ডিবির ক্যাশিয়ার পরিচয়ে

প্রতি মাসে আনোয়ারের লক্ষ লক্ষ টাকার চাঁদাবাজি

নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা ডিবি পুলিশ ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ক্যাশিয়ার পরিচয় দিয়ে আনোয়ার লক্ষ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি করে আসছে। ডাকাতি সহ একাধিক মামলার আসামী এই আনোয়ার গত মাসে জামিনে বের হন বলে জানা গেছে।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, বিভিন্ন সময় নানা অপরাধে ডিবি ও থানা পুলিশের কাছে গ্রেফতার হলেও কিছু দিন যাওয়ার পর কৌশলে নিজের যায়গা বাগিয়ে নেন আনোয়ার গোয়েন্দা, ডিবি ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি কে ম্যানেজ করে আনোয়ার নিজে এবং তার নিয়োজিত চাঁদাবাজ মিশুকে দিয়ে চাঁদাবাজি করে আসছে।

সূত্রে জানাযায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এক সময়কার পুলিশ সদস্য আজিজ সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অনেক দিন চাকরি করার সুবাদে সিদ্ধিরগঞ্জের অলিগলি সবই তার চেনা। চাকরি থেকে অবসর নেয়ার পর ক্যাশিয়ারের দায়িত্ব নেন আজিজ। এরপর অনেক বছর ক্যাশিয়ারের দায়িত্বে থেকে চাঁদাবাজি করে আসছিল। কোন কারনে আজিজের চাঁদাবাজি বন্ধ হয়ে যায়।

বেশ কিছু দিন আজিজের চাঁদাবাজি বন্ধ ধাকার পর সিদ্ধিরগঞ্জ থানার বর্তমান ওসি মশিউর রহমান  থানায় যোগদান করার পর আজিজ ফের চাঁদাবাজি করার জন্য বিভিন্ন মহলে ছোটাছুটি করছেন কিন্তু তিনি সেই দায়িত্ব পাননি।

কিন্তু চালাক চতুর আনোয়ার বিশেষ পেশার দায়িত্বের এক ব্যাক্তির মাধ্যমে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার বর্তমান ওসি মশিউর রহমানকে মোটা অংকের টাকা দিয়ে ওসি মশিউর রহমানের মন জয় করে নেন এবং চাঁদাবাজির দায়িত্ব পান আনোয়ার।

কয়েক মাস আগে নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবির হাতে গ্রেফতার হলেও আনোয়ারের চাঁদাবাজি বন্ধ হয়নি তার অনুপস্থিতিতে তার নিয়জিত মিশু নামের আরেক চাঁদাবাজ চাঁদাবাজি চালিয়ে গেছে।

তবে এব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন আনোয়ার নামের কাউকে আমি চিনি না যদি কেউ পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজি করে তাকে আটকিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি ফখরুদ্দিন ভুইঁয়ার সাথে কথা হলে তিনি ও বলেন আনোয়ার নামের কাউকে আমি চিনি না। তবে যদি কেউ নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজি করে তাকে ধরিয়ে দিন।

খোঁজ নিলে জানাযায় আনোয়ারের রুপগঞ্জে কয়েকটি ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় চোরাই তেলের দোকান রয়েছে। এবং চোরাই তেলের দোকান থেকে ডিবি ও থানা পুলিশের নামে মাসোহারা নিচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জের চাঁদাবাজির টাকা দিয়ে গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে নতুন করে আলিশান ডুপ্লেক্স (দ্বীতল বাড়ি) বাড়ি নির্মাণ করেছেন। অনুসন্ধানে আরোও জানাযায় সাত খুনের আসামী র‌্যাব কর্মকর্তার সাথে থেকে মানুষকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন লক্ষ লক্ষ টাকা।

সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্নœ কয়েল কারখানা সহ একাধিক অন্যান্য কারখানা থেকে মাসোহারা আদায় করেন তিনি। ভিবিন্ন ভাংগারি দোকান থেকে মাসোহারা নিচ্ছে উল্লেখ,সিদ্ধিরগঞ্জের ডাচ বাংলা ব্যাংক এর পিছনে শহীদের ভাংগারি দোকান থেকে দশ হাজার, সানারপাড় কবির ভাংঙ্গারি দোকান থেকে পাঁচ হাজার, মাদ্রাসা রোড মিজমিজ, পাঁচ হাজার, সিদ্ধিরগঞ্জ সাইলো পাঁচ হাজার, ভূইঘর তিন হাজার, জালকুরি বাস্টান্ড দক্ষিণ পাশে দুই হাজার, ছোট গুলো থেকে পাঁচ শত টাকা। রাস্তার পাশের চোরাই তেলের দোকান থেকে মনমত চাঁদা আদায় করেছে আনোয়ার। আর কারখানার চাঁদার তো কোন হিসাব নেই। তবে সচেতন মহলের প্রশ্ন  ডিবি ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি, যদি আনোয়ারকে নাই চিনে তবে ব্যবস্থা নিচ্ছে না কেন?

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ