মা-মেয়ে হত্যা মামলা দায়ের : ঘাতক ৩ দিনের রিমান্ডে

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ শহরের নিতাইগঞ্জে মা ও অন্তঃসত্ত্বা মেয়েকে হত্যার ঘটনায় আটক জোবায়ের (২৬) কে আসামি করে সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা রুজু হয়েছে। নিহত রুমা চক্রবর্তীর স্বামী রামপ্রসাদ চক্রবর্তী বাদী হয়ে বুধবার (২ মার্চ) এ হত্যা মামলাটি দায়ের করেন। পরে পুলিশ ওই মামলায় আটক জোবায়েরকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে তার বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে নারায়ণগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নূর মহসিনের আদালতে তাঁকে হাজির করা হয়। আদালত শুনানি শেষে তাঁর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলার মূল রহস্য উদ্ঘাটন, এই ঘটনার সঙ্গে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা জানতে জোবায়েরকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়। আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আমির খসরু বলেন, টাকা ও সোনাদানা লুট করতে ত মা ও অন্তঃসত্ত্বা মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে।

তিনি জানান জিজ্ঞাসাবাদে জোবায়ের বলেছেন, তাঁর নিজের চলার জন্য টাকার দরকার। এ কারণে নিতাইগঞ্জের সবচেয়ে বড় বাড়িটি তিনি টার্গেট করেন। পরে তিনি ওই বাড়ির ছয়তলায় রামপ্রসাদ চক্রবর্তীর ফ্ল্যাটে কংলিবেল চাপেন।

এ সময় ওই ফ্ল্যাটের বাসিন্দা  রুমা চক্রবর্তী দরজা খুললে ভেতরে ঢুকে তাকে গলা চেপে ধরেন জোবায়ের। ছিনিয়ে নেন রুমার গলার চেইন। এরপর ছুরি মেরে রুমাকে হত্যা করেন তিনি। এক পর্যায়ে রুমার মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা ঋতু চক্রবর্তী এগিয়ে এলে তাঁকেও ছুরি মেরে হত্যা করেন জোবায়ের।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আমির খসরু আরও বলেন, এ সময় পাশের রুমে অবস্থানরত রামপ্রসাদ চক্রবর্তীর ছেলের বউ শীলাকে কোপাতে গেলে তিনি ধাক্কা দেন। এতে জোবায়ের ঘরের মেঝেতে থাকা রক্তে পা পিছলে পড়ে যান।

তখন শীলা দৌড়ে বঁটি নিয়ে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নেমে আসেন। জোবায়েরও নিচে নেমে আসেন। শীলার হাতে বঁটি ও নিচে অনেক লোক দেখে জোবায়ের আবার ওই ফ্ল্যাটের ভেতরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেন। পরে পুলিশ তাঁকে রক্তমাখা ছুরিসহ আটক করে। এ সময় জোবায়েরের ব্যাগ থেকে দুটি সোনার চেইন ও কানের দুল উদ্ধার করা হয়েছে।

জোবায়ের ২০১৩ সালে এইচএসসি পাস করে ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হন। পরে আর্থিক সমস্যার কারণে তিনি পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি বলে পুলিশের কাছে দাবি করেন।

এই লোমহর্ষক হত্যার ঘটনায় নিহত রুমা চক্রবর্তীর স্বামী রাম প্রসাদ চক্রবর্তী বাদী হয়ে মামলা করেছেন। বুধবার সকালে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় গ্রেফতারকৃত জোবায়েরকে একমাত্র আসামি করে এই মামলাটি দায়ের করা হয়।

পুলিশ গ্রেফতার জোবায়েরকে বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালতে হাজির করে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নূর মোহসীন শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয়েছে শহরের টানবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক সাইদুজ্জামানকে।

 এদিকে মঙ্গলবার রাতেই গ্রেফতারকৃত জোবায়েরকে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আমির খসরু বলেন, জুবায়েরকে আমরা ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। সে স্বীকার করেছে তার নিজের চলার জন্য টাকার দরকার। এ কারণে বড় বাড়িটি তিনি টার্গেট করেন। ছয়তলা ভবনের একটি ফ্ল্যাটে কলিং বেল বাজিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ওই ফ্ল্যাটের কেউ দরজা খোলেননি। তখন পাশের রামপ্রসাদ চক্রবর্তীর ফ্ল্যাটে কলিং বেল চাপেন তিনি। ওই ফ্ল্যাটের দরজা খুললে ভেতরে ঢুকে রুমা চক্রবর্তীর গলা চেপে ধরেন জোবায়ের। এ সময় রুমার গলার মালা তিনি ছিনিয়ে নেন। এরপর ছুরি মেরে রুমাকে হত্যা করেন। রুমার অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে ঋতু চক্রবর্তী এগিয়ে এলে তাকেও ছুরি মেরে হত্যা করে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page