ইসির নির্দেশ মেনেছে তৈমূর, ভেঙ্গেছে আইভী

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে আচরণবিধি মেনে বিজয় মিছিলে যোগ দেয়নি স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। অন্যদিকে, কমিশন থেকে সর্তক করার পরেও বিধি ভেঙ্গে আওয়ামী লীগের সভায় যোগ দিয়েছেন নৌকা মার্কার প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। এ নিয়ে বেশ আলোচনা ও সমালোচনা চলছে নারায়ণগঞ্জ জুড়ে। কি করবে নির্বাচন কমিশন, তা দেখার অপেক্ষায় নগরবাসী?
জানা গেছে, সিটি করপোরেশন (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা ২০১৬ এর বিধি ৫ অনুসারে প্রতীক বরাদ্দের পূর্বে কোন প্রার্থী বা তার পক্ষের কোন লোক রাজনৈতিক দল, অন্য কোন ব্যক্তি, সাংস্থা বা প্রতিষ্ঠান কোন নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করতে পারবে না।
তফসিল অনুযায়ী, আগামী ২৮ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ হবে। সেদিনের পর থেকেই নির্বাচনী প্রচারণা করতে পারবেন প্রার্থীরা।
২৪ ডিসেম্বর বিজয় সমাবেশে দেখা যায়, বিজয়ের কোন কথাই সেখানে ছিল না। আসন্ন সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে ভোট চেয়েছেন সকলে। মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীও সকলের সহযোগীতা ও ভোট চাই ছিলেন।
স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমুর বলেন, ১৬ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের আগেই রিটার্নিং অফিসার মাহফুজা আক্তার আমাকে টেলিফোন করে বিজয় র‌্যালিতে অংশগ্রহণে ও সভাপতিত্ব করতে নিষেধ করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন আমি গেলে নাকি আচরণবিধি ভঙ্গ হবে। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে র‌্যালিতে যাইনি। অথচ আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী একের পর এক আচরণবিধি ভেঙ্গেই যাচ্ছেন। ২৪ ডিসেম্বর বিজয় সমাবেশের নামে নির্বাচনী সমাবেশ করেছেন। কিন্তু ইসি কোন ব্যবস্থাই নিচ্ছে না।
২৪ ডিসেম্বারের আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে সমাবেশে যেতে নিষেধ করা হয়েছিল বলে নিশ্চিত করেছেন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মাহফুজা আক্তার। তিনি বলেন, ২৩ ডিসেম্বর টেলিফোন করে নির্বাচন আচরণ বিধির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভীকে সমাবেশে না যেতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি তা শোনেননি। আমরা দেখছি এ ব্যাপারে কি করা যায়।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

পূর্ববর্তী সংবাদযে কারণে বর্জন
পরবর্তী সংবাদআজ ১২ ইউনিয়নে ভোট

সর্বশেষ