ঢাকারবিবার , ১৬ অক্টোবর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

ভাসমান দোকানিদের দখলে নাসিম ওসমান সেতু!

আবু বকর সিদ্দিক
অক্টোবর ১৬, ২০২২ ৫:৩২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শিল্প অধ্যুষিত এলাকায় দৃষ্টিনন্দন সেতু। এক নজর দেখতে প্রতি বিকালেই জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুঁটে আসছেন পরিবার-পরিজন নিয়ে। সেই ভীড়কে ঘিরে এখন অর্ধশত পসরা বসেছে ব্রীজের উপর। তাই ফুটপাত ছেড়ে লোকজন চলে এসেছে পরিবহন চলাচলের রাস্তায়।
ব্রীজের ব্যবহারকারীরা বলছেন, ‘মূল সড়কের উপর এমন পসরার কারণে যে কোন দিন ভয়াবহ দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।’
উদ্বোধনের ৭ দিন না যেতেই এমন চিত্র নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম নাসিম ওসমান সেতুর। তারপরেও পুলিশ বলছেন ‘অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিবেন’।
৬১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই সেতুটি গত ১০ অক্টোবর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ১৪ অক্টোবর সেতুটি দেখতে যান এই প্রতিবেদক। মাঝে মাত্র ৫ দিনে সেতুর দু’তীরে ৫৩টি ভাসমান দোকান চোখে পড়েছে।  আর এসব দোকান ঘিরে রয়েছে হকারদের ব্যস্ততা। ছোট ছোট দোকান, পণ্যসামগ্রী আর হকারদের ঠেলে ভোগান্তি নিয়েই গন্তব্যে পৌঁছতে ছুটছে যানবাহন চালক ও পথচারীরা। তার উপর উড়তি বয়সের ছেলেদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চলাচলে অনেকটাই আঙ্কিত পরিস্থিতিতে থাকতে হয় ব্রিজে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীদের।
সচেতন মহলের মতে, প্রশাসন দ্রত এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। তা না হলে যে কোন সময় বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,  শীতলক্ষ্যার পশ্চিম পাড়ে সৈয়দপুরের অংশে ব্রিজের দক্ষিণ পাশের ধীর গতির যান চলাচলের লেনে প্রায় সাড়ে ১৫ ফুট জায়গা দল করে ভাসমান ৩টি হালিমের দোকান বসানো হয়েছে, এর পাশেই একটি ভ্যানে করে নানান রকমের আচারের পসরা সাজিয়ে বসেছে আরও একজন, এর তিন চার ফুট এগিয়ে যেতেই চোখে পড়ে একটি ভ্যানে দেশি ফল আমরা ও আনারস বিক্রেতাকে, ঠিক তাঁর ভ্যান ঘেঁষে আরও একটি ভ্যানে করে আখ বিক্রি করছেন অন্য এক বিক্রেতা। তার থেকে প্রায় ২৫ গজ দূরে ৩ ফুটের একটি দুই চাকার আয়না ওয়ালায় পপকন বিক্রি করছেন এক যুবক। তার পাশ ঘেঁষেই ব্রিজির উপর ছালার চটে বাচ্চাদের জন্য খেলনা সাজিয়ে বসেছে এক বিক্রেতা। সাথেই হাতে বেলুন নিয়ে ফেরি করে বিক্রি করছেন আরও একজন। পাশে লাইন দিয়ে এক সাথে বসানো হয়েছে ৫ টি চটপটির দোকান। আর এসব দোকানে চটপটি খেতে ভিড় জমিয়েছিলো অনেক মানুষ। পায়ে হেঁটে ব্রিজের ঠিক মাঝে আসার পর যে দৃশ্য দেখা যায়, তা দেখে মনে হলো এখানে রিতিমত মেলা বসেছে। অসংখ্য মোটরসাইকেল, ইজিবাইক-মিশুক, ব্যাক্তিগত গাড়িসহ প্রায় ৫০টি যানবাহন থামিয়ে রাখা হয়েছে ব্রিজের দুই পাশের মূল লেনে। এতে ২ পাশের মূল লেনের প্রায় ৪০ ফুট জায়গা জুড়ে ব্রিজের অর্ধেক অংশে ঠিক মতো যান চলাচল করতে পারছে না। এছাড়া পুরো ব্রিজের দুই পাশ জুড়ে ছিলো  ভ্যান ও বড় গামলায় করে ২১ টি ঝাল মুড়ির দোকান, তার মধ্যে দক্ষিন পাশে রয়েছে ১৭ টি ও বাকি ৪ টি বসেছিলো উত্তর পাশে। অন্যদিকে নদীর উপরে ব্রিজের মাঝখানে আসতেই দেখা যায় আরও দু’টি ভ্যানে আচারের দোকান, আর এই আচার কিনতে ভির করেছে অনেক মানুষ। ফলে সেখানে গাড়িতো দূরের কথা হাঁটার জায়গাও নেই বললেই চলে। এর কিছুটা এগিয়ে যেতেই নজরে আসে, প্রায় ৮ ফুট যায়গা দখল করে দু’টি ভ্যানে করে আমড়া ও আনারস বিক্রি করছেন আরও ২ ব্যাক্তি। এছাড়া ব্রিজের দুই পাশ মিলিয়ে সরবতের দোকার রয়েছে ৫টি।
ব্রিজের পূর্ব প্রান্তে বন্দরের অংশে দেখা যায়, ব্রিজের দায়িত্বে থাকা একজন আনসার সদস্য চেয়ারে বসে আছেন টিনের তৈরি একটি ছোট্ট ঘরে, আর তার ঠিক সামনেই ২টি ভ্যানে আখ, বাদাম-বুট বিক্রি করছেন দুই জন। এর উল্টো দিকে ভ্যানে করে ব্রিজের দক্ষিন পাশের মূল লেনে ৩ টি ও ধীরগতির লেনে আরও ১টি ভ্যানে বাদাম-বুট বিক্রি করছেন বিক্রেতা। একটু সামনে দু’টি  ঠেলায় করে পপকন ও তার পাশে আরও একটি ভ্যানে চা রুটি ও কলার দোকান বসিয়েছে এক যুবক। এছাড়া পুড়ো ব্রীজের দুই পাশ মিলিয়ে বসেছে ৫ টি আইসক্রিমের দোকান। এমনিতেই এইসব দোকানগুলোর কারণে ব্রিজের প্রায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ ফুট লেন ভাসমান দোকানিদের দখলে চলে গেছে, তার উপর আবার শতশত মানুষের ঢল। এসব দোকানের সামনে ও মূল লেনে দারিয়ে অনেকে আবার  সেলফি ও ছবি তুলছে। এমনিতেই মানুষের ভিরে যান চলা-চলে কিছুটা ব্যাগাত ঘটলেও ভাসমান দোকান এখন এ ব্রীজের মূল বিশ ফোড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। তার উপর উড়তি বয়সের ছেলেদের বেপরোয়া মোটর সাইকেলের গতির কারণেও যে কোন সময় ঘটতে পারে প্রাণহানির মত অপ্রত্যশিত ঘটনা।
সেতুতে ঘুরতে আসা রানু নামে এক দর্শনার্থী বলেন, আজ ছুটির দিন (শুক্রবার) থাকায় পুরো পরিবার নিয়ে সেতুতে ঘুরতে এসছিলাম। কিন্তু ভাসমান দোকানের জন্য ঠিক মত হাঁটতে পারছি না। তার উপর বেপরোয়া গতির মোটরসাইকেলের ভয়। তাই ব্রিজের ওই প্রান্তে ( পশ্চিম) যাওয়ার ইচ্ছা থাকলেও কখন যে মোটরসাইকেল গায়ের উপর উঠে যায় এই ভয়ে ছেলে মেয়ে নিয়ে এখানেই দাঁড়িয়ে আছি।
মাইক্রো চালক আক্তার হোসেন বলেন, বির মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান সেতু  হওয়াতে আমাদের অনেক সুভিধা হয়েছে। কিন্তু সেতুর উপর এসব ভাসমান দোকানের জন্য ঠিক মতো গাড়ি চালানো যায় না। তার উপর সেতুর মাঝে অকে জায়গা জুরে বিভিন্ন যানবাহন পার্কিং করে রাখায় ব্রিজ পার হতে অনেক বেগ পেতে হয়েছে।
এব্যাপারে বন্দর থানা অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, ব্রিজে (বির মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান সেতু) প্রতিদিন আমাদের টহল টিম কাজ করছে। ব্রিজে ভাসমান দোকন বা কেউ যদি বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চালায়, তা হেলে প্রয়জনে তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইনি ব্যবস্থা নিব।
অন্যদিকে, নারায়ণগঞ্জ সদর থানা অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) আনিচুর রহমান বলেন, আমাদের কাছে এমন কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আমরা ব্যাবস্থা নিবো।
নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, ‘এ বিষয়ে ডিসি অফিসের আমাদের মিটিং হয়েছে, অতি দ্রুত আমরা উচ্ছেদের কাজ শুরু করবো।’

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।