সরকার ভয় পায়,

তাই নেতাকর্মীদের গুলি করে হত্যা করছে : টিপু

সরকার ভয় পায়, তাই নেতাকর্মীদের গুলি করে হত্যা করছে : টিপু নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপু বলেছেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ৯মাস যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। সেই শহীদ জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া গণতান্ত্রিক দেশে গণতান্ত্রিক দল বিএনপিকে মিছিল মিটিং করতে বাধা দেয়, বিএনপির কার্যালয় ভাংচুর করে, বিএনপির নেতাকর্মীদের উপর গুলি করে, হামলা ও মিথ্যা মামলা করে দেশের নিরপরাধ নিরীহ মানুষকে নির্যাতন হয়রানি করছে। রাতের ভোটের এই সরকার জিয়াউর রহমানকে ভয় পায়, জিয়াউর রহমানের আদর্শকে ভয় পায়, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ভয় পায়, তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানকে ভয় পায়, বিএনপির নেতাকর্মীদের ভয় পায়, তাই বিএনপির নেতাকর্মীদের গুলি করে হত্যা করছে।বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসসহ গ্রেপ্তারকৃত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মুক্তি ও বিএনপি নেতা মকবুল হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্যে রাখতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। মঙ্গলবার ( ১৩ ডিসেম্বর) বিকেল তিনটায় মিশনপাড়া মোড়ে এই বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়।তিনি আরও বলেন, ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশ বিএনপির কার্যালয়ের সামনে হতো। কিন্তু নেতাকর্মীদের উপর গুলি করে পুলিশ। সেখানে স্বেচ্ছাসেবক দল মুকবুল হোসেনকে গুলি করে হত্যা করলো। সেদিন শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কেন্দ্রীয় জাতীয় পর্যায়ের নেতাদের অহেতুক গ্রেপ্তার করে মিথ্যা সাঁজানো মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার দেখায়। দেশের বৃহত্তর ও সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল বিএনপির কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে তছনছ করা হলো। রাস্তায় পুলিশ ও ছাত্রলীগ ক্যাডার বাহিনী বিএনপির নেতাকর্মীদের মোবাইল চেক করে। অনেক স্থানে সরকারি দলের ক্যাডাররা আমাদের নেতাকর্মীদের মোবাইল ছিনতাই করে নিয়ে যায়।নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এড. সরকার হুমায়ূন কবির, মনির হোসেন খান, আনোয়ার হোসেন আনু, এম এইচ মামুন, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ডা. মজিবুর রহমান, এড. এইচ এম আনোয়ার প্রধান, বরকত উল্লাহ, সাখাওয়াত ইসলাম রানা, কামরুল হাসান চুন্নু সাউদ, শাহিন আহমেদ, মাহমুদুর রহমান, মাসুদ রানা, হাবিবুর রহমান দুলাল, মাকিত মোস্তাকিম শিপলু, ফারুক হোসেন, মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মমতাজ উদ্দিন মন্তু, সদস্য সচিব মনিরুল ইসলাম সজল, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাগর প্রধান, যুগ্ম আহ্বায়ক মোয়াজ্জেম হোসেন মন্টি, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত ইসলাম রানা, বিএনপি নেতা মহিউদ্দিন শিশির, নাজমুল হক রানা, হারুন অর রশিদ লিটন, মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি রাফি উদ্দিন রিয়াদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মমিনুর রহমান বাবু, যুবদল নেতা মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ, সাইফুল ইসলাম আপন, পারভেজ খান, মানিক বেপারী, মহানগর শ্রমিক দলের আহ্বায়ক এস এম আসলাম, মহানগর মহিলা দলের সভানেত্রী দিলারা মাসুদ ময়না, মহানগর ওলামা দলের সভাপতি হাফেজ মামুনসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ