ঢাকাবুধবার , ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

কথা রাখেনি নাসিক!

রাকিবুল হাসান
ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৪ ২:২৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নগরবাসীর ভোগান্তি লাঘবে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাব আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকের পর শহরে কমেছে যানজট। এছাড়া নগরবাসীর গলার কাঁটা নহিসাবে পরিচিত ফুটপাতের হকার সমস্যারও সমাধান হয়েছে। যেন পুরোটাই মিরাকেল! তবে এখনো যত্রতত্র বিদ্যমান অবৈধ পার্কিং। পার্কিয়ের ফলে একদিকে যেমন সড়কের যান চলাচল বাধাগ্রস্ত হচ্ছে অপর দিকে ফুটপাতের উপর মটরসাইকেল পার্কিয়ের ফলে পথচারীরদের চলাচল হচ্ছে ব্যাহত। তবে এর সবই করছে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ ও জেলা প্রশাসন। গোল টেবিল বৈঠকে সব স্টেকহোল্ডারদের এক হয়ে কাজ করার কথা থাকলেও কথা রাখেনি নাসিক। সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারী) নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ।

সড়কে ফুটপাতের উপর অবৈধ পার্কিংয়ের দৃশ্য চোখে পড়েছে। গোলটেবিলের ঐকো হকার উচ্ছেদের পর শহরে যানজট লাঘব হলেও যানচলাচলে বাধা হয়ে দাড়াচ্ছে অবৈধ পার্কিং। এই অবৈধ পার্কিংয়ের কারণে নি প্রয়াশই ছোট ছোট জটলার সৃষ্ট হচ্ছে। ফলে সাময়িক যানজটে ভোগিান্তির শিকার হচ্ছে নগরবাসী। নগরীর বিভিন্ন মার্কেটের সামনে রাস্তার উপর প্রাইভেট কার, ট্যাক্সি, সিএনজি, অ্যাম্বুলেন্স কিংবা ব্যক্তিগত গাড়ি পার্কিং করা রাখা হচ্ছে। মার্কেটগুলোতে কার পার্কিং সুবিধা না থাকায় পুরো শহরজুড়ে এমন চিত্র দেখা যায়। এই বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কিংবা রাজউকের ভূমিকা রাখার কথা থাকলেও কার্যত তাদের এখনো কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। এতে সাধারণ পথচারী ও নগরবাসী ক্ষোভ ঝেড়েছেন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, নগরীর ব্যস্ততম সড়ক হিসেবে পরিচিত বঙ্গবন্ধু সড়কজুরে কিছু অংশ পর পর বিভিন্ন স্থানে অবৈধ ভাবে গাড়ি পার্কিং করে রাখা আছে। এই সড়কের প্রায় দেড় কিলোমিটার  পাশে শতাধিক গাড়ি পার্কিং করা রয়েছে। এছাড়া অন্তত ১০টি হাসপাতাল-ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং রেস্টুরেন্টের সামনের ফুটপাত দখল করে রাখা হয়েছে মটর-বাইক। কার্যত এই বিষয়ে প্রশাসনের কোন পদক্ষেপ দেখা মিলেনি বলে অভিযোগ রয়েছে এই নগরীর অনেক বাসিন্দাদের।

শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের সমবায় মার্কেটের সামনে গিয়ে দেখা যায় সারিবদ্ধ বেশ কয়েকটি সিএনজি দাড় করানো আছে। সিএনজির ড্রাইভাররা তাদের

গন্তবোর যাত্রী ডাকছেন। এর পাশেই পুলিশ দায়িত্বে থাকলেও তাকে কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। সিএনজি গুলোর একটু সামনে এগিয়ে দুইটি প্রাইভেট কার পার্ক করা রাখা। এতে চাষাড়া থেকে মূল শহরের প্রবেশদ্বারে ঢুকতে কিছুটা বেগ পেতে হয়েছে এই পথের সড়ক ব্যবহারকারীদের। এমন পরিস্থিতিতে ওই স্থানে অবৈধ পার্কিং করে রাখা সিএনজি চালকের সাথে কথা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘পার্কিংয়ের জন্য তো আর জায়গা নাই।

তো পার্কিং করবো তো করবো কোথায়?’ তার পশে আরেকজন সিএনজিচালক রীতিমত পার্কিং করে ঘুমাচ্ছেন। এবার ঠিক তার বিপরীতে মার্ক টাওয়ার ও হক প্লাজার সামনের চিত্রও প্রায়

একই। দুটো মার্কেটের সামনেই ‘নো পার্কিং’ এর বোর্ড লাগানো আছে। কিন্তু ‘নো পার্কিং’ থোরাই কেয়ার করে, তার সাথেই গাড়ি পার্ক করে রাখা আছে। যদিও দুটি মার্কেটেই রয়েছে পার্কিংয়ের ব্যাবস্থা। তবে সেই পার্কিং আবাসিক ভাড়াটিয়াদের কাছে স্থায়ী ভাবে বিক্রি কিংবা ভাড়া দেওয়ার কারনে মার্কেটে আগত ক্রেতাদের গাড়িগুলো বধ্য হয়ে রাস্তায় রাখতে হচ্ছে। হক প্লাজা থেকে একটু সামনে এগিয়ে গেলে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে শুরু করে নূর মসজিদ পর্যন্ত সম্পূর্ন রাস্তাটাই অবৈধ পার্কিংয়ের দখলে। এখানেতো আস্ত গাড়িই ফুটপাতের উপর তুলে রাখা হয়েছে। ফলে এই পথে আসা সাধারণ পথচারী ও চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদেরও পড়তে হয়েছে ভোগান্তিতে।

এমন চিত্র শুধু মার্ক টাওয়ার, হক প্লাজা কিংবা সমবায় মার্কেটরই নয়। বরং

বঙ্গবন্ধু সড়কের দুইদিকের ক্লাব মার্কেট, গ্রীন সুপার মার্কেট, ওয়ালী সুপার মার্কেট, ডিআইটি মার্কেটসহ প্রতিটি মার্কেটেরই একই অবস্থা। অর্থাৎ প্রতিটি মার্কেটেরই সামনে অবৈধভাবে পার্ক করে রাখা আছে গাড়ি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গাড়ি পার্ক করে রাখা আছে গ্রীন সুপার মার্কেটের সামনে। দুই লেনের রাস্তার একটি লেনের পুরোটাই দখল করা হয়েছে অবৈধ পার্কিং দ্বারা? অথচ একটু সামনে এগোলেই ট্রাফিক পুলিশ ও সিটি কর্পোরেশনের যানজট নিরসনের কর্মীদের দেখা যায়। কিন্তু তাদের কোন বিশেষ নজর নেই সেদিকে। শুধু রাস্তা নয়, যে মুক্ত ফুটপাতের জন্য শহরের সব হকারকে উচ্ছেদ করা হলো সেই ফুটপাত জুড়ে মোটর সাইকেল পার্কিং করা রয়েছে। হকার না থাকায় আরো যেন সুবিধাই হয়েছে তাদের। পুরো ফুটপাত ফাকা পেয়ে মোটর সাইকেল রেখে দিয়েছেন বিভিন্ন ঔষধ কম্পানির রিপ্রেজেন্টেটিভ। কয়েকটি স্থান দেখলে মনে হবে, এটা ফুটপাত নয় যেন মোটর সাইকেলের শো-রুম কিংবা পার্কিং যোন।

এই বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) রুহুল আমিন সাগরের সাথে কথা হলে তিনি নারায়ণগঞ্জের আলোকে জানান, আমরা অল্পসংখ্যক জনবল নিয়ে সাধ্য মত চেষ্টা করে যাচ্ছি। ২৪ ঘন্টাই পুলিশ নিয়োজিত করে রাখা সম্ভব না। তবে গতকাল অবৈধ পার্কিংয়ের কারনে ৮টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এখানে আসলে আমাদের জনসাধারণকেও সচেতন হতে হবে।

তিনি আরোও যোগ করেন, এর আগে নারায়গঞ্জ প্রেস ক্লাবের গোল টেবিল বৈঠকে সকলের এক হয়ে কাজ করার কথা থাকলেও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সহযোগীতা পাচ্ছি না। তবে আমরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে নগরবাসীর স্বস্তিতে ও নির্বিঘ্নে চলাচলের লক্ষে সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছি।

 

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।