সমর্থন দেয়া সুশীল সমাজের একাংশ এর আগে বলেছেন, মেয়র আইভী দল মতের উর্ধে উঠে কাজ করেন। তার কাছে দলমত কোন বিষয় না, তিনি দলমত নির্বিশেষে সকলের মেয়র।

১৬ জানুয়ারী ভোটের লড়াইয়ের শেষে ভোটের মাঠের অন্যতম প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীকে পরাজিত করে তৃতীয়বারের মত সিটি করপোরেশনের নগরপিতা হয়ে হ্যাট্রিক করেছেন। তবে এর আগে তিনি পৌরসভায় একবারের জন্য মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। এই নিয়ে তিনি চতুর্থ বারের মত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন।

তবে নির্বাচনে জয়ী হয়ে আইভী নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করলেও এ বিরোধীতা করেছে প্রধান প্রতিদ্বন্ধি স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রসাশন ও নির্বাচন কমিশনকে নানা অভিযোগে অভিযুক্ত করে নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন।তবে শেষতক জয়ের হাসি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আইভী হাসলেও নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক রফিউর রাব্বি এর আগে বেশ কয়েকটি টেলিভিশনে বক্তব্যে বলেছেন, ‘প্রতীক ও দল মূখ্য বিষয় নয়। এখানে ভোটাররা দল ও প্রতীকের চেয়ে ব্যক্তি আইভীকেই বেছে নিবে।

কে কাকে সমর্থন দিল কি দিল না, তাতে আইভীর ভোটে তেমন কোন প্রভাব পরবে না। তার পক্ষে কোন কেন্দ্রীয় নেতা আসলো কি আসলোনা, নারায়ণগঞ্জের ভোটাররা এগুলো কোন বিষয় বিবেচনায় নিবে না।’ একই সুরে মেয়র আইভীও তার প্রচালণাকালে বলেছেন, ‘আমার কাছে দল-মত, ধর্ম-বর্ণ এগুলো কোন বিষয় না। আমি জনগণের সেবক।’-তাই প্রশ্ন উঠেছে, তিনি কি শুধুই ব্যক্তি ইমেজে জয়ী হয়েছেন?

তবে সর্বশেষে, ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৫৭ জন ভোটারের এই সিটি করপোরেশনের ভোটের লড়াইয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট পড়েছে ১ লাখ ৬১ হাজার ২৭৩ টি। অপরদিকে আইভীর প্রধান প্রতিদ্ব›দ্বী তৈমূর আলম খন্দকারের হাতি প্রতীকে ভোট পড়েছে ৯২ হাজার ১৭১টি। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে মোট ভোটারের ৫০ শতাংশ ভোটার ভোটদানে অংশগ্রহন করেছেন।এদিকে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বড় ধরনের কোন সহিংসতা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ হয়েছে বলে দাবি নির্বাচন কমিশনের।

সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলে। এর পর কেন্দ্র কেন্দ্র থেকে ফলাফল পৌছেুঁতে থাকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে। রিটার্নিং কর্মকর্তা একে একে সব কেন্দ্রের ফল ঘোষণা করেন। নির্বাচনে ৫০ শতাংশের বেশী ভোট গ্রহণ হয়েছে বলে জানাযায়।নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়রসহ ৩৭ পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করেন সর্বমোট ১৮৯ জন প্রার্থী। এর মধ্যে মেয়র পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতায় ছিলেন ৭জন, ২৭টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ভোটযুদ্ধে অংশ নেন ১৪৮ জন এবং ৯টি সংরক্ষিত নারী আসনে ৩৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এই সিটি করপোরেশনে মোট ভোটার রয়েছেন ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৫৭ জন।

ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য ১৯২টি ভোটকেন্দ্রে ১ হাজার ৩৯৬টি ভোটকক্ষ স্থাপন করা হয়। ভোটারদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৩৪ এবং নারী ভোটার রয়েছেন ২ লাখ ৫৭ হাজার ৫১৯ জন ও তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছেন ৪ জন।নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতীকে প্রতিন্ধিতা করেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তবে তার একমাত্র প্রধান প্রতিন্ধী হয়ে দাড়ান পদ থেকে অব্যহতি পাওয়া বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হাতি প্রতীকের এ্যাড. তৈমূর আলম খন্দকার।

যদিও মেয়র পদে আরও ৫ প্রার্থী এই নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। তারা হলেন, দেয়ালঘড়ি প্রতীকে খেলাফত মজলিসের এবিএম সিরাজুল মামুন, হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা মো. মাছুম বিল্লাহ, বটগাছ প্রতীকে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. জসীম উদ্দিন, হাতঘড়ি প্রতীকে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মো. রাশেদ ফেরদৌস এবং ঘোড়া প্রথীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম।তবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বচন নিয়ে, হেভিওয়েট দুই প্রার্থীর সন্তুষ্টি-অসন্তুষ্টি ছাপিয়ে খোদ নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার এই নির্বাচন নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে আমি কিছুটা বিস্মিত।

একজন মাননীয় সংসদ সদস্য আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালিয়েছেন। কিন্তু আচরণবিধি লঙ্ঘনের দ্বায়ে তাকে কোন চিঠি পর্যন্ত দেয়া হয়নি। বরং বলা হয়েছে, তিনি আচরণ বিধিলঙ্ঘন করলেও শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেননি। আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বা শাস্তিহীন অপরাধের বিভাজন কোথায় আছে? তাহলে অন্যান্য মাননীয় সংসদ সদস্যদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের দ্বায়ে চিঠি দেওয়া হল কেন?

এসব বিষয় নির্বাচনে নিরপেক্ষতার লক্ষণ নয়। পত্রিকা মতে, নারায়ণগহ্জে তফসিল ঘোষনার পরে কিছু সংখ্যক মানুষ গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে স্ব-শরীরে যোগাযোগ করেও এ সম্পর্কে কোন সংখ্যা জানাযায়নি। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়েও এবিষয়ে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। এমনকি অন্নান্য নির্বাচন কালে সহিংসতায় নিহতদেরও কোন তথ্য নেই।

আমরা এক সময়ে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিশেষত পোলিং এজেন্টদের গ্রেফতার করতে বারণ করেছি। তবে ফৌজদারি মামলা ও তাৎক্ষণিক আমলকৃত অপরাধ হলে সেটা ভিন্ন কথা। আমি নিজে সব সময় গায়েবি মামলার বিরোধিতা করেছি। নির্বাচনকালে গায়েবি মামলার হিরিক পরে যায় কেন, তা এক প্রশ্ন! এই নির্বাচনেও পুরোনো মামলায় গে-ফতার অব্যাহত যা, দুঃখজনক। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন আমাদের কার্যকালের সর্বশেষ সিটি করপোরেশন নির্বাচন।

এটি ছিল আমার অনেক প্রত্যাশার স্থান, কারণ আসি ইতিপূর্বে বলেছি, যার সব ভালো তার সব ভালো। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমি ৪টি কেন্দ্রের ১০টি বুথ পরিদর্শন করি। এই নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য তেমন কোন সংঘর্ষ, সন্ত্রারসর ঘটনা ঘটেনি। এ পর্যন্ত যে কয়টি সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে তার মধ্যে, প্রথম কুমিল্লা সিটি করপোরেশন ও সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন সর্বত্তম। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানাই।’

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ