তৈমূর মাইনাসে মামুনের মিশন সফল

গত বছরের শুরুথেকে জেলা বিএনপির ৭টি থানাসহ ১০টি ইউনিট কমিটি গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ করে আসছিলেন তৃনমুলের নেতারা। তাদের অভিযোগ ছিল জেলার ৭টি থানা কমিটিসহ ১০ ইউনিট কমিটি গঠনে নিজের পছন্দের লোকজনকে কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করার চেষ্টা চলছিল। অবশেষ অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে মাইনাসের মধ্য দিয়ে মিশন সফল হয়েছে মামুন মাহমুদের। কারণ গেল বছরে একাধিকবার বৈঠকে মামুন মাহমুদ বিতর্কিতদের নাম প্রস্তাব করায় সেই কমিটির অনুমোদন দেননি তৈমূর আলম খন্দকার। এমনকি একটি বৈঠক থেকে উঠে বেরিয়েও এসেছিলেন তৈমূর।

বিএনপি দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রূপগঞ্জ থানা বিএনপির সদস্য সচিব মনোনীত বাশির উদ্দিন বাচ্চুর আপন দুই ভাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তিনি গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সরাসরি নৌকা প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। বিএনপির আন্দোলন সংগ্রামেও তিনি ছিলেন নিস্ক্রিয়। সোনারগাঁও থানা বিএনপির সদস্য সচিব মনোনীত মোশারফ হোসেনের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার অভিযোগ রয়েছে। তিনি বিগত দুটি উপজেলা নির্বাচনে সরাসরি নৌকা মার্কার প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়েছেন।

২০১৫ সালে সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মান্নানকে বাদ দিয়ে তখন আওয়ামীলীগ নেতা কালামের পক্ষে মোশারফকে মাঠে কাজ করতে দেখা যায়।সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগ নেত্রীর ছেলে শাহ আলম হীরাকে একই থানা বিএনপির সদস্য সচিব হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে।

দলীয় সূত্র জানায়, শাহ আলম হীরা নিজেও একজন আওয়ামী লীগ কর্মী। তিনি শামীম ওসমান সমর্থক গোষ্ঠীর একজন কর্মী হিসেবে সিরাজ মন্ডলের সঙ্গে কাজ করে থাকেন। এছাড়া তার মা রাশেদা বেগম সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক। ভাই বরকত আলী বাপ্পাও আওয়ামীলীগের নেতা। তার আরেক ভাই খুরশেদ আলম মনা শ্রমিক লীগ ও আন্ত:জেলা ট্রাক চালক সাইলো শাখার যুগ্ম সম্পাদক।

এছাড়াও শাহ আলম হীরার স্ত্রীর বড় ভাই সালাম মাহমুদ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দীর্ঘদিন ধরেই দায়িত্ব পালন করছেন। শাহ আলম হীরাকে সদস্য সচিব করার জন্য লিখিত প্রস্তাব দিয়েছিলেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ। এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় চলছিল বলে জানা গেছে। নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছিল ব্যাপক ক্ষোভ। মামুন মাহমুদের কমিটি বাণিজ্যের ব্যাপারে গেল বছরে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ হয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা মামুন মাহমুদের অপসারণ চেয়ে বিক্ষোভ করেছে।

এদিকে কমিটিতে বিতর্কিতিদের পদায়নের বিষয়ে তৎকালে আহবায়কের সাথে সদস্য সচিবের মতের অমিল দেখা দিয়েছিল। তৎকালে জেলা বিএনপির আহবায়ক ছিলেন সদ্য বহিস্কৃত অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। গেল বছরের ২০২১ সালের ২৬ আগস্ট বিকেলে রাজধানীর হোটেল ৭১ এ কমিটি গঠনকল্পে চলমান বৈঠকে বিতর্কিতদের পদায়নের বিরোধীতা করেন তৈমূর। তিনি বৈঠক ছেড়ে উঠে আসলে আহ্বায়ক কমিটি অধিকাংশ সদস্য তার সাথে সাথে বৈঠক ছেড়ে চলে আসেন। এতে করে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের সঙ্গে বিরোধ প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছিল অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের। সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের সঙ্গে বিরোধ প্রকাশ্যে রূপ নেয়ার ঘটনার তখন তৈমূর আলম খন্দকার বলেছিলেন, তারা চেয়েছে বিছিন্ন ভাবে কমিটি গঠন হোক। আমি চাই একই দিনে একই টেবিলে কমিটি গঠন হবে। এতে করে কোন বিতর্কিত লোকজন কমিটিতে স্থান পাবে না।

এদিকে কমিটিতে বিতর্কিত লোকজনের নাম প্রস্তাব করায় শেষ পর্যন্ত কমিটির অনুমোদন দেননি অ্যাডভোকেট তৈমূর। তবে তৈমূর আলম খন্দকারকে বিএনপি থেকে বহিস্কারের পাশাপাশি কারাবন্দী ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক মনিরুল ইসলাম রবির স্থলে নতুন ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে নাসিরউদ্দিনকে। এতে করে শেষ পর্যন্ত বিতর্কিতদের পদায়নের বিষয়ে মামুন মাহমুদের মিশন সফল হয়েছে বলে মনে করছেন দলটির তৃনমূলের নেতাকর্মীরা। অবশেষে বিতর্কিতদের পদায়নের মাধ্যমেই নারায়ণগঞ্জে বিএনপির ৫টি থানা ও ৫টি পৌরসভায় ৩১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। জেলার ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক নাসিরউদ্দিন ও সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ এ কমিটির অনুমোদন দেন।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামুন মাহমুদ। এর আগে বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) রাতে কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।কমিটিতে রূপগঞ্জ থানায় মাহফুজুর রহমান হুমায়ুনকে আহ্বায়ক ও বাশির উদ্দিন বাচ্চুকে সদস্য সচিব, সোনারগাঁও থানায় আজহারুল ইসলাম মান্নানকে আহ্বায়ক ও মোশারফ হোসেনকে সদস্য সচিব, আড়াইহাজারে ইউসুফ আলী মেম্বারকে আহ্বায়ক ও জুয়েল আহমেদকে সদস্য সচিব, সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আব্দুল হাই রাজুকে আহ্বায়ক ও শাহ আলম হীরাকে সদস্য সচিব, ফতুল্লায় থানায় জাহিদ হাসান রোজেলকে আহ্বায়ক ও শহিদুল ইসলাম টিটুকে সদস্য সচিব, সোনারগাঁও পৌরসভায় শাহজাহান মেম্বারকে আহ্বায়ক, কাউন্সিলর মোতালেব হোসেনকে সদস্য সচিব, কাঞ্চন পৌরসভায় মজিবর রহমান ভুঁইয়াকে আহ্বায়ক ও হামিদুল হক খানকে সদস্য সচিব, তারাব পৌরসভায় নাসিরউদ্দিনকে (জেলার ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক) আহ্বায়ক ও জাকির হোসেন রিপনকে সদস্য সচিব, গোপালদী পৌরসভায় সামসুল হক মোল্লাকে আহ্বায়ক ও মুশফিকুর রহমান মিলনকে সদস্য সচিব, আড়াইহাজার পৌরসভার মো. রূপচান মিয়াকে আহ্বায়ক ও সালাহউদ্দিন আহমেদ ডালিমকে সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ বলেন, আমরা কমিটি অনুমোদন করেছি সবাইকে সমন্বয় করে। কাউকে বাদ দেয়া হয়নি। প্রতিটি কমিটিই ৩১ সদস্য বিশিষ্ট।ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক নাসিরউদ্দিন বলেন, আমরা দায়িত্ব পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় নির্দেশে দ্রæততম সময়ে তিন দিনের মধ্যে কমিটি অনুমোদন করতে পেরেছি। এটা আমাদের সফলতা বলে আমি মনে করি। আশা করছি কমিটি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে।উল্লেখ্য গেল বছরের পহেলা জানুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে আহ্বায়ক এবং মামুন মাহমুদকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৪১ সদস্যবিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ