গোগনগরে ৫০ পরিবারকে সেলাই মেশিনে উপহার দিলেন লিপি ওসমান

গোগনগরে ৫০ পরিবার পেল সেলাই মেশিন লাইভ নারায়ণগঞ্জ: গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজর আলীর উদ্যোগে, দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের কর্মসংস্থানের জন্য ৫০টি সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার (২৭ নভেম্বর) বিকাল ৩টায় গোগনগরে বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের অডিটরিয়ামে ওই সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়।গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজর আলীর সভাপতিত্বে এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আলিরটেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, , আওয়ামী লীগ নেতা মামুনুর রশিদ, জেলা মহিলা লীগের সভাপতি শিরিন বেগম, সৈয়দপুর বঙ্গবন্ধু উচ্চ-বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য নাজির হোসেন, প্রধান শিক্ষক তোফায়েল আহম্মেদ প্রমুখ।নারায়ণগঞ্জ মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপি বলেন, আজকে শেলাই মেশিন যে সৎ নিয়তে আপনার কাছে বিতরণ করা হচ্ছে, আল্লাহ যাতে তার সেই দোয়া কবুল করেন। আল্লাহ যাতে উনার এই দান কবুল করে। বিভিন্ন সভা সমাবেশে যেতে হয়। আমার বেশীর ভাগ সভা-সমাবেশ হয় নারীদের সাথে। আমার অন্তরে যেটা আছে আমি নারী হিসেবে সেটাই আপনাদের সামনে উপস্থাপন করি। নারী যখন কণ্যা তখন সে রহমত, সে যখন বোন তখন সে নেয়াতম, নারী যখন স্ত্রী তখন সে আমানত আর যখন একজন নারী মা তখন সে জান্নাত। সৃষ্টিকর্তা আমাদের যে সম্মান দিয়েছে আমরা যাতে সেটা ধরে রাখতে পারি সব দিক থেকে।তিনি আরও বলেন, আমরা ধর্ম মানব বলি, কিন্তু একটাবার কি যেতে চাই ধর্মের ভেতরে, আসলে ধর্ম আমাদের কি বলতে চাচ্ছে? আমি চেষ্টা করি প্রতিবছর কোরআন শরীফের বাংলা অর্থ খতম দেয়া। বুঝতে চেষ্টা করি। কারণ আল্লাহ নিজেই বলেছে ৬০ ভাগ বুঝতে পারবে ৪০ ভাগ বুঝতে পারবে না। কখনো হতাশ হবেন না। আয়নার সামনে গিয়ে যাকে দেখবেন, সেই আপনার সমস্যার সমাধান করতে পারবে। একটা সেলাই মেশিন আপনার ভাগ্য পরিবর্তন করে দিতে পারবে না। আল্লাহ সবাইকে পরিক্ষা করেন। যার যার জায়গা থেকে। যে মনের মধ্যে সৃষ্টিকর্ত বসবাস করে সেই মনটা ঠিক আছে কিনা দেখুন।লিপি ওসমান বলেন, ইলেকশনের মধ্যে হার জিত সব জায়গাতেই আছে। দেশে কেনো থাকতে দেয়া হবে না? দেশে আসলে কে হত্যা করা হবে। শামীম সাহেব প্রায় একটা মাজারে যেতেন, কোলকাতায় সেই মাজার। একজন বয়ষ্ক মানুষ উনাকে বাবা বলে ডাকতেন। তিনি অনেক ধার্মিক মানুষ, একদম লোভ লালসার উর্ধে। উনার সম্বল ছিলো কিছু জামা কাপড়। কিছু দিতে চাইলেও নিতেন না। উনি একদিন আমার মাথায় হাত রেখে বলেছেন, ‘বেটি জিতনে খুশ রাহোগে, উতনা খুশ রাখেগা’। এর মানে হলো আল্লাহর খুশির যত শুকরানা আদায় করবা আল্লাহ তোমাকে ততটা খুশি রাখবে। অবশ্য সে মারা গেছেন। কিন্তু সে আমার অন্তরে রয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, ভোট দিবেন আপনার স্বার্থে, ভোট আপনার অধিকার। কেনো দিবেন, আপনার দেশের জন্য। আর যদি সেই ভোটটা একটা ভুল মানুষের কাছে গিয়ে পড়ে। তাহলে সে আমাদের সিদ্ধান্তে আমাদের নেতা হয়ে আসবে। সে তো ভুল নেতৃত্ব দিবেই। এতো বছর পরও যদি আমরা ভুল আর সঠিক না চিনি তাহলে ভুগতে হবে আমাদের। আমার প্রথম পরিচয় আমি মানুষ, আমার দ্বিতীয় পরিচয় আমি মুসলিম, আমার তৃতীয় পরিচয় আমি বাঙ্গালী। দেশকে ভালোবাসাও একটা ইবাদত।লিপি ওসমান বলেন, আজ এই দেশটার হাল ধরে আছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই রাষ্ট্রকে উন্নত রাষ্ট্র করবে বলে তিনি হাল ধরেছেন। উনার তো যা পাওয়ার পাওয়া হয়ে গেছে। উনাকে আল্লাহ সম্মান দিয়েছে। কিন্তু উনি তো তারপরেও হাল ছাড়েননি। স্বার্থপর হলে হাল ছেড়ে দিতেন। আপনাদের উন্নয়ন দেয়ার জন্য আপনাদের হাত ধরেই হাটছেন তিনি। ২০১৪ সালে বাসের মধ্যে যে আগুন দেয়া হয়েছিলো, সেখানে যারা মারা গেছে তাদের মধ্যে বিএনপি কেউ ছিলো না, হয়তো অনেকে বিএনপিকে ভোটও দিয়েছে। যারা ক্ষমতায় আসার জন্য মানুষকে পরোয়া করে না, যারা ক্ষমতায় আসার জন্য মানুষকে পোড়ায় মারতে দ্বিধাবোধ করে না। তারাই যদি ভোট চায় আর তাদের যদি ভোট দেই তাহলে আমাদের বিচার বিবেচনায় ভুল হবে।গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজর আলী বলেন, আমরা গোগনগরবাসী খুব ভাগ্যবান, কারণ আমরা ৩টি এমপি পেয়েছি। নাসিম ভাই যখন এমপি ছিলেন তখন আমার বড় ভাই চেয়ারম্যান হয়। কিন্তু আমিই বেশী যোগাযোগ করতাম নাসিম ভাইয়ের সাথে। আমি বললাম বঙ্গবন্ধুর নামে একটা স্কুল দরকার আছে। সে ১ সপ্তাহে একটা ভবন করে দিয়েছে। তারপর সেলিম ভাইও একটা ভবন করে দিয়েছে। ৭টা ইউনিয়নে এমন ভবন করে দিলো। সেলিম ভাইয়ের কাছে যেতে না পারলে শামীম ভাইয়ের কাছে গেলে সেই কাজটা করে দেন তিনি। করোনার মধ্যে ৭টা স্কুলের বেতন টিটু ভাইয়ের মাধ্যমে দেয়া হইছে। ওসমান পরিবারে যে অনুদান আছে আমাদের এখানে আমরা কখনো ভুলবো না। এই গোগনগরবাসী ভুলবে না। আমরা ওসমান পরিবারের ছায়ায় আছি। আমাদের ভুল গুলো ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। জাতীয় নির্বাচনে আমরা শামীম ভাইয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করবো। আমাদের গোগনগরে কোন আওয়ামী লীগ বিএনপি নাই। আমরা ওসমান পরিবারের সহযোগীতায় চেয়ারম্যান হয়েছি। আমরা কোনদিন তাদের নাম বিক্রি করি নাই। কোন জায়গায় কোন সাইনবোর্ড লাগাই নাই।এ সময় গোগনগর বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।  

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ