ঢাকাশনিবার , ২২ অক্টোবর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

পদ-পদবীর জন্য রাজনীতি করতে আসি নাই: শামীম ওসমান

আবু বকর সিদ্দিক
অক্টোবর ২২, ২০২২ ৪:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন সাধারণ সদস্য। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ও শেখ হাসিনার একজন সামন্য কর্মী হিসাবে ছিলাম, আছি এবং কর্মী হিসাবেই মরতে চাই। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শেখ হাসিনার একজন অতি সাধারণ কর্মী হিসাবেই থাকতে চাই। পদ-পদবীর জন্য রাজনীতি করতে আসি নাই।
শুক্রবার (২১ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে চারটায় নগরীর রাইফেলস ক্লাবে সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রস্তুতিমূলক সভায় গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ঢাকায় একটি সমাবেশে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী, বিশেষ করে বিএনপি , জামাত, স্বাধীনতা বিরোধী মৌলবাদি শক্তিকে দাওয়াত দিয়ে বলেছেন নারায়ণগঞ্জের সম্মেলন দেখার জন্য। দলের সাধারণ সম্পাতকের এই কথার মধ্যে প্রমাণ হয়, জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা ও আমার দলের নারায়ণগঞ্জের প্রতি অগাধি বম্বাস আছে। দলের এই আত্ম বিশ^াসের ফলে আমাদের দায়িত্ব আরো বেড়ে গেছে। তাই আমরা চেষ্টা করচি এমন একটি সম্মেলন করতে যেন তৃণমূল চাঙ্গা হয়ে ওঠে এবং স্বাধঅনতার পক্ষের সকল শক্তিকে যেন উজ্জীবিত করে। ব্যাপক গণজমায়েতের মাধ্যমে সুন্দর ও সুশৃঙ্খল করে যেন সম্মেলন শেষ করতে পারি সেই লক্ষে কাজ করে যাচ্ছি।
স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে ইঙ্গিত দিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান বলেন, অতীতে অনেক ভূল করেছেন, ভবিষ্যতে আর ভূল করবেন না। ভূল করে আদৌ এই দেশে আপনারা আর কিছু করতে পারবেন না। কারন আমার দৃঢ় বিশ^াস জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনার ওপর আল্লাহ রাব্বুল আলামিন রহমতের চাদর বিছিয়ে রেখেছে।
এর আগেও আপনাকে মন্ত্রীত্ব এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার জন্য বলা হয়েছিল, আপনি তা গ্রহণ করেননি। এবার যদি কেন্দ্র এবং ডেলিকেটরা আপনাকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করতে চায় আপনি হবেন কিনা? গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেন, ১৯৯৮ সালে আমাকে মন্ত্রী হবার জন্য বলা হয়েছিল এবং ২০১১ সালে আমাকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপকি হবার জন্য বলা হয়েছিল, এটা সত্যি। আপনার প্রশ্নের উত্তর হল- ‘আমি মানুষটাই এরকম’। আমি হলাম আদর-স্নেহের ও ভালবাসার কাঙ্গাল। বিশেষ করে আমার মায়ের অবর্তমানে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনাকে আমি মা ডাকি। এখানে আমরা যারা আছি, সবাই তাই ভাবি। জাতির পিতার রেখে যাওয়া দুই কন্যা এবং সেই পরিবার থেকে যেই আদর স্নেহ এবং ভবলবাসা পেয়েছি, আমার কাছে সেটিই বড় পাওয়া।
নাসিম ওসমান সেতু উদ্ভোধন কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের পরিবারকে নিয়ে যেই ভষণ দিয়েছেন, আসলে এরপর আমার চাওয়া পাওয়ার আর কিছু নাই। আমি পরিষ্কার ভাবে একটি কথা বলতে চাই, আমি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী না। আমি মনে করি এখানে যোগ্য নেতৃত্ব আছে। আমার সাথে এখানে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মোহাম্মদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দন শীল, তারা সকলেই অত্যন্ত ত্যাগী ও কর্মীবান্ধব নেতা। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন যিনি রাজপথের নেতা ও ত্যাগী নেতা, মাথার ওপর মুরুব্বীর দরকার আছে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই ভাই, তিনিও আওয়ামী লীগের জ্যাষ্ঠ নেতা। যারা আছেন, তাদের পরিবর্তন করার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। তবে সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্র ও কাউন্সিলরগন।
আমি মনে করি যারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন তার ভাল। আমার একটাই অনুরোধ থাকবে, সামনে যেই সময়টা আসছে সেটাকে মোকাবেলা করার জন্য, প্রধানমন্ত্রী সেতু (নাসিম ওসমান তৃতীয় শিতলক্ষ্যা সেতু) উদ্বোধনের দিন আমার দাদার নাম বলে বলেছিলেন, খান সাহেব ওসমান আলী এবং বাইতুল আমান ছিল আওয়ামী লীগের ঘাঁটি ছিল। আমরা এই ছিলটাকে ওভারকাম করতে চাই। আমরা চাই উনি যেন ছিল না বলে বলেন, নারায়ণগঞ্জ অঅওয়ামী লীগের ঘাঁটি এখনো আছে এবং ভবিষ্যতেও আছে। এটাই আমাদের উদ্যম।
কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা আমান উল্লাহ আমন বলেছেন আগামী ডিসেম্বরের ১০ তারিখ খারেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশ পরিচালনা হবে, এই বিষয়ে আপনার মন্তব্য কী? উত্তরে শামীম ওসমান বলেন, আমাকে প্রশ্ন না করে তাদের পাবনায় নিয়ে মানষিক ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিৎ। আমান ভাই আমার অনেক প্রিয় মানুষ, শ্রদ্ধেয় বড় ভাই। আমার মনে হয় তারা হতাশা থেকে এসব কথা বলছেন। তারা যখন দেখেন এত কিছু করছি, কিন্তু জনগণ সাথে নাই। তখন ডিপ্রেশন থেকে এইসব কথা বলে। আমি আল্লাহর কাছে আমি, তাদের আশু রোগ মুক্তি কামনা করি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দনশীল, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলালসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।