সিদ্ধিরগঞ্জে রেন্ট-এ কার থেকেমাসে ২ লাখ টাকা ফারুকের চাঁদাবাজি

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড়ে সরকারি জায়গা দখল করে গড়ে উঠা রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ডের চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রণ এখন ফারুকের হাতে। জোর পূর্বক অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা রেন্ট-এ কার থেকে প্রতি মাসে ২ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করছেন চাঁদাবাজ ফারুক। ফারুক নিজেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমানের ভাই পরিচয় দিয়ে থাকেন।

সম্প্রতি রেন্ট-এ কার মালিক সমিতির নামে (চাঁদাবাজ কমিটি) একটি কমিটি ঘটন করে তারা এই চাঁদাবাজি করছেন বলে জানা গেছে। শিমরাইল মোড় এলাকায় সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে গাড়ির চালকরা ফারুককে চাঁদাবাজ ও থানা পুলিশের সোর্স হিসেবেই চিনেন। সিদ্ধিরগঞ্জের নাসিক ৪ নং ওয়র্ডে বসবাস করেন ফারুক। ওই এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে তার সখ্যতা বেশি। পুলিশ ওই এলাকার কাউকে ধরে আনলে সবার আগে থানায় ছুটে আসেন এই ফারুক। থানার কর্মকর্তাদের কাছে মাদক ব্যবসায়ীদের পক্ষ নিয়ে শুরু করেন তদবির।বর্তমানে সেই রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ডটিকে বানিয়েছেন মাদক ও জুয়ার আড্ডাখানা। সেখানে প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে তাশ,লুডু থেকে শুরু করে আইপিএল ক্রিকেট জুয়া খেলা হয়। লেনদেন হয় মোটা অংকের টাকা। সেখানে টহলরত পুলিশ গেলেও ফারুক তাদেরকে ম্যানেজ করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।অভিযোগ রয়েছে এই রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ডের গাড়ি দিয়ে মাদক পাচারের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। দেশের বিভিন্ন জেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে এ স্ট্যান্ডের একাধিক গাড়ি মাদকসহ আটক হয়েছে।

জানা গেছে এই রেন্ট-এ কারের কিছু গাড়ি চলছে অনিয়মিত নামসর্বস্ব দৈনিক পত্রিকা ও অনুমোদনহীন টিভি চ্যানেলের স্টিকার লাগিয়ে। যার শেল্টার দিয়ে থাকেন চাঁদাবাজ ফারুক। বিভিন্ন অপরাধীরা মিডিয়া স্টিকার লাগানো এসব গাড়ি ভাড়া নিয়ে চালকদের ম্যানেজ করে ছিনতাই ও মাদক পাচার করছে । সম্প্রতি বেশ কিছুদিন পূর্বে দেশের বিভিন্ন জেলায় এই স্ট্যান্ডের (ঢাকা মেট্রো-গ-২৫-৩১৯৫), ( ঢাকা মেট্রো-গ-৩২-৩৬০০), (ঢাকা মেট্রো-চ-১৬-০১০১), (ঢাকা মেট্রো-গ-২৫-২৯২১), (ঢাকা মেট্রো-গ-৩৩-৮৫৭৩), (ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-১২১০ নম্বর) গাড়ি ফেন্সিডিল ও ইয়াবাসহ র‌্যাব, থানা ও গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। মাদক পাচারে জড়িত রয়েছে চাঁদাবাজ ফারুকের মালিক সমিতির নেতারাও।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গাড়ি চালক জানান, তারা নতুন করে যে কমিটি ঘটন করেছে সেই কমিটির কোন বৈধতা নেই। আমরা তাদের এই কমিটি মানি না। তারা জোর করে আমাদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছে। গাড়ি চালক আরও বলেন,কমিটির নেতাদের সাথে মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সখ্যতা রয়েছে। তারা যে কমিটি তৈরি করেছে তাদের মধ্যেও মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা পেয়ে নোতারা তাদের কাছে গাড়ি ভাড়া দিয়ে অর্থের লোভে ফেলে চালকদেরকে মাদক বহন করতে বাধ্য করছে।

সূত্রে জানা গেছে, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক ভুঁইয়া রাজু ও বিএনপি নেতা সালাউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন কমিটি বর্তমানে বহাল থাকার পরও নতুন করে চিটাগাংরোড রেন্ট-এ কার মালিক সমিতির ১৫ সদস্যের একটি প্রস্তাবিত কমিটি গঠনের নাম করে এই চাঁদাবাজি করা হচ্ছে। সেই প্রস্তাবিত কমিটির সভাপতি করা হয়েছে নব্য আওয়ামীলীগার সিব্বিরের ভাই মো: জসিম উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে চাঁদাবাজ ফারুক হোসেনকে। তবে বর্তমানে চাঁদাবাজির নেতৃত্ব দিচ্ছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসির ভাই পরিচয়দানকারী ফারুক ওরফে চাঁদাবাজ ফারুক। এদিকে বর্তমান কমিটি ও প্রস্তাবিত কমিটিকে ঘিরে শিমরাইল মোড় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। সেখানে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংঙ্কা করছেন গাড়ির চালক ও হেলপাররা। স্ট্যান্ড নিয়ন্ত্রন নিয়ে ইতি পূর্বে একাধিকবার দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তার পরও স্থানীয় প্রশাসন অবৈধ স্ট্যান্ড ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, শিমরাইল মোড়ে সরকারি জায়গা দখল করে অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ডে দুই শতাধিক ছোট-বড় গাড়ি রয়েছে। ছোট-বড় প্রত্যেক গাড়ির জন্য মাসিক হারে চাঁদা দিতে হয়। এর মধ্যে প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস প্রতি মাসে ৯০০ টাকা এবং হায়েক্স গাড়ি প্রতি ১ হাজার ৩০০ টাকা করে মাসিক চাঁদা নিচ্ছেন প্রস্তাবিত কমিটির নেতারা। পরিসংখ্যান মতে দুই শতাধিক গাড়ি থেকে মাসে দুই লক্ষাধিক টাকা চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। তবে প্রশাসনকে ম্যানেজের দায়িত্ব নিয়েছেন চাঁদাবাজ ফারুক। তবে এই চাঁদাবাজির টাকার মোটা অংকের একটি অংশ স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যাক্তি ছাড়াও প্রশাসনের কয়েকটি দপ্তরে যায় বলেও জানা যায়।

এ বিষয়ে চাঁদাবাজির নেতৃত্বে থাকা প্রস্তাবিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফারুক জানান, জোর করে কোন চাঁদা আদায় করা হচ্ছে না। নতুন করে আমরা একটা সমিতি গঠন করেছি। সেখানে চালক ও বিভিন্ন খরচ বাবদ টাকা উঠানো হয়। তবে জুয়া খেলার বিষয় অস্বীকার করে ফারুক বলেন, প্রাইভেটকার থেকে প্রতি মাসে ৯০০ টাকা ও মাইক্রোবাস থেকে ১ হাজার ৩০০টাকা করে চাঁদা আদায় করা হয়।সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বলেন, নতুন একটি প্রস্তাবিত কমিটি হয়েছে শুনেছি।

পুলিশের নামে চাঁদাবাজির বিষয়টি আমার জানা নেই। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক-সার্কেল) নাজমুল হাসান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। পুলিশের নাম ভাঙিয়ে কেউ চাঁদাবাজি করলে তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। এখন শুনেছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।উল্লেখ্য, শিমরাইল মোড়ে কিছুদিন পর পর নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপদ বিভাগ (সওজ) লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান চালালেও রহস্য জনক কারণে রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ড থেকে যায় বহাল তবিয়তে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ