শিল্প উদ্যোক্তা রাজীবের প্রচেষ্টায় মায়ের কোলে ফিরলো শিশু মায়া

- Advertisement -

বিকেল সাড়ে ৫টা। ইসদাইর বুড়া-বুড়ির হোটেলের সামনে দাঁড়িয়ে কাঁদছিল ৫ বছরের শিশু মায়া। লোকজনের প্রচুর ভিড়। কেউ শিশুটির কান্না থামাতে পারছিল না। এমন সময় ইফতার নিয়ে বাড়িতে ফেরার পথে শিশুটিকে দেখতে পান আজাদ-রিফাত গ্রুপের পরিচালক তাজুল ইসলাম রাজীব। লোকজনের ভিড় দেখে তিনি শিশুটিকে নিজ বাসায় নিয়ে আসেন। এরপর খোঁজ শুরু করেন শিশুটির বাবা-মায়ের।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কয়েকটি গ্রুপে দেয়া হয় পোস্ট।

এদিকে, প্রিয় সন্তানকে হারিয়ে ৪ ঘন্টার খোঁজা খুজিতে পাগল প্রায় বাবা সেলিম ও মা জুয়েলা আক্তার। ফতুল্লার কাস্টমসের মোড় এলাকায় বাস করা সেলিম মিয়া সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করেও যখন শিশু সন্তানের খোঁজ পাচ্ছিলেন না, তখন প্রস্তুতি নেন মাইকিং করে পুরো এলাকায় প্রচারের। এমন সময় আজাদ-রিফাত গ্রুপের এক সিকিউরিটির মাধ্যমে জানতে পারেন, একটি শিশু পাওয়া গেছে ইসদাইরে। যাকে রাখা হয়েছে আজাদ-রিফাত গ্রুপের মালিকের বাসায়। সাথে সাথে সেলিম মিয়া কন্যার খোঁজে চলে আসেন ইসদাইর রসূলবাগে। নিজ কন্যাকে কাছে পেয়ে কেঁদে উঠেন তিনি।

শিশুটির সন্ধান পাওয়া আজাদ-রিফাত গ্রুপের পরিচালক তাজুল ইসলাম রাজীব শিশুটিকে তার বাবার হাতে তুলে দেয়ার আগে জন্ম নিবন্ধন, বাবা-মায়ের পরিচয় পত্র ও মা’কে সঙ্গে নিয়ে আসতে বলেন। রাত সাড়ে ৮টায় পরিচয় পত্র নিয়ে আসার পর শিশুটিকে তার পরিবারের হাতে তুলে দেয়া হয়। প্রায় ৬ ঘন্টা পর নিজ কন্যাকে কাছে পেয়ে কেঁদে উঠেন মা জুয়েলা আক্তার। বলেন, আমরা সবাই ঘুমিয়ে ছিলাম। এরমধ্যে আমার মেয়ে ঘর থেকে বেড়িয়ে যায়। সাথে সাথেই তাকে খোঁজ করেছি। কিন্তু কোথাও পাইনি।

মোতালেব মনোয়ারা ডাইংয়ে চাকরী করা শিশুটির পিতা সেলিম মিয়া বলেন, নাইট ডিউটি শেষ করে ঘুমিয়ে ছিলাম। আমার পাশেই ছিল আমার মেয়ে। দুপুর ২টায় ঘুম থেকে উঠে আমি বাইরে যাই। এরমধ্যে মায়া বাসা থেকে নিখোঁজ হয়। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করি। হঠাৎ করেই সন্ধ্যায় আজাদ-রিফাত গ্রুপের এক সিকিউরিটির মাধ্যমে খবর পাই মায়াকে পাওয়া গেছে ইসদাইরে। এখানে এসে আমি আমার মেয়েকে পেলাম।

শিশুটির সন্ধান পাওয়া তাজুল ইসলাম রাজীব বলেন, ইফতার কিনে বাসায় ফেরার পথে বুড়া-বুড়ি হোটেলের সামনে অনেক মানুষের ভিড় দেখি। মায়া নামের শিশুটি তখন কাঁদছিল। ইফতারের সময় ঘনিয়ে এসেছে। আমি তাকে আমার সাথে করে বাসায় নিয়ে আসি। ও শুধু ওর নাম আর বাবার নাম বলতে পারছিল। আর কিছুই বলতে পারছিল না। পরে ফেসবুক গ্রুপ ‘রসূলবাগ যুব সংগঠন’ এ একটি পোস্ট দেয়া হয় শিশু মায়ার ছবিসহ। সেটা দেখেই তারা আমার সাথে যোগাযোগ করে। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া যে, শিশুটিকে তার বাবা-মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে পেরেছি।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page