মামুন মাহমুদকে হত্যার চেষ্টা পরিকল্পনার আদ্যোপান্তে গিয়াসের ছোট ছেলে রিফাত

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় থলের বিড়াল বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। গত সোমবার রাজধানীর পুরানা পল্টনে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে হত্যা চেষ্টার সঙ্গে জড়িত হিসেবে পুলিশের তদন্তে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের ছোট ছেলে গোলাম মোঃ কাউসার ওরফে রিফাতের নাম উঠে এসেছে। রিফাতের হয়ে খুনি ভাড়া করেন তার ঘনিষ্ঠ সহযোগি ফতুল্লার বাসিন্দা মোঃ হৃদয়। আর হামলাকারী মোঃ জুয়েল মীরকে মামুন মাহমুদের অফিস ও তার ছবি দেখিয়ে দেয় জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি গ্রেপ্তার দিদার আলম ওরফে সাগর সিদ্দিকী।

ঘটনার দিন দুপুর থেকে ঘটনাস্থলের অদূরে মুক্তাঙ্গনে নিজের মাইক্রোবাসে অবস্থান করছিলেন নাসিকের ২নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিএনপি নেতা ইকবাল হোসেন ও সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিনের ব্যক্তিগত সহকারী পল্টু কর্মকার। পল্টন থানা পুলিশের তদন্তে ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের এসব তথ্য উঠে এসেছে। ঘটনার পর থেকে থেকে কাউন্সিলর ইকবাল ও রিফাতকে এলাকায় দেখা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে এলাকার লোকজন।

গত সোমবার রাতে ঘটনার পরেই স্থানীয়রা হামলাকারী জুয়েল মীরকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করে। আর ঘটনার পর দিন মামুন মাহমুদকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেখতে গিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয় সাগর সিদ্দিকী। ওই ঘটনায় মামুন মাহমুদের স্ত্রী বদরুননাহার বাদি হয়ে আটক জুয়েল মীরকে একমাত্র আসামী করে পল্টন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

গত সোমবার রাত পৌনে ৮টায় রাজধানীর পুরানা পল্টনের দারুস সালাম টাওয়ারের সপ্তম তলার নিজ অফিস থেকে নামার পর দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন মামুন মাহমুদ। ঘটনার পর স্থানীয়রা ধাওয়া করে পল্টন জামে মসজিদের সামনে থেকে হামলাকারী জুয়েল মীরকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। এদিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে জুয়েল স্বীকার করে সে বিএনপির একজন কর্মী। বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল। সেখানে তার সঙ্গে হৃদয় নামে নারায়ণগঞ্জের এক বড় ভাইয়ের পরিচয় হয়। একদিন হৃদয় জুয়েলকে জানায় একজনকে মারতে হবে। তাই কিছু লোক ঠিক করে দিতে হবে। ওই সময় জুয়েল নিজেই কাজটি করতে চায়। ঘটনার আগের দিন হৃদয় ও রিফাত ঢাকা গিয়ে মামুন মাহমুদকে হত্যা করতে জুয়েলকে নির্দেশ দেয়। জুয়েল মামুন মাহমুদকে চেনে না জানালে হৃদয় ও রিফাত জানায় সাগর সিদ্দিকী তাকে মামুনের অফিস ও ছবি দেখিয়ে দেবে। পরে তাকে মামুন মাহমুদের অফিস ও ছবি দেখিয়ে দেয় সাগর সিদ্দিকী।

গত বুধবার পল্টন থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো: জাহিদুল ইসলাম গ্রেপ্তার সাগর সিদ্দিকীকে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে এবং ঘটনা সম্পর্কে ঢাকার মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দাখিল করা প্রতিবেদনে মামুন মাহমুদের উপর হামলা প্রসঙ্গে এসব তথ্য উপস্থাপন করেন। এদিকে তদন্ত সংশ্লিষ্ট পল্টন থানার একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ঘটনাটি বিএনপির আভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে সংগঠিত হয়েছে। ঘটনার মাস্টার মাইন্ড রিফাত। তার হয়ে খুনি ভাড়া করে হৃদয়। রিফাত ও হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা গেলে ঘটনার বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানা যাবে। ওদিকে ৩দিনের রিমান্ডে থাকা সাগর সিদ্দিকী পুলিশকে ঘটনার বিষয়ে নানা তথ্য দিচ্ছে। পুলিশ সেগুলো যাচাই বাছাই করে দেখছে। ঘটনার দিন দুপুরে নাসিকের ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন ও পল্টু কর্মকার নামে দু’জন একটি মাইক্রোবাসে করে অবস্থান করছিল বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। পুলিশের সন্দেহের তালিকায় কাউন্সিলর ইকবালও রয়েছেন বলে জানিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পল্টন থানার এসআই জাহিদুল ইসলাম বলেন, পুলিশ মামলাটি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করছে। গ্রেপ্তারকৃতদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত সতর্কতার সঙ্গে যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের উপর হামলার ঘটনায় নিজের ছেলের সম্পৃক্ততার বিষয়ে জানতে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের ব্যবহৃত দু’টি মুঠো ফোনে (০১৯২৩৩৩৯৭৪০, ০১৯১১৭০৪০৯৮) একাধিক বার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় এ ব্যাপারে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page