সড়কপথে প্রতিদিন ঝরেছে ৩৮ প্রাণ

- Advertisement -

 বিগত ফেব্রুয়ারি মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জন। সেভ দ্য রোড-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী এই পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হয়। মঙ্গলবার (১ মার্চ) গনমাধ্যমে প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানান সংগঠনটি।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের ৩১ টি জাতীয় দৈনিক, বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা ও ইলেকট্রনিক্স চ্যানেলে প্রকাশিত-প্রচারিত তথ্যর পাশাপাশি সারাদেশে সেভ দ্য রোড-এর স্বেচ্ছাসেবিদের তথ্যানুসারে ফেব্রুয়ারি মাসে ৫ হাজার ৩৫৪ টি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৪ হাজার ৩৩৩ জন এবং নিহত হয়েছে ১০৭৮ জন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে সেভ দ্য রোড-এর ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখ থেকে ২৮ তারিখ পর্যন্ত সড়কপথে সবচেয়ে বেশি ঘটেছে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনা ঘটে। মোটর সাইকেল চালানোর সময় নিয়ম না মানা এবং হেলমেট ব্যবহারে অনীহার কারণে ২১৫১ টি দুর্ঘটনায় আহত ১৭৫২ এবং নিহত হয়েছে ২১৬; অসাবধানতা ও ঘুমন্ত চোখে-ক্লান্তিসহ দ্রুত চালানোর কারণে ৬০২ টি ট্রাক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩৮৫ এবং নিহত হয়েছে ৬৫ জন। ১৩৭৭ টি বাস দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে ১২৯০ এবং নিহত হয়েছে ৩৪৬ জন। পাড়া-মহল্লা-মহাসড়কে অসাবধানতার সাথে চলাচলের কারণে লড়ি, পিকআপ, নসিমন, করিমন, ব্যাটারি চালিত রিক্সা, সাইকেল ও সিএনজি দুর্ঘটনা ঘটেছে ১২২৪ টি আহত হয়েছে ৯০৫ জন এবং ৪৫১ জন নিহত হয়েছে।

সেভ দ্য রোড বলছে, পথদুর্ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার বাস্তবায়ন দ্রুত করলে চালক-সহকারীসহ সবাই সতর্ক থাকবে বলে আমরা আশাবাদী। একই সাথে সেভ দ্য রোড বরাবরই বলছে- পথ দুর্ঘটনায় আহতদের পরিবারকে কমপক্ষে ৩ লক্ষ ও নিহতদের পরিবারকে কমপক্ষে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়া হোক। দুর্ঘটনামুক্ত পথ আন্দোলনে নিবেদিত থাকা সবাইকে সচেতনতা তৈরির জন্য কাজ করে যাওয়ারও আহবান জানাচ্ছে সেভ দ্য রোড।

এদিকে, ‘সেভ দ্য রোড-এর অঙ্গীকার পথ দূর্ঘটনা থাকবে না আর…’ বাক্যটিকে লালন রেখে ২০০৭ সাথে পথচলা শুরু করে সেভ দ্য রোড। যেখানে নায়ক নেই, আছেন নায়ক বানানোর কারিগর। আছেন নতুন প্রজন্মের প্রিয় মুখগুলো। যে কারণে নিরন্তর চেষ্টার হাত ধরে প্রতি বছর দুই ঈদ ও বছরের শুরুতে ও শেষে সেভ দ্য রোড যে পথ দুর্ঘটনার তথ্য গত ১৪ বছর ধরে দিয়ে আসছিলো তার চেয়ে একটু এগিয়ে ২০২২ সালে এসে প্রতি মাসের পথ দুর্ঘটনার তথ্য দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

এই কাজে সেভ দ্য রোড-এর চেয়ারম্যান ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জেড এম কামরুল আনাম, প্রতিষ্ঠাতা মোমিন মেহেদী, মহাসচিব শান্তা ফারজানা, ভাইস চেয়ারম্যান বিকাশ রায়, জিয়াউর রহমান জিয়া, ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের সহ-সভাপতি আনজুমান আরা শিল্পী, আইয়ুব রানাসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বিভিন্নভাবে সহায়তা করেছেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page