নাসিক ৭ নং ওয়ার্ডের

দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সোহেল ও সালাউদ্দিন গ্রেপ্তার

সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিক ৭নং ওয়ার্ডের আদমজী কদমতলী এলাকার ত্রাস, দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও এলাকাবাসীর আতংক মাজহারুল ইসলাম ওরফে সোহেল ( ৩০) ও সালাউদ্দিন (৩৬) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৬) দিবাগত রাতে পুলিশের বিশেষ অভিযানে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা উভয়ে একটি চাঁদাবাজি মামলার গ্রেপ্তারী পরোয়ানাভুক্ত আসামি। গ্রেপ্তারকৃত সোহেলের ভাই অপর সন্ত্র্রাসী চাঁদাবাজ রাসেলও এ চাঁদাবাজি মামলার আসামি। রাসেলের বিরুদ্ধে মারামারি, চাঁদাবাজি ও নাশকতাসহ সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় এক ডজনের বেশি মামলা রয়েছে। সোহেলের বিরুদ্ধেও একাধিক মামলা আদালতে বিচারাধিন রয়েছে বলে থানা পুলিশের একটি সূত্র নিশ্চিত করেন। গ্রেপ্তারকৃত মাজহারুল ইসলাম ওরফে সোহেল কদমতলী এলাকার বিএনপি নেতা মরহুম আব্দুল করিমের ছেলে আর সালাউদ্দিন একই এলাকার কসাই আব্দুলের ছেলে। বুধবার তাদের আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। জানা গেছে, ৫ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে গত ১০ জুন সন্ধ্যায় ডিস ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর খানের অফিসে হামলা, মারধর ও নগদ ১ লাখ ১২ হাজার ৫০০ টাকা লুট করার অভিযোগে ১৩ জুন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা হয় সোহেল তার ভাই রাসেল ও সালাউদ্দিনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে। মামলার বাদী জাহাঙ্গীরের অভিযোগ, সোহেল ও সালাউদ্দিনকে পুলিশ আদালতে পাঠানোর পর আদালত প্রাঙ্গনেই তাকে বিভিন্ন হুমকি দেয় চাঁদাবাজ রাসেল। তাদের জামিনে বের করার পর দেখে নিবে বলে শাসায়। এতে চরম আতঙ্কবোধ করছেন মামলার বাদী জাহাঙ্গীর ও তার পরিবার। এলাকাবাসী জানায়, সোহেল ও সালাউদ্দিন গ্রেপ্তার হওয়ায় এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। বিএনপি নেতা আব্দুল করিম মারা যাওয়ার পর তার দুই ছেলে সোহেল ও রাসেল বেপরোয়া হয়ে উঠে। তারা একটি দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তুলে মাদক, দখল বেদখল, চাঁদাবাজিসহ নানা সন্ত্রাসী ও অপরাধ কর্মকান্ড শুরু করে বীর দর্পে।এ সময় এলাকাবাসী সন্ত্রাসী, শীর্ষ চাঁদাবাজ ও বিভিন্ন অপরাধ চক্রের হোতা অধরা রাসেল ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে আরো বলেন, এ সংঘবদ্ধ অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হউক যাতে আর কেউ এ ধরণের সন্ত্রাসী. চাঁদাবাজি ও অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িত হতে সাহস না পায়।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ