জেলা পুলিশের অভিযানে

পাসপোর্ট দালাল চক্রের ১৬ সদস্য আটক

নারায়ণগঞ্জের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসকে ঘিরে গড়ে ওঠা দালাল চক্রের ১৬ স্বক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। দীর্ঘদিন গোয়েন্দা নজরদারির পর জনসাধারণের সাথে প্রতারণা করা এই দালাল চক্রটিকে আইনের আওতায় আনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ।বুধবার (১৯ অক্টোবর) বেলা ১২ টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অপারেশন) মো. আমীর খসরু। ফতুল্লা থানাধীন শান্তিধারা ও রঘুনাতপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।আটককৃতরা হলেন- আড়াইহাজারের রাম চন্দ্র চক্রবর্তীর ছেলে সুমন চক্রবর্তী (৪৩), সোনারগাঁয়ের সুমন্ত রায়ের ছেলে দীপক রায় (৩৮), ফেনী জেলার পশুরাম থানার ওমান মজুমদারের ছেলে সাদ্দাম হোসেন মামুন (২৫), কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মো. কামাল হোসেন (৩৪), মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী থানার মো. আবুল হোসেনের ছেলে মো. আলমগীর হোসেন (৪৩), নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার মো. হোসেন পাটয়ারীর ছেলে মো. ইয়াসিন আরাফাত (৩২), লক্ষিপুর জেলার রায়পুর থানার কবির হোসেনের ছেলে মো. ইয়াসিন রানা (২৮), শরিয়তপুরের পালং থানার খালেক সরদারের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫), নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার হাবিবুর রহমানের ছেলে হাসিবুল হাসান শান্ত (২৫), ফতুল্লা থানার শহিদুল ইসলাম খোকনের ছেলে ইমরান হোসেন শান্ত (২০), একই থানার মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে রবিউস সানি (২২), আব্দুল গফুরের ছেলে মো. গোলাম রাব্বি (২৭), মো. সেকান্দার আলীর ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম (২৯), বন্দর থানাধীন নবীগঞ্জের জামানের ছেলে সিফাত হোসেন (২৯), সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাকের লিটন মিয়ার ছেলে রাব্বি সালাম লিমন (২৮) ও বন্দরের আলীনগর এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে আল-আমিন (৪০)।এসময় তাদের হেফজতে মোট ১১৪টি পাসপোর্ট, ১৪টি বিভিন্ন অবৈধ সিল, ৬৪টি স্ট্যাম্প জালিয়াতির কপি ও নগদ বিশ হাজার টাকা (২০,০০০/-) জব্দ করা হয়।সংবাদ সম্মেলনে আমীর খসরু বলেন, নারায়ণগঞ্জের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকটি দালাল চক্র গড়ে ওঠেছে এমন খবরের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) বেশ কিছু দিন ধরে গোয়েন্দা তৎপরতা চালায়। পরে গত মঙ্গলবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে ডিবির অভিযানে পৃথক দু’টি এলাকায় অভিযানে যায় ডিবি পুলিশ। আটক হওয়া দালাল চক্রের সদস্যরা সরকার নির্ধারিত ফি এর পরিবর্তে কয়েকগুণ বেশি ফি আদায় করেন। তিনি বলেন, এমনকি তারা সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের জাল কাগজ তৈরী করে পাসপোর্ট তৈরী করে সরকার ও জনসাধারণের সাথে প্রতারণা করে আসছিল। এই চক্রটি থানার জিডির কাজে জাল জালিয়াতি করে আসছে। অর্থাৎ থানায় জিডির পরিবর্তে তারারয় জাল জিডির কাগজ তৈরী করে দিত। বিভিন্ন কর্মকর্তার সীল জালীয়াতি করে তারা কাগজ তৈরী ও সত্যায়িতের কাজ করতো বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যভস্থা প্রকৃয়াধীন রয়েছে।দালালচক্রের সাথে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সংশ্লিষ্টতা ছাড়া এসব কাজ করা সম্ভব নয়। গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, দালালদের সাথে যদি কোন কর্মকর্তার যোগসূত্রতা মিলে তবে অবশ্যই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) মো. তরিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক-অঞ্চল) মোহাম্মদ নাজমুল হাসান, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান ও গণমাধ্যমকর্মীরা।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ