জনতার সমীকরণে ব্যর্থ আইভী

আবির শিকদার:

নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ও মেয়র আইভী প্রসঙ্গ এখন নগরবাসীর কপালের বিরক্তির ভাঁজের স্পষ্ট প্রতিচ্ছবি। শহর জুড়ে নাগরিক দুর্ভোগ, নির্বাচনী প্রতশ্রিুতি ও প্রত্যাশার তলাবিহীন ঝুড়ি, সিন্ডিকেট নির্ভর সিটি কর্পোরেশন ও মেয়রের গোঁড়ামীতে অতিষ্ঠ নগরবাসী। শান্তিময় শহর বিনির্মানের প্রতিশ্রুতি দেয়া মেয়র ও তার প্রসাশনই এখন নাসিকে বসবাস করা নাগরিকের অশান্তির মূল কারণ হয়ে উঠেছে। জনাতার সমীকরণে সমান তালেই ব্যর্থ মেয়র আইভী ও তার নাসিক প্রসাশন।

বাংলাদেশের মানচিত্রে ইতিহাস ও ঐতিহ্যের এক অন্যতম গৌরবজ্জোল জেলা প্রাচ্যের ডান্ডি নারয়ণগঞ্জ। দেশের প্রধান নদীবন্দর ও বনেদি পরিবেশ সব মিলিয়ে বিশ্বদরবারেও একসময়কার ব্যপক সমাদৃত এশহরের রঙ, রুপ ও জৌলস এখন ক্রমেই ফিকে হয়ে আসছে। ইতিহাস বলছে, ১৭৬৬ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী থেকে বিকন লাল পান্ডে কয়েকটি মৌজা লিজ গ্রহণ করেন। এখানেই পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ নগর গড়ে উঠে। বৃটিশ সরকারের সাশনামলে ১৮৭৬ সালে প্রায় ২৮ হাজার জনসংখ্যা নিয়ে গড়ে ওঠে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা।

এরপর ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার সাথে সিদ্ধিরগঞ্জ ও কদম রসূল অঞ্চলকে সংযুক্ত করে গঠিত হয় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন।
নাগরিক দুর্ভোগ ও জন ভোগান্তির অসমাপ্ত অধ্যায়ের শুরুটাও এখান থেকেই। নাগরিক দুর্ভোগ ও ভোগন্তি লাঘবে নাসিক মেয়রের এ পর্যন্ত নেয়া হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্পও এ কুলষিত অধ্যায়ের ইতি টানতে পারেনি। সেই ২০০৩ সাল থেকেই নগরীর দায়িত্বে সেলিনা হায়াৎ আইভী, এরও আগে ১০ বছর দায়িত্বে ছিল বর্তমান মেয়র আইভীর বাবা প্রয়াত আলী আহম্মেদ চুনকা।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন দীর্ঘদিন একটি পরিবারের অধীনে থাকা সত্বেও নাগরীকে ভাগ্যে জুটেনি একটি আধুনিক নগর। আর নাগরীক সুবিধার প্রশ্নে রুদ্ধশ্বাস চিত্তে বাকহীন নগরবাসী। তবে এমন পরিস্থিতির জন্য নাসিক মেয়র আইভী এবং সিটি কর্পোরেশনের অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনা ও নীতিকে দায়ী করছেন নগরীর বিশিষ্টজনরা। নগরীর একাধিক এলাকায় বসবাসরত নাগরিকদের নিয়ে এক সমীক্ষায় উঠে আসে জন দুর্ভোগ ও ভোগান্তির এক একটি অধ্যায়।

অনুন্নত ড্রেনেজ ব্যবস্থা, জলাবদ্ধতা, অপরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, অপরিচ্ছন্ন নগরী, যানজট, তীব্র মশার উপদ্রব বিষিয়ে তুলেছে নাগরিক জীবন-যাপন। এর উপর বাড়তি করের বোঝা নগরবাসীর জন্য মরার উপর খাঁড়ার ঘাঁতে পরিনত হয়েছে। তবে বাড়তি কর দিয়েও সেবার শূণ্যস্থান যে পূরণ হবার নয়, ইতিমধ্যে এটাও নগরবাসীর জানা হয়ে গেছে। এতসব সমস্যা জিইয়ে রেখে গাঁ ছাড়া ভাব নিয়ে এগিয়ে চলছে সিটি কর্পোরেশন। জনমনে ব্যপক সমালোচিত এ সংস্থার নিজ দ্বায়িত্ব নিয়ে হিমশীম খাওয়া নাসিকের ওয়াসার দ্বায়িত্ব নেয়ার বিষয়টি জনদুর্ভোগে সংযুক্ত করেছে আরেকটি নতুন অধ্যায়।

এরপর থেকে নগরজীবনের অতি প্রয়োজনীয় ও অপরিহার্য সুপেয় পানির প্রাপ্তি যা তা হলেও নাগরিকদের পরিশোধ করতে হচ্ছে মোটা অংকের পানির বিল। ক্ষমতার দেড় যুগেও নগরীর বহুতল বাণিজ্যিক ভবন ও বিপণি বিতান গুলোয় পার্কিং ব্যবস্থা ও উপযুক্ত অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে পুরোপুরি ব্যর্থ মেয়র আইভী। এছাড়াও পর্যাপ্ত অভিযান পরিচালনা না করার ফলে শহরে অত্যাধিক মাত্রায় বেড়েছে ব্যাটারীচালিত যানবাহনের চলাচল। শহর জুড়ে একাধিক অবৈধ অটোরিক্সা ও সিএনজি স্ট্যান্ড এবং পর্যাপ্ত পার্কিং সংকটের কারণে সড়কের উপর পার্কিং যানজট নিরসনের অন্তরায় হলেও সিটি কর্পোরেশন ঠিক কোন কারনে নিশ্চুপ ভুমিকায়, সেটিও কারো অজানা নয়। এছাড়াও দৈনন্দিন লক্ষাধিক জনসমাগম হওয়া কল-কারখানা ও শিল্প-বাণিজ্যের এ শহরে নেই আধুনিক ও মানসম¥ত গণ সৌচাগার। এক্ষেত্রে ভোগান্তিতে শীর্ষে রয়েছেন নারী ও শিশুরা। সবমিলিয়ে এই শহরে কর্মের স্বার্থে আগত গণমানুষের ভোগান্তি ও দুর্ভোগ যেন নিয়তিতে পরিণত হয়েছে।

নগরীর দেওভোগ বাঁশমূলী এলাকার সাদ্দাম হোসেন বলেন, ভোলাইল থেকে শহরের ২ নং রেলগেট এই সড়কেই মেয়রের বাড়ি। এই সড়কের ব্যাটারিচালিত যানবাহনের দৌড়াত্ন কি উনার চোখে পড়েনা? নাকি উনি দেখেও দেখেন না! অবশ্য দেখবেন কি করে, কারন তিনি তো সিটি কর্পোরেশনের যানজট নিরসন কর্মীদের প্রোটকলে সড়ক আটকে রেখে যাতায়াত করেন।

নগরীর সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি এলাকার গৃহিনী নুসাইবা চিশতী রুবা জানায়, এখানে নেই কোন ডাস্টবিন। সিটি কর্পোরেশন থেকে যারা বর্জ্য সংগ্রহ করেন তারাও এখানকার মানুষদের জিম্মি করে ফেলেছে। নির্ধারিত সেবামূল্যের অতিরিক্ত টাকা আদায় করে। কৈফিয়ত চাইলে বা প্রতিবাদ করলে ৩-৪ দিন বর্জ্য নেয় না। এতেকরে যত্রতত্র ময়লা ফেলতে বাধ্য হয় অনেক পরিবার। অতিরিক্ত টাকা দিয়েও ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে হরহামেশাই।

নারায়ণগঞ্জের টানবাজার এলাকার এক দোকানী পরিচয় গোপন রাখার সর্তে বলেন, আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে তরিঘরি করে লোক দেখানো উন্নয়ন কর্মকান্ড চালাচ্ছে মেয়র। বিশেষ করে মন্ডলপাড়া পুলের ধীরগতির কালভার্ট নির্মাণের ফলে এই পথ ব্যবহারকরীদের পড়তে হচ্ছে অসহনীয় যানজটে। তিনি বলেন স্বজনপ্রিতীর মাধ্যমে নিজস্ব সিন্ডিকেটে সব প্রকল্পের টেন্ডার বরাদ্ধ দেয়ায় ঠিকাদারদের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে ঠিকই, কিন্তু নগরবাসীর সুফল ভোগের হিসাব বরাবরই শূণ্য।

আমরা নারায়ণগঞ্জবাসীর সভাপতি মন্ডলীর সদস্য এড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন, সিটি কর্পোরেশন হওয়ার পরে শুধু টেক্স বেড়েছে, সে অনুপাতে সেবার মান বড়েনি। পানি সমস্যার সমাধান, জলবদ্ধতা নিরসন, স্বাচ্ছন্দে রাস্তায় চলাচল, একটি মেডিকেল কলেজ ও একটি ইউনিভার্সিটি করতে পুরোপুরি ব্যর্থ মেয়র আইভী। নাগরিক দুর্ভোগের বিভিন্ন পয়েন্ট চিহ্নিত করে কাজ করতে পারেনি সিটি কর্পোরেশন। শুধু তাই নয় কল-কারখানা ও শিল্পের শহরে শ্রমজীবীদের জন্য হাসপাতালও করতে পারেননি তিনি। নারায়ণগঞ্জে নাগরিক সুবিধা অন্য জেলা থেকে অনেক পিছিয়ে। নামেই একটা সিটি কর্পোরেশনে আছি, কাজে আমরা একটা পৌর সভার থেকেও পিছিয়ে। মেয়র রাজনীতির এপিট ওপিট নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গের কট্টর সমালোচনা ছাড়া তার কাছে কিছু আশা কারাটাও ভুল। সেবার দিক থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ঠুঁটো জগন্নাথ।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ