মাাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের লুকোচুরি ও পুলিশে কর্মকর্তার দূর্বব্যবহার

নিখোঁজের ৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি মাদ্রাসার ২ শিক্ষার্থীর

মাাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের লুকোচুরি ও পুলিশের দুর্ব্যবহারের অভিযোগফতুল্লায় মাদ্রাসার দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজের ৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি   ফতুল্লা  কাশিপুর হাজ্বী পাড়া মারকাযুল উলূম আল ইসলামিয় মাদ্রাসা থেকে দুই শিক্ষার্থীর নিখোঁজের ৮ দিনেও  সন্ধান মিলেনি। গত বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে মাদ্রাসার ময়লা ফেলাতে গিয়ে নিখোঁজ হয় তারা। নিখোঁজ শিক্ষার্থীরা হলো- জুবায়ের হোসেন (১২) ও নাঈম (১২)। নিখোঁজ শিক্ষার্থীদের অভিবাবকদের অভিযোগ নিখোঁজের পর মাদ্রাসা শিক্ষক বিষয়টি নিয়ে তাদের সাথে লুকোচুরি খেলছে। অপরদিকে থানায় অভিযোগ করার পর তদন্ত কর্মকর্তার এসআই হানিফের কাছে নিখোঁজের বিষয়টির অগ্রগতির বিষয়ে কথা বলতে চাইলে তিনি দুর্ব্যবহার করেন। নিখোঁজ জুবায়ের হোসেন মা শাহানাজ বেমগ জানান, মাদ্রাসার সোহেল মুন্সি নামে এক শিক্ষক আমাকে সকাল সাড়ে ৭ টায় ফোন করে বলে আপনার ছেলে ময়লা ফালাইতে গিয়ে মাদ্রাসার ভিতরে আর আসে নাই। আপনারা দেখেন আপনাদের ঐ দিকে গেছে কিনা। পরে আমরা এলাকার আশে-পাশে ও আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে পরের দিন কাশীপুর হাজ্বী পাড়া মারকাযুল উলূম আলইসলামিয় মাদ্রাসায় বিষয়টি জানার জন্য যাই। এ সময় আমাদের মাদ্রাসায় ভিতরে প্রবেশের বাধা দেয়। এবং শিক্ষক মহিবুর রহমান আমাদের বলে আপনার ছেলেকে কি মাইরা ফেলাইছি। তারা ফজর নামাজের পার আমল করেছে পরে তাদেরকে ময়লা ফেলতে পাঠাইছি তারা মাদ্রাসায় ফিরে আসে নাই। মাদ্রাসা থেকে একেক সময় একেক রকমের কথা বলছে এখন। নিখোঁজের ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়রী করি। যার নং ১১৮৩- ১৫/১২/২২। নিখোঁজ জোবায়ের খালা হাসনা বেগম জানান,  অভিযোগের পর তদন্তে না আসায়  চারদিন অতিবাহিত হলে ফতুল্লা থানার পুলিশের এসআই আবু হানিফ স্যারকে এক সাংবাদিক ফোন করলে আমাদের সাথে খুব খারাপ ব্যবহার করে বলে থানায় আসবেন কেন! দাওয়াত খাইতে! থার্ড পারর্সন মানুষ দিয়ে ফোন দেওয়ান বলে অশুভ আচারন করেন পুলিশের কর্মকর্তা। এদিকে মাদ্রাসার ৪র্থ তলা হেফজ্ব খানার দ্বায়ীত্বে থাকা শিক্ষক মহিবুর রহমান জানান, তাদের আমি ময়লা ফেলাতে পাঠাই নাই। জোবায়ের ও নাঈমের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাজ্বী পাড়া মারকাযুল উলূম আলইসলামিয় মাদ্রাসার সহকারী ভাইস পিন্সিপাল মুফতি আব্দুল আহাদ জানান, গেইটে দায়িত্ব থাকা ব্যাক্তি তাদের তারাইয়া দিসে। পরে কি হয়েছে আমাদের অবগত নাই।অপরদিকে অসহায় ভুক্তভোগী পরিবারে সাথে দুর্ব্যবহারের বিষয়ে অস্বীকার করে ফতুল্লা মডেল থানার এসআই আবু হানিফ বলেন, একজনের পক্ষে থেকে অভিযোগ পাইছি। তদন্তের আগে কিছু বলা যাবে না। এস আই আবু হানিফ এর দুর্ব্যবহার ও নিখোঁজের বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রিজাউল হক দিপু মুঠোফোন জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, পুলিশ দুর্ব্যবহার করেছে এ রকম কোনো কিছু আমার জানা নেই। কেউ কোনো এরকম অভিযোগও করেননি।  কোনো সহৃদয়বার ব্যাক্তি নিখোঁজ শিক্ষার্থীদের সন্ধান পেলে ফতুল্লা মডেল থানায় কিম্বা নিকটস্থ যে কোনো থানায় হস্তান্তর করার অনুরোধ করেন তাদের পরিবারের সদস্যরা। অথবা নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লার কাশিপুর এলাকার দেওয়ান বাড়িতে যোগাযোগ করার অনুরোধ করেন।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ