৮ বছরে রায় কার্যকর না হওয়ায় হতাশ সাখাওয়াত

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ সহ সারাদেশের আলোচিত ৭ খুনের বিচারের রায় কার্যকর না হওয়াতে চরম ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেছেন বাদী পক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন খান। ২৭ এপ্রিল এপ্রিল ওই সাত খুনের ৮ বছর পূর্ণ হলেও সরকারের সদিচ্ছার কারণেই মামলাটি ধীরগতিতে রয়েছে অভিযোগ করেন তিনি।

সাখাওয়াত হোসেন খান এ বিষয়ে বলেন, এই সাত খুনের ঘটনার পর থেকেই সরকার চাইছিল প্রকৃত খুনীদের প্রকাশ না হোক। র‌্যাব এবং সরকারি দলের লোকদের রক্ষা করার একটা প্রচেষ্টা ছিল। তারপরেও জনগণ এবং আইনজীবীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আন্দোলন সংগ্রামের কারণে এবং সুপ্রিম কোর্টের সময় উপযোগি সিদ্ধান্তের কারণে এবং ওই সময়ের ভাল এসপি ড. মহিদ উদ্দিনের কারণে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হয় এবং ঘটনা প্রকাশিত হয়। সেই সাথে আমরা একজন বিচারক পেয়েছিলাম। যার কারণে এই ঘটনার বিচার হয়েছে এবং সুন্দর রায় হয়েছে। এই রায়ই ছিল প্রকৃত রায়।

সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, নারায়ণগঞ্জ আদালতে রায়ের পর সেই রায়ের বিরুদ্ধে আসামী পক্ষ আপিল করে। আপিল করার পর ওই সময়ে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা এ বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন যার কারণে আপিল হাইকোর্টে দ্রুত নিস্পত্তি হয়েছে। নিস্পত্তি হওয়ার পর আমরা আশা করেছিলাম অ্যাপিলেট ডিভিশন এই মামলার গুরুত্ব বিবেচনা করে সরকার শুনানীর ব্যবস্থা করবে। কিন্তু আমরা নারায়ণগঞ্জের আইনজীবীরা হতাশ। দীর্ঘদিন হয়ে যাচ্ছে কিন্তু অ্যাপিলেট ডিভিশনে শুনানীর কোনো সুযোগ হচ্ছে না। আমি মনে করি এখানে সরকারের অনিচ্ছার কারণেই হচ্ছে না। আমার দাবী থাকবে দ্রুত যেন আপিল নিস্পত্তি হয় এবং দ্রুত আসামীর রায় যেন কার্যকর হয়।

তিনি আরও বলেন, নিহতদের পরিবারের সদস্যরা খুব খারাপ অবস্থায় রয়েছে। রাষ্ট্রের একটি বাহিনীর দ্বারা পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। এই হত্যাকান্ডের কারণে পরিবারগুলো নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। আমরা আশা করেছিলাম সরকার তাদের পাশে দাঁড়াবে এবং তাদেরকে পর্যাপ্ত সাহায্য সহযোগিতা করবে। আমরা সে ধরণের কোনো উদ্যোগ দেখিনি। অনেক পরিবার আছে যেমন চন্দন সরকারের ড্রাইভারের পরিবার। এই পরিবারটি একেবারে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। এইসব কারণে আমি মনে করি যেহেতু এই সরকারের একটি বিভাগের লোকজন এই ঘটনার সাথে জড়িত তাদের পরিবারকে পর্যাপ্ত সহযোগিতা করা উচিত।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোড থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ সাতজন অপহৃত হন। ৩০ ও ৩১ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাঁদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় হওয়া মামলায় জেলা ও দায়রা জজ আদালত নূর হোসেন, র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ২৬ জনকে মৃত্যুদন্ড প্রদান করেছেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page