উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে

নারায়ণগঞ্জে ধলেশ্বরীর দুইপারে চলছে শতাধিক ইটভাটা

দৃষ্টির সীমানায় যতদূর চোখ যায় সারি সারি ইটভাটার চিমনি, দৃষ্টির সীমা পেরিয়ে ঝাপসা হয়ে আসে দৃষ্টিশক্তি। তবুও আবছা আবছা দেখা যায় ইটভাটাগুলোর চিমনি থেকে নির্গত হওয়া কালো ধুয়া। রাতদিন এক করে ভাটাগুলোতে পালাক্রমে স্থাপনা নির্মাণের অন্যতম অনুসঙ্গ ইট তৈরীর কর্মযজ্ঞে ব্যাস্ত সময় পার করছে ভাটা শ্রমিকেরা। কার্তিকের শুরুতে পাকমিলে মাটি প্রকৃয়াকরণ শেষে প্রকৃয়াজাত করা মাটি ছাঁচে পুরে দিয়ে শুরু হয় ইটের আকৃতি দেয়ার কার্যক্রম। এর পর ইটগুলো শুকিয়ে গলুইয়ে সারি সারি সাজিয়ে তাতে আগুন দেয়া হয়। কার্তিকে দেয়া আগুন জৈষ্ঠ পর্যন্ত একটানা আটমাস জ¦লে বিরামহীন। তবে উদ্বেকজনক হল উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম না মেনে অতি মুনাফালোভী ভাটা মালিক পক্ষ পরিচালনা করছে এ অঞ্চলের অধিকাংশ ইটভাটা। এতে করে প্রাণ বৈচিত্র ও পরিবেশ পড়ছে হুমকির মুখে।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীন ধর্মগঞ্জ এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইটভাটাতে শ্রমিকরা কাঠ এবং গাড়ির পুরোনো টায়ার ব্যবহার করছেন গলুইয়ে প্রথম বারের মত আগুন দেয়ার কাজে। এরপর বছর জুড়ে এসব ইটভাটায় ইট পোড়ানো জন্য জ¦ালানী হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে টনকে টন কয়লা। যেখানে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে সনদ নেয়া ভাটা পরিচালনার ক্ষেত্রে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে প্রতি বছরের ইট তৈরীর মৌসুমে একটি ভাটা সর্বোচ্চ ১শত মোন বাঁশজাত দ্রব্য জ¦ালানী হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে। কোন ভাবেই বন উজার করে গাছের কাঠ জ¦ালানী হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। তবে নিষেধ থাকলেও কোনটাই মানছেনা মালিকপক্ষ। সকল নিয়মনিতীকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে সে গুলোও ব্যবহার করছে তাদের নিজস্ব ইচ্ছামত। এতে করে নাগরিকরা বিশুদ্ধ বাতাসে শ^াস নেয়ার অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে।

এদিকে পৃথিবীর ৬০টিরও বেশি দেশে বায়ূ মান নিয়ে গবেষনা চালানো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সংস্থা ক্লারিটি’র মতে বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বায়ূ দূষণ হয় শিল্প ও বাণিজ্যের শহর নারায়ণগঞ্জে। সংস্থাটি থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন বলছে নারায়য়ণগঞ্জে বায়ূ দূষনের মাত্রা ১৭৭ পিএম২ সূচক। যা জনস্বাস্থের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছে বায়ূ দূষণ নিয়ে গবেষনা চালানো এই সংস্থাটি। সংস্থাটি এই এলাকায় বসবাসরত নাগরিকদের যত সম্ভব বাহিরের কার্যক্রম এড়িয়ে যেতে পরামর্শ দিয়েছে। শুধু তাই নয়,স্বাস্থঝুঁকি এড়াতে তারা বলছে ঘরে থাকলেও ঘরের জানালা ও দরজা লাগিয়ে রাখতে।

পূব ধর্মগঞ্জ এলাকার স্থানীয় কৃষক আসাদুল করিম (৬৭) বলেন, বিশ বছর ত্রিশ বছর আগেও এখানে ধান পাটসহ মৌসুমী সবজির আবাদ হতো। ক্ষেতিকাজই আমাদের আয়ের একমাত্র উৎস ছিল। তবে এখন খোলা (ইটভাটা) বেড়ে যাওয়ায় চাষাবাদ এই এলাকা থেকে একেবাড়ে বিলীন হয়ে গেছে বল্লেই চলে। আর এই ইটভাটা থেকে নির্গত ধুয়া থেকে এক ধরনের ছাই পরে। যারফলে আমাদের বাড়ি ঘরের চাল দুই বছরের বেশি টিকেনা, জংকার ধরে নষ্ট হয়ে যায়।

ইটভাটাগুলোর একেবারেই কাছের নবিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শেণীর ছাত্রী রাইসা বিনতে আলম বলেন, সরকার প্রনীত আইন অনুযায়ী, বিদ্যালয় প্রাঙ্গনের ১ কিলোমিটারের মধ্যে কোন ইটভাটা স্থাপন করা যাবে না। কিন্তু আদতে এই আইন এখানে কেউ মানছেনা। মাঝে মাঝে ম্যাজিস্ট্রেট আসে জড়িমানা করে চলো যায়, তবে স্থায়ী কোন বন্দোবস্ত হয় না। আমি সরকারের কাছে আবেদন করছি এই বিষয়ে যেন স্থায়ীভাবে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

এদিকে সর্বশেষ পরিবেশ অধিদপ্তর ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে নারায়ণগঞ্জের ১১টি ইটভাটাকে ৫৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছে । একই সাথে ইটভাটা গুলোর কার্যক্রম বন্ধ করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছিল। বুধবার (২ ফেব্রুয়ারী) নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার পূর্ব গোপালনগর ও ধর্মগঞ্জ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালতের সেই অভিযানে দোষী প্রমাণীত হয়ে জরিমানা দেওয়া ইটভাটা গুলো হচ্ছে মেসার্স খাদিজা ব্রিকস, মেসার্স নজরুল ব্রিকস ম্যানুফ্যাকচারার, এ এস বি ব্রিকস, মেসার্স বোখারী ব্রিকস, মেসার্স এস এস ব্রিকস, এ এন এস ব্রিকস, মেসার্স চিস্তিয়া সাবেরিয়া ব্রিকস, মেসার্স এন বি এম ব্রিকস, মেসার্স আজাদ এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স নিজাম উদ্দীন ব্রিকস ও মেসার্স তাজ ব্রিকস। কিন্তু উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ও মেজিষ্ট্রেট কর্তৃক অভিযানের শেষে ঐদিন রাত থেকেই ভেঙ্গে দেয়া ভাটাগুলো পুনরায় সংস্কার করে মাত্র ৫দিনের মধ্যেই আবার ইট উৎপাদনে যায় মুনাফালোভী মালিকপক্ষ।

জানা গেছে আইনজিবী মনজিল মোর্শেদের করা রীটের প্রেক্ষিতে গত ১৬ ফেব্রুয়ারী বুধবার ঢাকা ও আসপাশের জেলার অবৈধ ইটভাটাগুলোর তথ্য চেয়ে জেলাপ্রশাসকদের নির্দেশনা দেয় উচ্চ আদালত। বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের বেঞ্চে অবৈধ ইটভাটা সম্পর্কে ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক বলেছেন অবৈধ ইটভাটা বন্ধের লক্ষে অভিযান অব্যাহত আছে। তবে রিটকারী আইনজিবী বলছেন শুধু উচ্ছেদ আভিযানে হবে না, অভৈধ ইটভাটাগুলো যেন পুণরায় উৎপাদনে না আসকে পারে সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

মেসার্স এ এস বি ব্রিকস’র মালিক নাজির হোসেন সিজনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভাই আমার কাগজপত্র সব আছে, পরিবেশ আধিদপ্তরের লাইসেন্স থেকে শুরু করে ডিসি লাইসেন্সসহ সবকিছুই আছে। এর পরও পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে এসে জরিমানা করা হয়েছে। ডিসি লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হওয়াতে পুনরায় নবায়নের জন্য আবেদন করা হয়েছে। আমার ব্যাবসায়ের অংশিদার তখন নারায়ণগঞ্জের বাহিরে ছিলো বিধায় তার কাছে থাকা ডিসি লাইসেন্স নবায়নের আবেদনের রিসিভ কপি দেখাতে পারি নাই। এই জন্য আমাদের ভাটাকে জরিমানা করা হয়েছে। এখন বিষয় হল ম্যাজিস্ট্রেটের সামনেতো আসলে বেশি কথা বলা যায়না। তবে আমার সব কাগজ পত্র ঠিকঠাক আছে। তারপরেও আমার খোলাকে জরিমানা ও ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

ইটভাটার কারণে স্থানীয় কৃষক ও বসবাসরতদের ফসল ও ঘরের চালের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে বলে অনেকে দাবি করেছে। এই বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কাছে অকৃষি সনদ ও রয়েছে। আর ইটভাটার কারনে ফসল ও বসতবাড়ির চালের ক্ষতি হয় বলে জানা নাই, এইটা নিয়ে গবেষনা করি নাই। আর তাছাড়া এখানে কোনও বাড়িঘরও ছিলনা, ভাটার আসেপাশে জমির দাম কম থাকে বিধায় অনেকে সদ্য এখানে বসতি গড়ে তুলেছে।

ইটভাটাগুলোকে জড়িমানা কার ও ভেঙে দেওয়া হয়েছিল, এবং বন্ধ রাখার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছিল। তো এই ভাটাগুলো আবার পুনরায় কিভাবে চলছে-এমন প্রশ্নে, নাম পরিচয় গোপন রাখার শর্তে ধর্মগঞ্জ এলাকার একটি ভাটায় কর্মরত ম্যানেজার বলেন, মালিকদের ক্ষমতা আছে বলেই তারা আবারো ইটভাটা চালু করেছে। কারন টাকার কাছে ভাই অনেকেই জিম্মি আছেন। এমনকি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে পরিবেশ অধিদপ্তর সহ অনেকেরেই টাকা দেওয়া হয়েছে। নাহলে তো আবার পুনরায় ইট উৎপাদনে যেতে পারতো না।

পরিবেশ অধিদপ্তরের নারায়ণগঞ্জ জেলা উপ পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক কিলোমিটারে মধ্যে বিধি মোতাবেক ইটভাটা পরিচালনা নিষেধ। সর্বশেষ পরিচালিত অভিযানে ইটভাটাগুলোর প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১ কিলোমিটার দুরত্বের মধ্যে অবস্থিত। এছাড়াও  ইটভাটাগুলো চালানো জন্য হালনাগাদ পরিবেশগত ছাড়পত্র ও ইট পোড়ানো লাইসেন্স ছিল না। পাশাপাশি ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন, ২০১৩ (সংশোধিত-২০১৯) এর বিভিন্ন ধারা লংঘনের কারণে ইটভাটাগুলোতে গত ২ ফেব্রুয়ারী (বুধবার) অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ভাটাগুলোর প্রতিটিকে পাঁচ লক্ষ টাকা করে জরিমানা ধার্য্য করা হয় এবং তাৎক্ষণিক ধার্যকৃত জরিমানা আদায়ও করা হয়েছে। একই সাথে ইটভাটা গুলোর কার্যক্রম বন্ধ করার নির্দেশনা প্রদান করেছেন অভিযানে নিয়োজিত পরিবেশ অধিদপ্তরের (সদর দপ্তর) মনিটরিং এন্ড এনফোর্সমেন্ট উইং এর নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট কাজি তামজীদ আহমেদ।

উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে পুনরায় কি করে ইটভাটা গুলো চলছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ আমরা মোবাইল কোর্ট করে ব্যবস্থা নেই একদিকে, অন্যদিকে আবার পুনরায় তারা ইটভাটা সংস্কার করে উৎপাদনে আসে। আমরা বন্দরে এক চেয়ারম্যানের খোলা ফিল্ড ও চিমনি সহ গুড়িয়ে দিয়েছি। সেই ভাটাগুলো পুনরায় চলছে বলে আমার জানা নেই। আর তাছাড়া দশটা ইটভাটা নিয়ে কি আমি সাড়া বছর পরে থাকবো? নিয়ম বহির্ভূত ভাবে ভাটা পরিচালনা করেছে জরিমানা করেছি। আমারতো আরোও অনেক কাজ আছে, শুধু ভাটা নিয়ে পরে থাকার মত সময় ও লোকবল কোনটাই আমার নাই। আর অমি এখন হাসপাতালে আছি, ভাই পরে কল দিয়েন’ এই বলে ফোন রেখে দেন তিনি।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ