শীতের সবজিতে স্বস্তিঅস্বস্তি চাল

ডাল, আটা, তেল ও চিনিতে

শীতের সবজিতে স্বস্তিঅস্বস্তি চাল, ডাল, আটা, তেল ও চিনিতে নিজস্ব প্রতিবেদক দেশজুড়ে শীত বেড়ে গেছে। বাজারে শীতের সবজির সরবরাহও বেড়েছে। এতে করে দাম কমেছে মৌসুমি সবজির। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় চাল, আটা, তেল, চিনি ও ডাল বিক্রি হচ্ছে আগের চড়া দামে। তবে কমতির দিকে ব্রয়লার মুরগি ও ডিমের দাম। রবিবার (১১ ডিসেম্বর) নগরীর দিগুবাবুর বাজার, কালির বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, আকার ভেদে পাতাকপি ও ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়। খিড়া প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৭০ টাকায়। লম্বা বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা। গোল বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা কেজি। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৮০- ১০০ টাকা। আর কাঁচা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ২০-৩০ টাকা কেজি। কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা কেজি। ধনিয়া পাতা ৮০ টাকা কেজি। মটরশুটি ১৬০- ১৮০ টাকা কেজি। লালশাক ও  পালংশাক ৩০- ৪০ টাকা কেজি।  আর নতুন আলু বিক্রি হচ্ছে ৩০- ৩৫ কেজি টাকায়। বাজারে প্রতি কেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ৪০-৬০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০-৭০। করলা ৪০-৫০ টাকা, চাল কুমড়ার চিরল প্রতি পিস ৪০-৫০ টাকা, লাউ প্রতি পিস আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকায়। মিষ্টি কুমড়া প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৫৫ টাকায়। মূলা ২০- ৩০, পটল ৫০- ৬০, ঢেঁড়স ৫০- ৬০, কচুর লতি ৫০-৬০, পেঁপে ২০-৩০, গাজর ৫০-৬০, বরবটি ৬০-৮০ ও ধুন্দুল ৬০-৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর লেবু ১৫-২০ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে।বিক্রেতারা বলছেন, বাজারে এখন প্রচুর শীতের সবজি রয়েছে। প্রায় সব ধরনের সবজির সরবরাহ বেশ ভালো। ফলে শীতকালীন সবজির দাম এখন কমতির দিকে। দিগুবাবুর কাঁচা বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে আসা অপূর্ব আহমেদ নামে এক ব্যক্তি বলেন, বাজারে এখন এসে অনেকটা ভালো লাগে। সবজির দাম কমায় কিছুটা হলেও স্বস্তি পাচ্ছি। এখন একশ টাকা দিয়ে অনেকগুলো সবজি পাওয়া যাচ্ছে।আরেক ক্রেতা আক্তার হোসেন বলেন, চালের দাম নিয়েই আতঙ্ক। মোটা চালের দামও নাগালের বাইরে। মানুষ কী খেয়ে বাঁচবে। আমনের ভরা মৌসুমেও চালের বাজারে আগুন।গত দুই সপ্তাহে চালের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ২-৫ টাকা পর্যন্ত। বাজারে প্রতি কেজি মোটা চাল-গুটি-স্বর্ণা বিক্রি হয়েছে ৫০ -৫৫ টাকার কাছাকাছি। আর পাইজাম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫৫ টাকায়। মাঝারি মানের বিআর-২৮ চালের প্রতি কেজি ৫৬-৬২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৬৫-৭৫ টাকার মধ্যে। নাজিরশাইল চাল মানভেদে পাওয়া যাচ্ছে প্রতি কেজি ৭৫- ৮০টাকায়।বেড়েছে আটার দাম। খোলা আটা কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৬৫ টাকা এবং প্যাকেটজাত আটা ৭০-৭৫ টাকা। চিনির বাজারে অস্থিরতা এখনো কাটেনি। বেশিরভাগ দোকানে প্যাকেটজাত চিনি মিলছে না। কিছু দোকানে খোলা চিনি পাওয়া গেলেও বিক্রি হচ্ছে ১১০ – ১২০ টাকা কেজি দরে। সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৯০ টাকা লিটার। দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৪০ টাকা। ইন্ডিয়ান মসুরের ডালের কেজি ১০০- ১২০ টাকা।মাছ-মাংসের বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্রয়লার ও সোনালী মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। প্রতি কেজি ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৫০ টাকা দরে। সোনালী মুরগি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৪০-২৫০ টাকায়। আর ডিমের ডজন বিক্রি ১১০- ১১৫ টাকায়। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে গরুর মাংসের দাম। বাজারভেদে ৭০০-৭৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সব ধরনের মাছের দামও অপরিবর্তিত থাকতে দেখা গেছে।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ