অঝোরে কাদঁলেন প্রবীন নেতা মজিবুর রহমান

‘প্রধানমন্ত্রীকে পেলে জিজ্ঞাস করতাম এভাবে কি আওয়ামীলীগ চলতে পারে?’

“ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত পেলে জিজ্ঞাসা করতাম, এভাবে কি আওয়ামীলীগ চলতে পারে? জীবনের ৫০টি বছর বঙ্গবন্ধু আর শেখ হাসিনার জন্য আওয়ামীলীগ করছি, ২০০১এর পর ৫বছর যাদের জন্য বাড়ীতে থাকতে পারিনি, হামলা-মামলার শিকার হয়েছি, সেই বিএনপির সন্ত্রাসীদের যখন মেয়র আইভীর মত নেত্রী শেল্টার দিয়ে ভোট কেন্দ্রে নিয়ে আসে তখন খুব ভয় হয় শেখ হাসিনা আর আওয়ামীলীগের জন্য”। এসব বলে অঝোর ধারায় চিৎকার করে কাদঁছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান। নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ড ( সমগ্র সিটি কর্পোরেশন এলাকা) এর সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী ও ২৭টি ওয়ার্ডের মোট ৩৬জন কাউন্সিলর ছিলেন জেলা পরিষদের এই ওয়ার্ডের ভোটার। সোমবার নগরীর প্রিপারেটরী স্কুলের স্থাপতি এই ভোট কেন্দ্রে দুপুরের দিকে ভোট দিতে আসেন মেয়র আইভী। এসময় তার সাথে একত্রে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করেন সিদ্ধিরগঞ্জের সাবেক বিএনপিদলীয় এমপি গিয়াস উদ্দিনের ছেলে খুন, নাশকতাসহ একাধিক মামলার আসামী কাউন্সিলর (৫নং ওয়ার্ড) গোলাম মোহাম্মদ সাদরিল ও সরকার উৎখাতের মামলাসহ বহু মামলার আসামী বিএনপি নেতা কাউন্সিলর ( ২নং ওয়ার্ড) ইকবাল হোসেন, পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী হাসান আহমেদ এর স্ত্রী ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর আফরোজা বিভাসহ কয়েকজন কাউন্সিলর। মেয়র আইভীর সাথে প্রবেশ করা ঐ কাউন্সিলররা ভোট দিয়ে আবার মেয়রের সাথেই বের হয়ে চলে যান।

‘প্রধানমন্ত্রীকে পেলে জিজ্ঞাস করতাম এভাবে কি আওয়ামীলীগ চলতে পারে?’
সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান

এদিকে সিদ্ধিরগঞ্জের ২ চিহ্নিত বিএনপিপন্থী কাউন্সিলরকে নিয়ে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করাকে নিয়ে উপস্থিত সিদ্ধিরগঞ্জ, বন্দর ও নগরীর আওয়ামীপন্থী নেতা-কর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। সেখানে উপস্থিত সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এই সাদরিল ও ইকবাল এর বিরুদ্ধে জ্বালাও -পোড়াও নাশকতা সহ বহু মামলা রয়েছে, জেল খেটেছে। গ্রেফতারের ভয়ে তারা এলাকাতেই থাকেনা। তাই ময়র আইভী তাদেরকে সাথে নিয়ে ভোট দিতে এসেছেন। এবিষয়ে ক্ষোভ জানিয়ে ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ নেতা মতিউর রহমান মতি জানান, ‘ কিছুদিন আগে বিএনপির কর্মসুচীতে মহাসড়কে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় সরকার বাদী মামলায় এই কাউন্সিলর ইকবাল গ্রেফতার হয়েছিল এবং মেয়র আইভী বলেছিলেন ইকবাল ভালো ছেলে এবং তিনি বিশ্বাস করেন না ইকবাল এমন কাজ করতে পারে। বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াস ও কাউন্সিলর ইকবালের কারণে বিএনপি-জামাত জোট আমলে আমরা এলাকায় থাকতে পারিনি, আমাদের বাড়ীঘর লুট হয়েছে। সেই গিয়াসের ছেলে কাউন্সিলর সাদরিল ও কাউন্সিলর ইকবালকে রীতিমত শেল্টার দিয়ে তিনি  (মেয়র আইভী) ভোট কেন্দ্রে নিয়ে এসেছেন এবং ভোট শেষে নিয়ে গেছেন। প্রকৃত আওয়ামীলীগ যারা করেন তারা এই ঘটনা মেনে নিবেন না বটেই উল্টো আমাদের এখন বুকে রক্তক্ষরণ হচ্ছে এই ভেবে যে, কার জন্য আমরা সিটি নির্বাচনে ঝাপিয়ে পরেছিলাম’। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের নেতা মহসিন ভুইয়া বলেন, যেহেতু মেয়র আইভী আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়ে নৌকা নিয়ে মেয়র নির্বাচন করেন এবং একই সাথে তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি, সেহেতু তার সাথে বিএনপির সন্ত্রাসী কাউন্সিলরদের সাথে নিয়ে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করা অবশ্যই দৃষ্টিকটু। এটা মেনে নেয়া যায়না’।


এদিকে ঐ কেন্দ্রের ভোট গ্রহন শেষে সদস্য প্রার্থী ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান উপস্থিত নেতাকর্মীদের সামনে চিৎকার করে কাদঁতে থাকেন। তিনি বলেন, ভোটের জয় পরাজয় থাকবেই। কিন্তু আমাকে হারাতে বিএনপির চিহ্নিত সন্ত্রাসী ভোটারদের( কাউন্সিলর) নিয়ে মেয়র আইভী ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করে প্রমাণ করেছেন তিনি প্রকৃত আওয়ামীলীগ করেন না। কেননা সিদ্ধিরগঞ্জের আরো আওয়ামীলীগ দলীয় কাউন্সিলর ছিল, তাদেরকে তো তিনি ডাকেননি। ৭২ বছর বয়সে ৫০বছরই আওয়ামীলীগ করছি। আজ এই দৃশ্য দেখে বুকে ভয় ও ব্যথার পাহাড় ভেঙ্গে পরেছে। নেত্রী আর আমার দল আওয়ামীলীগ আজ সত্যিই এক আতঙ্কিত ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ