বক্তব্যের ব্যাখ্যায় দেলোয়ার চেয়ারম্যানের বিবৃতি

- Advertisement -

‘সকল দলের নেতাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা রয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে আমি উন্নয়নে বিশ্বাসী। এজন্য সরকারের ও আমাদের এলাকার সংসদ সদস্যের সহযোগি হিসেবে স্থানীয়দের উন্নয়নে রাজনীতি করি। আমি উন্নয়নকে শ্রদ্ধা করি। তাই, কোথাও কোন রকম আমার বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সম্মানহানীকর কিছু থাকার সুযোগ নেই। আপনারা আমার কথায় কষ্ট পেয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’ এমনটা জানিয়ে এক বিবৃতি দিয়েছেন বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারী বন্দরের একটি ঘুড়ি উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রেখেছিলেন চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান। ইতোমধ্যে তার ওই দিনের বক্তব্যের একটি অংশ সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে সমালোচনার মুখে পড়ে, স্থানীয় গণমাধ্যমে এ নিয়ে সংবাদও প্রকাশ হয়েছে। এসব কিছুর প্রেক্ষাপটে চেয়াম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ওই বিবৃতি প্রদান করেন।

বিবৃতিতে চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কণ্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য ধারা ঠিক রেখে, বাংলাদেশের হারিয়ে যাওয়া খেলাগুলো তরুন সমাজে উজ্জীবিত করার লক্ষ্যে গত ১৪ ফেব্রুয়ারী ঘুড়ি উৎসবে প্রধান অতিথি হয়ে যাই। সেখানে আমি প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কিছু কথা বলেছি, প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের কথা বলেছি। সেই দিনের বক্তব্য অনেকেই রেকর্ড করেছে, আমার সেই বক্তব্য কোড করে আওয়ামী লীগকে ছোট করার জন্য, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য আমার বক্তব্যকে কেউ কেউ খন্ডিত ভাবে প্রকাশ করেছে। আমি সেদিন বলেছিলাম, উন্নয়নের উদ্দেশ্য। প্রধানমন্ত্রী উন্নয়ন করার জন্য কোন বিরোধী দলের কথা বা দলের চিন্তা করে উন্নয়ণ করে না, জনগণের কথা মাথায় রেখে জনগণের স্বার্থে তিনি উন্নয়ণ করেন। আমিও সেদিন সেই ধারাবাহিক বক্তব্য দিয়েছিলাম।

তিনি আরও জানান, আমি সেদিন বলেছিলাম ‘আমি ভিন্নমতের মানুষ, ভিন্ন দলের মার্কা নিয়ে নির্বাচন করি। কিন্তু আমি উন্নয়ণকে শ্রদ্ধা করি, এই সরকারকে শ্রদ্ধা করি। আমি দোয়া করি আল্লাহ প্রধানমন্ত্রীকে আরও হায়াৎ দান করুক। আমি শেখ হাসিনাকে চিনি না, আমি বঙ্গবন্ধুকে চিনি না, আমি খালেদা জিয়াকে চিনি না, আমি তারেক জিয়াকে চিনি না।’ আমার এই বক্তব্য ছিলো উন্নয়নের স্বার্থে। যে মানুষের জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না, যে মানুষ জন্ম না নিলে আমরা সোনার বাংলা পেতাম না। তার বিরুদ্ধে অবজ্ঞা করে বক্তব্য দেয়ার কোন প্রশ্নই উঠে না। আমার মূল মেসেজ ছিলো, আমি জনগনের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। তাই উন্নয়ণ করার স্বার্থে আমি কোন দলের না, দলমত নির্বিশেষে আমি মানুষের হয়ে তাদের সেবা করতে চাই।

চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন আরও জানান, ওসমান পরিবারের বাড়িতেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জন্ম। আর আমাদের নেতা সেই ওসমান পরিবারের। ওসমান পরিবারের সদস্যরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আদর্শের সৈনিক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ওসমান পরিবার উন্নয়ন করে, আর আমি সেই পরিবারের নির্দেশনা নিয়ে উন্নয়ন করি। অতএব এখানে স্পষ্ট যে, আমি যে পরিবারের নির্দেশনা মানি সেটা বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার নির্দেশনা। কিন্তু আমার এই কথাকে ভিন্ন দিকে ঘুরিয়ে নিয়ে আওয়ামী লীগকে ছোট করার জন্য বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়েছে। আমি তাদের উদ্দেশ্য বলবো, আপনারা দয়া করে আমার সঠিক মেসেজটা জনগণের কাছে পৌঁছান। আপনারা আমার কথায় কষ্ট পেয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আপনারা সঠিকটা প্রকাশ করবেন, এটাই আমার আপনাদের কাছে চাওয়া।

তিনি জানান, আমি এখনো বলি, আমি মানুষের ভোটে নির্বাচিত গোলাম। আমি মানুষের সেবা করার জন্য কোন দলকে চিনবো না। আমি কোন দলের হয়ে সেবা করবো না। আমি মানুষের গোলাম হয়ে, মানুষের সেবা করতে চাই। আমি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনপ্রতিনিধি হয়েছি, অতএব এই সোনার বাংলা গড়ায় আমার যে অবদান থাকবে, সেটি আমি পবিত্রতার সাথে, সৎ ভাবে কাজ করতে চাই। আমার কথায় যদি কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন তাহলে অনুরোধ থাকবে, আপনারা আমাকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page